somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাবনিক- পর্ব ৬

২৬ শে মে, ২০২১ রাত ৮:৩৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আগের পর্বঃ Click This Link
রেনেতার পরিবার খাটি উক্রাইনান। ভাষাগত সামান্য পার্থক্য থাকলেও ভাব বিনিময়ে রুশদের সাথে কোন সমস্যই হয়না। উক্রাইনান মেয়েদের রুপের খ্যাতি বিশ্বজোড়া। এদের নীল চোখ আর কালো চুল বিশ্বে বিরল! আর চেহারায় রুশীয় কমনীয়তা এদেরকে আশ্চর্য মোহনীয় করেছে। রেনেতার এই ছোট্ট বোনটার নাম তাতিয়ানা যাকে ওরা ভালবেসে আদর করে তাতিয়া বলে ডাকে। ওর চেহারায় উক্রাইনান সব সৌন্দর্য এক হয়ে মিশেছে। প্রথম দেখায় যে কারো প্রিয়ভাজন হবে নিশ্চিত!
রেনেতার বাবা-মায়ের ঘর থেকে বেরিয়ে যখন বড় করে স্বস্তির নিঃশ্বাস নিতে যাচ্ছি থিক তখুনি এসে তাতিয়া আমার হাত ধরল।
বলল ,-চল আমাদের রুমে যাই।
মাঝারি মানের ছিমছাম একটা রুম চারিদিকের বাচ্চাদের কার্টুনের দেইয়াল কাগজ সাঁটানো। দুটো খাট আর একপাশে বই-এর শেলফ আর পড়ার টেবিল। রুমের সবকিছু ছাপিয়ে আমার দৃষ্টি আটকে গেল দেয়ালের এককোণে ঝুলিয়ে রাখা একটা ক্যালেন্ডারের দিকে। দু’বছরের বাসি ক্যালেন্ডার কিন্তু এখনো সেটা সযতনে ঝুলছে!
ক্যালেন্ডার জুড়ে সুনিপুণ হাতে একটা মুখায়বের স্কেচ! স্কেচের মানুষটাকে আমি ভালভাবেই চিনি- অভিনেতা মিঠুনের। সমগ্র রুশ ভুমি জুড়ে বাঙ্গালী ও ভারতীয়দের একটু বিশেষ খাতিরের কারন ছিল ভারতীয় সিনেমা।

কটা খাটে নাতাশা আর তাতিয়া ঘুমায় আর আরেকটাতে বড় বোন রেনেতা। তাতিয়া আমাকে নিয়ে তাঁর বিছানাতেই বসিয়ে আমার কোল ঘেঁষে বসল। ছ’সাত বছরের সেই মেয়েটার কত প্রশ্ন! ঘাড় ঘুরিয়ে বার বার আমাকে দেখে আর মনে মনে ভাবে হয়তো এটা মানুষ না এলিয়েন!
মেঝ বোনটা- যার নাম নাতাশা সে আমাকে দেখে কৌতুহলী হলেও দূরে দূরে রইল।এর বয়স তখন সবে ন’দশ।
রেনেতার একমাত্র ভাই এর সাথে সেদিন আর পরিচয় হলনা। সে নাকি বেশীরভাগ সময় খালার বাড়িতে থাকে। কালে-ভদ্রে নিজের বাড়িতে ফেরে। খালা নিঃসন্তান হওয়ায় সেই ছেলেকে নিজের সন্তানের মতই লালন পালন করে।
সমগ্র রুশ ভুমি জুড়ে( উক্রাইন ও এর ব্যাত্যয় নয়) তখন অভাবের শুরু-শুরু চাকচিক্যময় জীবনের চাহিদার। নিকট অতীতে তাদের ঘাটতি ছিল কিন্তু অভাব ছিলনা কিংবা অভাবের ধারনাটাই ছিলনা।
এতগুলো সন্তান নিয়ে একটু সমস্যায় হয়তো পড়ে গিয়েছিল রেনেতার অভিভাবকেরা। তাই একমাত্র ছেলেটার দায়িত্ব আরেকজনের ঘাড়ে দিয়ে খানিকটা দায় মুক্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলেন তারা হয়তো।
ছেলে কিংবা মেয়ে কোনদিনও তেমন করে আলাদা মুল্যায়ন করেনি তারা।
রেনেরতার দৈহিক গুন বেশ দশাসই। লম্বায় আমাকে ছাড়িয়ে গেছে- প্রায় পাঁচ ফিট নয়! তবে প্রথম দেখায় মনের আন্দাজ করা কঠিন। কথা বললে বোঝা যায় কত সহজ-সরল। সারাক্ষন মুখ ফুলিয়ে হাসে- কখনো গোমড়া মুখে দেখিনি তাকে। বেশ হৃষ্টপুষ্ট তুলতুলে একটা শরির ওর। দেহের সাথে লেপ্টে নিলে মনে হয় মাখনের মত গলে যাবে।
সেদিন থেকে ও বাসায় আমার অবাধ যাতায়াতের শুরু। দু’দিনে নাতাশাও আমার ভক্ত হয়ে গেল। সেও এখন পাশে বসে চোখ বড় বড় করে আমার গল শোনে।
ওদের বাসায় সাকুল্যে তিনখানা বেডরুম আর একটা বেশ বড়সড় করিডোর। ওদের বাসার সবচেয়ে বড় রুমটাতে যেটাকে হলরুম বলে ভ্রম হয় সেখানে কালে-ভদ্রে আত্মীয় পরিজন বা ছোট ভাই এলে থাকে। না হলে খালি পরেই থাকে। রাশিয়ার বিভিন্ন প্রান্তে সৌম্যের ঘুরে বেড়ানোর সৌভাগ্য হয়েছে কিন্তু কখনো কারো বাসাতেই এত বড় রুম দেখেনি।
ওর মায়ের অভিপ্রায় এ রুমখানা সাবলেট হিসেবে দিবে। ওডেসা, কিষিনেও আর রাশীয়ার কিছু শহরে তখন প্রচুর পর্যটন নামধারী আদমদের পদচারনায় মুখর। গুচ্ছ গুচ্ছ আদমদের জন্য ব্যাপারিরা সাবলেটে বড় রুম খুঁজে হয়রান! সাবলেট ভাড়া দিয়ে তখন অনেকের সাময়িকভাবে কপাল খুলেছে।
রেনেতার মায়েরও ইচ্ছে বড় রুমটা সাবলেট দিয়ে অতিরিক্ত দু’পয়সা কামিয়ে সংসারে স্বচ্ছলতা ফেরানোর। সৌম্যকে অনিচ্ছা সত্বেও তাই একতুখানি পাত্তা দিচ্ছেন তিনি। তবে সৌম্য বা আমি পারতপক্ষে তাঁর মুখোমুখি হই না। মহিলার চাহনী দেখেই পিলে চমকে যায়।
বি এলেমদার লোক! দু’দিন না যেতেই আরেকখানা জুটিয়ে ফেলল।
এর মধ্যে অতি সুন্দরী না হলেও কড়া সেক্সি টাইপের নতুন একটাকে হাত করে ফেলেছে। মেয়েটা এখানথেকে দু ব্লক দূরে থাকে। তাকে নিয়ে সে এখন নিরন্তর ব্যাস্ত! কানে কানে খবর পেলাম ওই( তার বান্ধবীর) বাসার এক রুমে নাকি সে সাব্লেট নিয়েছে। কোনদিন আমাদের ডেরায় ফেরে কোনদিন ফেরে না। অহর্নিশি চোখে মুখে তাঁর দারুন ফুর্তি তখন।
এ মেয়ে নাকি চরম শৈল্পিক রুচির আর মোহনীয় দেহসৌষ্ঠবের অধিকারী। ওর একটা ভাল গুণ যে, যখন যার দেহে মজে তখন এমন বিশ্বসেরা হয়। দেখি এবারের সেরাটা কদিন টেকে?

শুরুতে ঘুরে আসুনঃ Click This Link

সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে মে, ২০২১ রাত ৮:৩৮
১১টি মন্তব্য ১১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ফের 'রসগোল্লা'

লিখেছেন শেরজা তপন, ১৫ ই জুন, ২০২১ রাত ৮:৪৮


মুজতবা আলী সাহেবের ‘রসগোল্লা’ গল্প পড়ে রসগোল্লার রস আস্বাদন করেননি এমন বাঙ্গালী সাহিত্যপ্রেমী খুঁজে পাওয়া দুস্কর!
কোত্থেকে যেন জেনেছিলাম রসগোল্লার উদ্ভাবক কলকাতার এক ময়রা আর সেটা উদ্ভাবিত হয়েছিল এই বিংশ... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভালোবাসলে ভালোবাসা' ই ফিরে আসে ! ( বাদল দিনের চিঠি )

লিখেছেন মনিরা সুলতানা, ১৫ ই জুন, ২০২১ রাত ১১:৩২


ভালোবাসলে ভালোবাসাই ফিরে আসে ঠিক!

তুমিময় একটা শহর! ক্যাম্পাসের শীত গ্রীষ্ম, নিউ মার্কেটের বই স্টেশনারি, গাউছিয়া চাঁদনি চকের টিপ চুড়ি, ধানমন্ডি ছুঁয়ে সংসদের রাস্তায় তারুণ্যের উত্তালদিন। বয়সের সিড়ি... ...বাকিটুকু পড়ুন

ফুল নেবে গো..................( গোলাপ রহস্য)

লিখেছেন আহমেদ জী এস, ১৫ ই জুন, ২০২১ রাত ১১:৪৭



বিশ্ব জুড়ে জুন মাসটিকে বলা হয় গোলাপের মাস। এই জুনকে স্মরণে লেখাটি উৎসর্গিত।


ফুল ভালোবাসেন না এমন মানুষ সম্ভবত নেই । ফুলের জন্যে ভালোবাসা কেমন হবে, কবি... ...বাকিটুকু পড়ুন

আরিশের প্রথম জন্মদিন

লিখেছেন হাবিব স্যার, ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:০৮



আমার ছেলে আরিশ রহমান।
আরিশ রহমান ছাড়াও ওর আরো একটা নাম রয়েছে। আসওয়াদ। নামটি রেখেছেন আরিশের নানু। আসওয়াদ নামে ডাকলে সাড়া দেয় বেশি। ছেলে আমার হাঁটতে শিখেছে প্রায় এক... ...বাকিটুকু পড়ুন

পরীমনিকে যারা “মক্কার খেজুর” মনে করেন, ছবি এবং কথাগুলো তাদের জন্য।

লিখেছেন আসিফ শাহনেওয়াজ তুষার, ১৬ ই জুন, ২০২১ রাত ১২:৩৬


মাস দেড়েক আগে রোজার ভেতর সারাদেশে যখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউটা আসলো, তখন পরীমনি দুবাই গিয়েছিলো অবকাশ যাপন করতে । সোশ্যাল মিডিয়ায় সে তখন এমন কিছু আয়েশী জীবনের ছবি... ...বাকিটুকু পড়ুন

×