somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

*কালজয়ী*
গবেষক, পাঠক ও লেখক -- Reader, Thinker And Writer। কালজয়ী- কালের অর্থ নির্দিষ্ট সময় বা Time। কালজয়ী অর্থ কোন নির্দিষ্ট সময়ে মানুষের মেধা, শ্রম, বুদ্ধি, আধ্যাত্মিকতা ও লেখনীর বিজয়। বিজয় হচ্ছে সবচেয়ে শক্তিশালী চিন্তার বিজয়।

আধুনিক সভ্যতা, জ্ঞান-বিজ্ঞান, দর্শন, শিল্প- সাহিত্যে ইসলাম ও মুসলিমদের অবদানঃ সেকেন্ডারি এনালাইসিস অন হিস্টোরিক্যাল ডেটা

৩০ শে জুন, ২০১৮ ভোর ৫:১২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

লেখাঃ Sunday; 19th March; 2017
তৃতীয় অংশঃ

জ্ঞান -বিজ্ঞানের মূল উৎস হচ্ছে মহাগ্রন্থ আল কুরআন। কেননা পবিত্র কুরআনকে বলা হয়েছে আল্ হাকীম তথা বিজ্ঞানময়। জ্ঞান - বিজ্ঞানের চর্চার প্রতি গুরুত্বারোপ করে পবিত্র কুরআনে আল্লাহ তাআলার প্রথম বাণীই হচ্ছে,"পড়,তোমার প্রতিপালকের নামে যিনি সৃষ্টি করেছেন, সৃষ্টি করেছেন মানুষকে জমাট -বাঁধা রক্তপিন্ড হতে। পাঠ কর, আর তোমার রব্ বড়ই অনুগ্রহশীল ..."- (সুরা আল আলাক্ব 96:1-3)। আল্লাহর নবী মুহাম্মাদ (সঃ) বলেছেন, :"জ্ঞান অর্জন করা প্রত্যেক মুসলিমের ( নর-নারীর) ওপর ফারয্ "। আল্লাহ তাআলা ও তাঁর রসুলের এসব আদেশ- নির্দেশে অনুপ্রাণিত হয়ে একদল মেধাবী মুসলিম জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চায় নিবেদিত হয়ে পড়েন। তাদের নিরলস প্রচেষ্টায় জন্ম নেয় আধুনিক বিজ্ঞানচর্চা। তাঁরা জ্ঞান-বিজ্ঞান সাধনায় নিমগ্ন হয়ে যে অসামান্য অবদান রেখে গেছেন তা পৃথিবীর ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্রের মত দীপ্যমান হয়ে রয়েছে। তাদের জ্ঞান সাধনা ছিল অভূতপূর্ব ও সুষমামণ্ডিত। তাদের প্রতিভা ছিল নি:সন্দেহে নযীরবিহীন স্বীকৃত। ইবনু রুশদের ভাষায় তা এভাবে, 'সুপ্ত থাকে পাথরের বুকে, স্বপ্ন দেখে জীবজন্তুর মধ্যে, জেগে ওঠে মানুষের মধ্যে'।কুরআনিক শিক্ষার নির্দেশিত তাঁদের এই অভূতপূর্ব প্রয়াস যুগান্তকারী সাফল্য অর্জন করে মানব সভ্যতার প্রতিটি অঙ্গনকে করেছে বিকশিত ও আলোকিত। বিশ্ব জ্ঞান- ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করে এক অবিস্মরণীয় ইতিহাস রচনা করেছে।মুসলিমগণ ছুটে গেছে চীন, ভারত, মিসরসহ দূরান্তে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। বৈজ্ঞানিক গবেষণাগার থেকে শুরু করে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত উচ্চ শিক্ষা স্তরে তাদের অবদান. অবিস্মরণীয়। মুসলিমগণ যখন জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চায় নিমগ্ন, ইউরোপ তখন গভীর অন্ধকারে নিমজ্জিত। মুসলিমদের সেই স্পেনের 'কর্ডোভা ও গ্রানাডা ' যা তৎকালীন বিশ্বের জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চার প্রধান কেন্দ্র ছিল, তখন ইউরোপের লোকেরা সেখান থেকে বিদ্যা অর্জন করে বর্তমান আধুনিক সভ্যতায় আলোড়ন সৃষ্টি করে। মুসলিমগণ গণিতশাস্ত্র, চিকিৎসা বিজ্ঞান, রসায়ন বিজ্ঞান, পদার্থ বিজ্ঞান, আইন, দর্শন ও ইতিহাস প্রভৃতি বিষয়ের প্রবর্তন ও তা চর্চা করে আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় যে উৎকর্ষ সাধন করেছে তাতে সমগ্র বিশ্ব তাদের কাছে চিরঋণী হয়ে আছে। জ্ঞান - বিজ্ঞানে মুসলিমদের অবদান এতটাই ব্যাপক যে, শুধুমাত্র একটি বিষয়ের উপর লিখতে গেলে কয়েকটি গ্রন্থ প্রণয়ন করা যাবে।

Philosophy:

Ibn Rushd, founder of the Averroism school of philosophy, whose works and commentaries had an impact on the rise of secular thought in Western Europe.

Arab philosophers like al-Kindi (Alkindus) and Ibn Rushd (Averroes) and Persian philosophers like Ibn Sina (Avicenna) played a major role in preserving the works of Aristotle, whose ideas came to dominate the non-religious thought of the Christian and Muslim worlds. They would also absorb ideas from China, and India, adding to them tremendous knowledge from their own studies. Three speculative thinkers, al-Kindi, al-Farabi, and Avicenna (Ibn Sina), fused Aristotelianism and Neoplatonism with other ideas introduced through Islam, such as Kalam and Qiyas. This led to Avicenna founding his own Avicennism school of philosophy, which was influential in both Islamic and Christian lands. Avicenna was also a critic of Aristotelian logic and founder of Avicennian logic, and he developed the concepts of empiricism and tabula rasa, and distinguished between essence and existence.

From Spain the Arabic philosophic literature was translated into Hebrew, Latin, and Ladino, contributing to the development of modern European philosophy. The Jewish philosopherMoses Maimonides, Muslim sociologist-historian Ibn Khaldun, Carthage citizen Constantine the African who translated ancient Greek medical texts, and the PersianAl-Khwarzimi’s collation of mathematical techniques were important figures of the Golden Age.

One of the most influential Muslim philosophers in the West was Averroes (Ibn Rushd), founder of the Averroism school of philosophy, whose works and commentaries had an impact on the rise of secular thought in Western Europe. He also developed the concept of “existence precedes essence”.
Another influential philosopher who had a significant influence on modern philosophy was Ibn Tufail. His philosophical novel, Hayy ibn Yaqdhan, translated into Latin asPhilosophus Autodidactus in 1671, developed the themes of empiricism, tabula rasa, nature versus nurture, condition of possibility, materialism, and Molyneux’s Problem. European scholars and writers influenced by this novel include John Locke, Gottfried Leibniz, Melchisédech Thévenot, John Wallis, Christiaan Huygens, George Keith, Robert Barclay, theQuakers, and Samuel Hartlib.

Al-Ghazali also had an important influence on Jewish thinkers like Maimonidesand Christian medieval philosophers such as Thomas Aquinas. However, al-Ghazali also wrote a devastating critique in his The Incoherence of the Philosophers on the speculative theological works of Kindi, Farabi and Ibn Sina. The study of metaphysics declined in the Muslim world due to this critique, though Ibn Rushd (Averroes) responded strongly in his The Incoherence of the Incoherence to many of the points Ghazali raised. Nevertheless, Avicennism continued to flourish long after and Islamic philosophers continued making advances in philosophy through to the 17th century, when Mulla Sadra founded his school ofTranscendent Theosophy and developed the concept of existentialism.

Other influential Muslim philosophers include al-Jahiz, a pioneer of evolutionary thought and natural selection; Ibn al-Haytham (Alhacen), a pioneer of phenomenology and thephilosophy of science and a critic of Aristotelian natural philosophy and Aristotle’s concept of place (topos); Biruni, a critic of Aristotelian natural philosophy; Ibn Tufail and Ibn al-Nafis, pioneers of the philosophical novel; Shahab al-Din Suhrawardi, founder of Illuminationist philosophy; Fakhr al-Din al-Razi, a critic of Aristotelian logic and a pioneer of inductive logic; and Ibn Khaldun, a pioneer in the philosophy of history and social philosophy.

Architecture

The Great Mosque of Xi’an in China was completed circa 740, and the Great Mosque of Samarra in Iraq was completed in 847. The Great Mosque of Samarra combined the hypostylearchitecture of rows of columns supporting a flat base above which a huge spiraling minaret was constructed.
The Spanish Muslims began construction of the Great Mosque at Cordoba in 785 marking the beginning of Islamic architecture in Spain and Northern Africa (see Moors). The mosque is noted for its striking interior arches. Moorish architecture reached its peak with the construction of the Alhambra, the magnificent palace/fortress of Granada, with its open and breezy interior spaces adorned in red, blue, and gold. The walls are decorated with stylized foliage motifs, Arabic inscriptions, and arabesque design work, with walls covered in glazed tiles.

In the Sunni Muslim Ottoman Empire massive mosques with ornate tiles and calligraphy were constructed by a series of sultans including the Süleymaniye Mosque , Sultanahmet Mosque, Selimiye Mosque, and Bayezid II Mosque.

Arts
An Arabic manuscript from the 13th century depicting Socrates (Soqrāt) in discussion with his pupils.
The golden age of Islamic (and/or Muslim) art lasted from 750 to the 16th century, when ceramics, glass, metalwork, textiles, illuminated manuscripts, and woodwork flourished. Lustrous glazing was an Islamic contribution to ceramics. Islamic luster-painted ceramics were imitated by Italian potters during the Renaissance. Manuscript illumination developed into an important and greatly respected art, and portrait miniature painting flourished in Persia. Calligraphy, an essential aspect of written Arabic, developed in manuscripts and architectural decoration.

Literature
Main articles: Islamic literature, Arabic literature, Arabic epic literature, and Persian literature
The most well known work of fiction from the Islamic world was The Book of One Thousand and One Nights (Arabian Nights), which was a compilation of many earlier folk tales told by the Persian Queen Scheherazade. The epic took form in the 10th century and reached its final form by the 14th century; the number and type of tales have varied from one manuscript to another. All Arabian fantasy tales were often called “Arabian Nights” when translated into English, regardless of whether they appeared in The Book of One Thousand and One Nights, in any version, and a number of tales are known in Europe as “Arabian Nights” despite existing in no Arabic manuscript.

This epic has been influential in the West since it was translated in the 18th century, first by Antoine Galland. Many imitations were written, especially in France. Various characters from this epic have themselves become cultural icons in Western culture, such as Aladdin, Sinbad and Ali Baba. However, no medieval Arabic source has been traced for Aladdin, which was incorporated into The Book of One Thousand and One Nights by its French translator, Antoine Galland, who heard it from an Arab Syrian Christian storyteller from Aleppo. Part of its popularity may have sprung from the increasing historical and geographical knowledge, so that places of which little was known and so marvels were plausible had to be set further “long ago” or farther “far away”; this is a process that continues, and finally culminate in the fantasy world having little connection, if any, to actual times and places. A number of elements from Arabian mythology and Persian mythology are now common in modern fantasy, such as genies, bahamuts, magic carpets, magic lamps, etc. When L. Frank Baum proposed writing a modern fairy tale that banished stereotypical elements, he included the genie as well as the dwarf and the fairy as stereotypes to go.

Ferdowsi’s Shahnameh, the national epic of Iran, is a mythical and heroic retelling of Persian history. Amir Arsalan was also a popular mythical Persian story, which has influenced some modern works of fantasy fiction, such as The Heroic Legend of Arslan.

A famous example of Arabic poetry and Persian poetry on romance (love) is Layla and Majnun, dating back to the Umayyad era in the 7th century. It is a tragic story of undying lovemuch like the later Romeo and Juliet, which was itself said to have been inspired by a Latin version of Layli and Majnun to an extent.
Ibn Tufail (Abubacer) and Ibn al-Nafis were pioneers of the philosophical novel. Ibn Tufail wrote the first fictional Arabic novel Hayy ibn Yaqdhan (Philosophus Autodidactus) as a response to al-Ghazali’s The Incoherence of the Philosophers, and then Ibn al-Nafis also wrote a novel Theologus Autodidactus as a response to Ibn Tufail’s Philosophus Autodidactus. Both of these narratives had protagonists (Hayy in Philosophus Autodidactus and Kamil in Theologus Autodidactus) who were autodidactic feral children living in seclusion on a desert island, both being the earliest examples of a desert island story. However, while Hayy lives alone with animals on the desert island for the rest of the story inPhilosophus Autodidactus, the story of Kamil extends beyond the desert island setting in Theologus Autodidactus, developing into the earliest known coming of age plot and eventually becoming an early example of proto-science fiction.

Theologus Autodidactus, written by the Arabian polymath Ibn al-Nafis (1213–1288), is an early example of proto-science fiction. It deals with various science fiction elements such asspontaneous generation, futurology, and the end of the world and doomsday. Rather than giving supernatural or mythological explanations for these events, Ibn al-Nafis attempted to explain these plot elements using the scientific knowledge of biology, astronomy, cosmology and geology known in his time. His main purpose behind this science fiction work was to explain Islamic religious teachings in terms of science and philosophy through the use of fiction.

A Latin translation of Ibn Tufail’s work, Philosophus Autodidactus, first appeared in 1671, prepared by Edward Pococke the Younger, followed by an English translation by Simon Ockley in 1708, as well as German and Dutch translations. These translations later inspired Daniel Defoe to write Robinson Crusoe, regarded as the first novel in English. Philosophus Autodidactus also inspired Robert Boyle to write his own philosophical novel set on an island, The Aspiring Naturalist. The story also anticipated Rousseau’s Emile: or, On Education in some ways, and is also similar to Mowgli’s story in Rudyard Kipling’s The Jungle Book as well as Tarzan’s story, in that a baby is abandoned but taken care of and fed by a mother wolf.

Dante Alighieri’s Divine Comedy, considered the greatest epic of Italian literature, derived many features of and episodes about the hereafter directly or indirectly from Arabic works on Islamic eschatology: the Hadith and the Kitab al-Miraj (translated into Latin in 1264 or shortly before as Liber Scale Machometi, “The Book of Muhammad’s Ladder”) concerningMuhammad’s ascension to Heaven, and the spiritual writings of Ibn Arabi. The Moors also had a noticeable influence on the works of George Peele and William Shakespeare. Some of their works featured Moorish characters, such as Peele’s The Battle of Alcazar and Shakespeare’s The Merchant of Venice, Titus Andronicus and Othello, which featured a MoorishOthello as its title character. These works are said to have been inspired by several Moorish delegations from Morocco to Elizabethan England at the beginning of the 17th century.

Music

A number of musical instruments used in classical music are believed to have been derived from Arabic musical instruments: the lute was derived from the al’ud, the rebec (ancestor ofviolin) from the rebab, the guitar from qitara, naker from naqareh, adufe from al-duff, alboka from al-buq, anafil from al-nafir, exabeba from al-shabbaba (flute), atabal (bass drum) from al-tabl, atambal from al-tinbal, the balaban, the castanet from kasatan, sonajas de azófar from sunuj al-sufr, the conical bore wind instruments, the xelami from the sulami orfistula (flute or musical pipe), the shawm and dulzaina from the reed instruments zamr and al-zurna, the gaita from the ghaita, rackett from iraqya or iraqiyya, tambura, sitar, the harpand zither from the qanun, geige (violin) from ghichak, and the theorbo from the tarab.

A theory on the origins of the Western Solfège musical notation suggests that it may have also had Arabic origins. It has been argued that the Solfège syllables (do, re, mi, fa, sol, la, ti) may have been derived from the syllables of the Arabic solmization system Durr-i-Mufassal (“Separated Pearls”) (dal, ra, mim, fa, sad, lam). This origin theory was first proposed by Meninski in his Thesaurus Linguarum Orientalum (1680) and then by Laborde in his Essai sur la Musique Ancienne et Moderne (1780). See as well the gifted Ziryab (Abu l-Hasan ‘Ali Ibn Nafi‘).

Ottoman military bands are thought to be the oldest variety of military marching band in the world. Though they are often known by the Persian-derived word Mehter. The standard instruments employed by a Mehter are: Bass drum (timpani), the kettledrum (nakare), Frame drum (davul), the Cymbals (zil), Oboes and Flutes, Zurna, the “Boru” (a kind of trumpet),Triangle (instrument), and the Cevgen (a kind of stick bearing small concealed bells). These military bands inspired many Western nations and especially the Orchestra inspiring the works of Wolfgang Amadeus Mozart and Ludwig van Beethoven.

Geometry (জ্যামিতি):

প্রখ্যাত খলীফা মু' তাদিদের আমলে কয়েকজন বিখ্যাত আরব পণ্ডিতের আবির্ভাব হয়।এ সময় জ্যামিতি চর্চার অগ্রগতি সাধিত হয় এবং জ্যামিতির কণিক শাখা সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ শুরু করে। বানী মূসা নামে পরিচিত তিন ভাই এ সময়ে সবিশেষ খ্যাতি অর্জন করেন। তারা কয়েকটি মূল্যবান গ্রন্থ রচনা করেন। সমতল ও স্ফেরিক্যাল সারফেস (গোলাকার ব্স্তর বহির্ভাগ) সম্পর্কে লিখিত তাদের একটি গ্রন্থ 'লিবার ট্রিয়াম ফ্র্যাটরাম' শিরোনামে ত্রিমোনার জিরার্ড কর্তৃক ল্যাটিন ভাষায় অনূদিত হয়। মেসোপটেমিয়ার হারােনর অধিবাসী 'সাবিত বিন কাররা ' - কে প্রায়ই সর্বশ্রেষ্ঠ আরব জ্যামিতিবিদ বলে মনে করা হয়।তিনি অ্যাপোলোনিয়াস এর কণিক শাখার আটটি গ্রন্থের মধ্যে সাতটির আরবী অনুবাদের মাধ্যমে বিজ্ঞানে বিরাট অবদান রাখেন। ১ আল নাইরেজী জ্যামিতির উপরে মৌলিক অবদানমূলক বহু প্রবন্ধ লিখেন এবং বিখ্যাত গ্রীক গনিতবিদ ইউক্লিডের ভাষ্য গ্রন্থ রচনায় তাঁর জ্ঞানের পরিচয় পাওয়া যায়। জিরার্ড এই গ্রন্থটিরও ল্যাটিন অনুবাদ করেন এবং ইউরোপের জ্যামিতি জগতে এই গ্রন্থটি ইউরোপের নব জাগরণে অসামান্য প্রভাব বিস্তার করে আবুল ওয়াফা ইউক্লিডের একটি ভাষ্য লিখেন জ্যামিতিতে নানা উপপাদ্য ও সম্পাদ্যের অভুতপূর্ব সমাধানে তাঁর অসামান্য প্রতিভার পরিচয়ের মধ্যে এটাও অতি বিস্ময়কর যে, তিনি কোথাও ভারতীয় সংখ্যা লিখন পদ্ধতি ব্যবহার করেননি।গ্রীক ভারতীয় অনুকরণের প্রভাবে এতকাল বিশুদ্ধ জ্যামিতিক আলোচনার অবসর মুসলিম বৈজ্ঞানিকদের হয়ে ওঠেনি।'বানী মূসা ' ভ্রাতৃত্রয় ও আবুল ওয়াফা- ই প্রথম বিশুদ্ধ জ্যামিতির গবেষণা সাধনায় অগ্রসর হন। এ সম্বন্ধে আবুল ওয়াফা একটি গ্রন্থ রচনা করেন। এ গ্রন্থে জ্যামিতির অত্যন্ত জটিল বিষয়গুলো অতি সহজতর করে প্রকাশের নবতম পন্থা উদ্ভাবন করা হয়েছে। আবদুল বাকী ইউক্লিডের দশম পুস্তকের একটি ভাষ্য রচনা করেন।এই ভাষ্যগ্রন্থটি শুধু জ্যামিতি অংকনের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না।সংখ্যা সমস্যা সম্বন্ধে আলোচনা করায় গ্রন্থটি সুধী সমাজে খুবই সমাদৃত হয় । জিরার্ড এটি ল্যাটিন ভাষায় অনুবাদ করেন। আরব বৈজ্ঞানিক গণ জ্যামিতিকে যেমন বীজগণিতের সমস্যা সমাধানে ব্যবহার করেন,তেমনি বীজগণিতে এমনকি শুদ্ধ গণিতকেও জ্যামিতিক সমস্যা সমাধানে ব্যবহার করেন। এখন বীজগণিত, গণিত এবং জ্যামিতির সামঞ্জস্য কাউকে বুঝিয়ে বলতে হয় না। একটি ছাড়া যে অপরটি চলতে পারে না তা সর্বজনবিদিত। আল খারিয্মী সমতল এবং বৃত্তীয় অঙ্কন সম্বন্ধে যে গ্রন্থ প্রণয়ন করেন, তা এখনও ইউরোপের কোন কোন লাইব্রেরীতে পাওয়া যায়। গ্রন্থটি পূর্বকালের জ্যামিতির জটিল প্রতিপাদ্যকে সহজবোধ্য করে তুলেছিল বলে বিজ্ঞানী 'বোসোর' মন্তব্যে উল্লেখ রয়েছে। তিনি বলেন,"ত্রিকোণমিতিক অঙ্কে বর্তমানে এই সরল এবং সহজ পন্থাটি উদ্ভাবন করার জন্য কার্যকর জ্যামিতি ও জ্যোতির্বিজ্ঞান আরবদের নিকট চিরকৃতজ্ঞ পাশে আবদ্ধ থাকবে "।
বিভিন্ন কর্পোরেশনের ম্যানেজারদের সম্মানে আয়োজিত এক সভায়, মিস কার্লেটন ফিওরিনা বিজ্ঞান এবং সভ্যতায় মুসলিমদের অবদান বিষয়ক একটি যুগান্তকারী, অসাধারণ, বক্তব্য প্রদান করেন। মিস ফিওরিনা একজন স্বনামধন্য ব্যবসায়ী, ইতিহাসবিদ। তিনি HP (হিওলেট-প্যাকার্ড) কর্পোরেশনের চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার। বিজ্ঞান ও সভ্যতায় ইসলামের অবদান সম্পর্কে জানুন এই অমুসলিমের মুখ থেকেই,

“এক সময় পৃথিবীতে এমন একটি সভ্যতা ছিল, যা ছিল সর্বশ্রেষ্ঠ। বিভিন্ন উপমহাদেশকে একত্রিতকরণের মাধ্যমে এটি এমন একটি সুপার ষ্টেট তৈরি করতে সমর্থ হয়, যার সীমানা বিস্তৃত ছিল এক মহাসাগর থেকে অন্য মহাসাগর পর্যন্ত, যার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল, মরুভুমি থেকে শুরু করে, নাতিশীতোষ্ণ এবং বিভিন্ন জলবায়ুর অঞ্চলসমুহ। বিভিন্ন বিশ্বাস এবং বৈচিত্র্যের লক্ষ লক্ষ মানুষ এই রাষ্ট্রের অধিবাসী ছিল। এর ভাষা হয়ে পড়েছিল সার্বজনীন, যা শত শত ভুখন্ডের মধ্যে রচনা করেছিল সেতুবন্ধন। এর সেনাবাহিনীতে বিভিন্ন জাতির সৈন্য সমাবেশ ঘটেছিল, এবং এই সেনাবাহিনী শান্তি এবং সুরক্ষায় এমন পারদর্শী ছিল, যা ইতিহাসে কখনও দেখা যায়নি। এই সভ্যতার বানিজ্যের প্রসার লাতিন আমেরিকা এবং চীনের মধ্যেকার সমস্ত অঞ্চলকেই পরিবেষ্টন করে ছিল। আর বাকি সবকিছুকেই ছাপিয়ে গেছে এই সভ্যতার আবিষ্কার। এর আর্কিটেক্টরা এমন দালান কাঠামো তৈরি করেছিল, যা অভিকর্ষের প্রভাব নিস্ক্রিয় করে দিত। এর গণিতবিদরা আবিষ্কার করেছিলেন আলজেব্রা আর এলগোরিদম, যা কম্পিউটার আবিষ্কারের দ্বার উন্মুক্ত করেছে, যার দরুন এনক্রিপশন (সাংকেতিক ভাষায় গোপন বার্তা পাঠানোর এক ধরণের পদ্ধতি ,যেমন দা ডা ভিঞ্চি কোড ছবিতে দেখানো হয়েছে) পদ্ধতিও আবিষ্কার করা সম্ভব হয়েছে। এর চিকিৎসকরা মানবদেহ পর্যবেক্ষণ করে নতুন নতুন প্রতিষেধক আবিষ্কার করেছিলেন। এর জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা মহাকাশের বিভিন্ন নক্ষত্রের নামকরণ করেছিলেন, মহাকাশ ভ্রমনের দ্বার উন্মুক্ত করেছিলেন। এর সাহিত্যিকরা রচনা করেছিলেন প্রেম, সাহসিকতা আর জাদু নিয়ে হাজারো উপাখ্যান। এর কবিরা লিখেছেন প্রেমের কবিতা, যখন অন্যান্য অঞ্চলের কবিরা এইসব বিষয় নিয়ে চিন্তারই সাহস পেতেন না। যখন অন্য জাতিগুলো বিভিন্ন চিন্তা, দর্শন এর চর্চা করতে ভয় পেত, তখন এই সভ্যতার মহানায়করা এগুলো সিঞ্চন করেছেন, বাঁচিয়ে রেখেছেন জ্ঞানকে। যখন পূর্ব জাতিসমুহের জ্ঞান আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছিল, অস্তিত্ব সংকটে পড়েছিল, তখন এই সভ্যতার ধারক বাহকরাই জ্ঞানকে রেখেছিল জীবিত, করেছিল সমৃদ্ধ এবং পৌঁছে দিয়েছে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে। আধুনিক পাশ্চাত্য সভ্যতায় আজ এই বিষয়গুলো আমাদের জানা, কিন্তু আমি যে সভ্যতার কথা বলছি, তা হল ৮ম শতাব্দী হতে ১৬শ শতাব্দীর ইসলামিক সভ্যতা, যা উসমানী খিলাফত, বাগদাদ (আব্বাসীয় খিলাফত), সিরিয়া (উমাইয়্যা খিলাফত), মিশরের মত অত্যাধুনিক শহর এবং সুলাইমান দ্য ম্যাগনিফিশেন্ট এর মত শাসকদের অধিকারে ছিল। যদিও আমরা অনেকেই ইসলামী সভ্যতার কাছে আমরা কতটুকু ঋণী সে ব্যপারে বিন্দুমাত্র ধারণা রাখিনা, তবুও আমাদের ঐতিহ্যের অনেকাংশই তাদের অবদান। আজকের প্রযুক্তি শিল্প কখনই গড়ে তোলা সম্ভব হত না যদি না আমরা এই আরব গণিতবিদদের পেতাম!


সায়ন

ইসলামি বিশ্বের সবচেয়ে সৃজনশীল বিজ্ঞানী জবির ইবন হাইয়ান রসায়নে এমন অনেক মৌলিক বিষয় উদ্ভাবনের অগ্রদূত ছিলেন, যেগুলো আজকের দিনেও রাসায়নিক গবেষণাগারগুলোতে ব্যবহৃত হয়। তিনি রাসায়নিক পরীক্ষা-নিরীক্ষায় অদ্যাবধি ব্যবহৃত পদ্ধতিগত নিয়মেরও প্রবর্তন করেন। পরস্পর মিশ্রিত বিভিন্ন তরলের স্ফূটনাঙ্ক ব্যবহার করে তাদেরকে আলাদা করার নিয়ম উদ্ভাবন ও প্রবর্তনের জন্যেও তিনি সুপরিচিত, যাকে ‘পাতন পদ্ধতি’ বলা হয়ে থাকে। জবির ইবন হাইয়ান তরলীকরণ, ছাঁকন, বাষ্পায়ন, বিশুদ্ধিকরণ, স্ফটিকীকরণ ও জারণ পদ্ধতিরও উদ্ভাবক। এ ছাড়া তিনি সালফিউরিক এসিড ও নাইট্রিক এসিড আবিষ্কার এবং বকযন্ত্র সৃষ্টি করেন।

ঝর্না কলম

৯৫৩ খ্রিস্টাব্দে মিশরের সুলতান এমন এক লেখনী দাবি করেন, যেটা থেকে কালি চুঁইয়ে পড়বে না বা কাপড়-চোপড়ে দাগ পড়বে না। সুলতানের এ দাবি পূরণের জন্যে ঝর্না কলম বা ফাউন্টেন পেন উদ্ভাবিত হয়। আধুনিক যুগের কলমের মতো এ-কলমের ভেতরেও কালি রাখার খোপ ছিল। মাধ্যাকর্ষণ ও কৈশিক আকর্ষণ মিলে এ-কালিকে কলমের নিবের ডগায় নিয়ে আসতো, যার ফলে লেখা সম্ভব হতো।

গণিত

৮২৫ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ আল-খোয়ারিজিমি ও আল-কিন্দি নামে দুজন প্রখ্যাত গণিতবিদ ছিলেন। তারা ছিলেন আরবীয় সংখ্যা পদ্ধতি উদ্ভাবকদের মধ্যে শীর্ষস্থানীয়, যে-পদ্ধতি পরে বিশ্বব্যাপী ব্যবহৃত হতে থাকে। তাদের ও অন্যান্য আরবীয় গণিতবিদদের কাজ ইউরোপে প্রতিষ্ঠিত করেন ইতালীয় গণিতবিদ লিওনার্দো ফিবোনাচ্চি। আল-খোয়ারিজিমি ও আল-কিন্দি’র কাজের উপর নির্ভর করে আলগরিদম, ত্রিকোণোমিতি প্রভৃতি গণিত শাস্ত্রের বহু তত্ত্ব ও পদ্ধতি বিজ্ঞান উদ্ভাবিত হয়েছে। আল-খোয়ারিজিমি’র বই ‘আল-জেব্রা আল-মোকাবিলাহ্’র থেকে বীজগণিতের ইংরেজি নাম ‘অ্যালজেব্রা’ শব্দটি এসেছে। আল-কিন্দি সাংকেতিক লিপির পাঠোদ্ধার, সংখ্যা ছক, কম্পাংক বিশ্লেষণ প্রভৃতির গাণিতিক পদ্ধতি আবিষ্কার করেন, যার উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন প্রাচীন সভ্যতার রেখে যাওয়া লিখন বা লিপির পাঠোদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

ছাপাখানা/মুদ্রণালয়

১৯৫৪ সালে গুটেনবার্গ মধ্যযুগের সবচেয়ে আধুনিক মুদ্রণ যন্ত্র তৈরি করেন। তবে এর ১০০ বছর আগে থেকে ইসলামি স্পেনে তামা, পিতল ও দস্তার সংকর ধাতুর তৈরি ও স্থানান্তরযোগ্য হরফ চালু ছিল, এবং এখানেই ইউরোপের প্রথম মুদ্রণ যন্ত্র তৈরি ও প্রতিষ্ঠিত হয়।
হাওয়া কল নদী বা অন্যান্য জলধারা থেকে ফসলের ক্ষেতে জলসেচন তথা শস্য মাড়াইয়ের জন্যে হাওয়া কল তৈরি করা হয়। ইউরোপে হাওয়া কলের ব্যবহার সূচিত হওয়ার প্রায় ৫০০ বছর আগে একজন পারসিক (ইরানি) খলিফার জন্যে বিশ্বের প্রথম হাওয়া কলটি তৈরি করা হয়।

সাবান

সাবান তৈরির উপকরণ তালিকা মুসলমানরা উন্নততর করেছিল, এবং সেটাই মোটামুটিভাবে আজও অনুসরণ করা হয়। নামাজের আগে ওজু এবং গোসল মুসলমানদের জন্যে খুব গুরুত্বপূর্ণ, এবং তাই তাদের এর সহায়ক কিছু-একটা উদ্ভাবন করাটা খুব জরুরি হয়ে পড়েছিল। প্রাচীন মিশরীয় ও রোমানদেরও সাবানের মতো একটা জিনিস ছিল, কিন্তু তারা এটাকে মূলত পমেড বা সুগন্ধি প্রলেপ হিসেবেই ব্যবহার করত। আরবরা সোডিয়াম হাইড্রোঅক্সাইডের ভিত্তি দেয়া একরকমের উদ্ভিজ্জ তেল উদ্ভাবন করে, যার সাথে তারা সুগন্ধি তেল মিশিয়ে সাবান তৈরি করে। যুদ্ধের জন্যে আরব অভিযানে আসা ইউরোপীয় ক্রুসেডারদের একটা বদনাম হয়ে গিয়েছিল ‘বোঁটকা গন্ধওয়ালা হামলাকারী’ হিসেবে, কারণ তারা নিয়মিত স্নান করত না। ১৭৫৯-এ একজন মুসলিম ব্যবসায়ী ব্রাইটন সৈকতে মেহোমেদ’স ইন্ডিয়ান ভ্যাপার বাথ (মোহাম্মদের ভারতীয় বাষ্পস্নান) নামে একটা দোকান খোলার মধ্যে দিয়ে ইংল্যান্ডে প্রথম শ্যাম্পু চালু করেন।

মুসলিম বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদদের বহু আবিষ্কার ও বৈজ্ঞানীক তত্ত্ব ইউরোপীয়রা সচেতনভাবে নিজেদের নামে চালিয়ে দিয়েছিল। অনেকটা গোয়েবলসীয় কায়দায় দশবার মিথ্যা বলে তাকে সত্য বানাবার প্রচেষ্টায় তারা খানিকটা সফলতাও অর্জন করেছে বলতে হবে। একারনেই তাদের লোভ বেড়ে যায় এবং তাদের উদ্দেশ্য হাসিল করার জন্য তারা এতটাই তৎপর ছিল যে, পুরো মুসলিম জাতির কাছেই এখন তাঁদের অতীত গৌরব ধোঁয়াশাচ্ছন্ন হয়ে গেছে বলা যায়। এটা তাদেরই কৃতিত্ব। মুসলিম দেশের মুসলিম ছাত্ররাও আজ জানতে পারে না বিজ্ঞান বিষয়ে তারা যে থিওরী পশ্চিমাদের আবিষ্কার বলে মুখস্থ করছে তার কোন কোনটি তাদের পূর্বপুরুষ কোন মুসলিম বিজ্ঞানীরই আবিষ্কার। এমনকি কালজয়ী বহু মুসলিম বিজ্ঞনীর নামও তারা কিম্ভূতকিমাকার করে ছেড়েছে, যাতে তাঁর জাতি-পরিচয় চেনা না যায়।


মুসলিম বিজ্ঞানীদের নাম ও আবিষ্কার বেনামী করণের য়ে সকল নমুনা দৃষ্টিগোচর হয়েছে তার কয়েকটি নিম্ন রুপ:

আল বাত্তানী – (রেথেন), ইউসুফ আল ঘুরী _ (জোসেফ টি প্রিজড), রাজী – (রাজম),

আল খাসিব – (বুবাথের), কায়বিসি – (ক্যাবিটিয়াস), খারেজমি – (আল গরিদম),

ইবনে সিনা – (এভিসিনা), ইবনুল হাইছাম – (হ্যাজেন), যারকালী – (মারজাকেল),

ইবনে বাজ্জা –(এভেনপেজ), বিতরূজী – (পিট্টাজিয়ান), ইবনে রুশদ – (এভেরুন)।

এই ন্যাক্কারজনক কাজ যে ভাষার পরিবর্তন ও অগোচরে ঘটে গেছে তা মনে কারার কোন মানেই হয় না। অতি সচেতনভাবেই, ইতিহাস বিকৃত ও আত্নস্থ করার এই প্রকল্প কয়েকশত বছর আগে পাশ্চাত্যের এক শ্রেণীর কু-মতলবীরা গ্রহণ করে। নইলে পাশ্চাত্য সভ্যতা গ্রীক ও রোমন সভ্যতা থেকে লাপ দিয়ে এসেছে এমন উদ্ভট কথা তারা বলতো না।এখানে বলে রাখা ভাল পাশ্চাত্যেরই সত্য-সন্ধানী অনেক ঐতিহাসিক, বিজ্ঞান বিষয়ক ইতিহাসের গবেষক প্রমান করেছেন যে আরবরাই পাশ্চাত্য সভ্যতার আসল জনক। এ রকম কয়েকজন গবেষক হলেন : Gorge Sarton, Sir T. Arnold, R. A. Nicholson, Hitti Draper, Gibb, Joseph Hell, Levy, Macdonald, Pickthal, Richmond, Breiffault, E. Deutsch, Sedillot, Max-Neuburger, Renan, Lane Poole, Roger Bacon, Humbold প্রমূখ।

N. B. : This Article has written, counting researchers responsibility and accountability, for publishing truth.

Reference (তথ্য সুত্র):

1. George Saliba (1994), A History of Arabic Astronomy: Planetary Theories During the Golden Age of Islam, pp. 245, 250, 256–7. New York University Press, ISBN 0-8147-8023-7

2. Lost History: The Enduring Legacy of Muslim Scientists, Thinkers, and Artists Paperback – June 17, 2008-- by Michael H. Morgan (Author)

3. Lost Islamic History: Reclaiming Muslim Civilisation from the Past 1st Edition-- by Firas Alkhateeb (Author)

4. Hadith: Muhammad’s Legacy in the Medieval and Modern World by Jonathan A.C. Brown

5. গোলাম আহমদ মোর্তজার 'চেপে রাখা ইতিহাস

6. মোশারফ হোসেন পাটোয়ারীর 'জ্ঞান বিজ্ঞানে মুসলিমদের অবদান

7. The Bible, The Quran And Science by ডঃ মরিস বুকাইল

To Be Continued…………
সর্বশেষ এডিট : ১১ ই জুলাই, ২০১৮ রাত ৮:০৪
৪টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

পরম শ্রদ্ধায় ও স্মরণে ড. সলিম আলি !

লিখেছেন নেক্সাস, ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:১৪

ছোটবেলা থেকে আমি পাখি প্রেমিক। তখন অবুঝ মনের এই পাখি প্রেম ছিল অনেকটাই পাখির প্রতি অমানবিক এবং ক্ষতিকর। কারণ তখন আমরা গ্রামের দস্যি ছেলেরা মিলে পাখির বাসা খুঁজতাম, পাখির বাচ্চা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার মাদ্রাসা জীবন-০৪

লিখেছেন হাবিব স্যার, ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৬:৩৬



আমার মাদ্রাসা জীবন-০৩

ষষ্ঠ থেকে সপ্তম শ্রেণিতে উঠলাম। ক্লাসের মধ্যে প্রথম হওয়া কেউ ঠেকাতে পারলো না। শুধু নিজের ক্লাশ নয়, পুরো প্রতিষ্ঠানের সম্মিলিত মেধা তালিকাতেও প্রথম হওয়ার সুবাদে সবার... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগার চাদগাজী ,আপনি ভাল আছেন নিশ্চই ?

লিখেছেন নতুন বাঙ্গাল, ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:৪৮



আমি চাদগাজী সাহেবকে চিনি বিগত ৭ বছরের বেশি সময় ধরে। পরিচয়টা 'আমার ব্লগে' যেখানে উনি 'ফারমার' নিকে লিখতেন। আমি উনার লিখা নিয়মিত পরতাম কারন উনার চিন্তাধারায় একটা ভিন্নতা... ...বাকিটুকু পড়ুন

পিয়াজ কথন

লিখেছেন জুন, ১৪ ই নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ১:১৫

.

একটু আগে কর্তা মশাই বাজার থেকে ফোন করলো "শোনো পিয়াজের কেজি দুইশ টাকা, দেশী পিয়াজ আধা কেজি আনবো কি"?
'না না না কোন দরকার নাই বাসায় এখনো বড় বড়... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঝলমলে সোভিয়েত শৈশব: বিপদ তারণ পাঁচন

লিখেছেন স্বপ্নবাজ সৌরভ, ১৪ ই নভেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:০৪



শুভ অপরাহ্ন। এই দুপুরে ঘুমঘুম চোখে খুব সহজেই কিন্তু শৈশবে ফিরে যাওয়া যায়। আমার দিব্যি মনে আছে দুপুরের খাওয়ার পর রাশিয়ান বই পড়তে পড়তেই ঘুমিয়ে যেতাম... ...বাকিটুকু পড়ুন

×