somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

শের শায়রী
অমরত্বের লোভ কখনো আমাকে পায়না। মানব জীবনের নশ্বরতা নিয়েই আমার সুখ। লিখি নিজের জানার আনন্দে, তাতে কেউ যদি পড়ে সেটা অনেক বড় পাওয়া। কৃতজ্ঞতা জানানো ছাড়া আর কিছুই নেই।

কিং সলোমন টেম্পল

২৭ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:৩৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


Plan of Solomon's Temple with measurements

হিব্রু বাইবেল অনুযায়ী রাজা ডেভিড (মুসলমানদের কাছে যিনি হযরত দাউদ (অঃ) নামে পরিচিত) ছিলেন প্রথম ব্যাক্তি যিনি অনুসারীদের জন্য অস্থায়ী উপাসনালয় বদলে স্থায়ী উপাসনার চিন্তা করছিলেন, যার কারনে তিনি মোরিয়াহ পাহাড় কিনে নেন, পূর্বে যার নাম ছিল মাউন্ট জিয়ন। যদিও রাজা ডেভিডের মন্দির নির্মানের নকশা এবং প্রয়োজনীয় উপকরন ছিল কিন্তু ঐশী অনুমতি ছিল না উপাসনালয় নির্মানের। সে দায়িত্ব ছিল রাজা তার পুত্র রাজা সলোমন (মুসলমানদের কাছে যিনি হযরত সুলাইমান (অঃ) নামে পরিচিত) ওপর।


Models and maps. Model of Solomon's Temple and environs, (by Dr. Schick)

কিং সলোমনের রাজত্বের চতুর্থ বছর ১০১২ খ্রীষ্টপূর্বে তিনি এই এই উপাসনালয়ের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন, টয়ারের রাজা হিরামের সাহায্যে সাত বছর পর ১০০৪ খ্রীষ্টপূর্বে তিনি এই কাজ শেষ করেন। হিব্রু সময় অনুযায়ী এটা ৩০০০ বিশ্ব অব্দ। সলোমনের অনুরোধে টায়ারের রাজা হিরাম শুধু কাঠের গুড়িই না তার অঞ্চলের প্রধান স্থপতি এবং নকশাবিদ হিরাম আবিফ কে পাঠান। টায়ার ছিল আধুনা ফিনিশীয় অঞ্চলের অন্তর্গত।

উক্ত উপাসনালয় তৈরী করতে বিপুল সংখ্যক শ্রমিক প্রয়োজন হওয়ায় রাজা সলোমন শ্রমিকদের মধ্য থেকেই যারা সৎ, দক্ষ, ধার্মিক তাদের তদারকির কাজ দেন। উপাসনালয় তৈরী হবার পর এর সব থেকে পবিত্র স্থানে আর্ক অভ দ্য কভেন্যান্ট স্থাপন করেন কিং সলোমন। ইহুদীদের এই উপাসনালয় কে বলা হত যিহোভার (ঈশ্বর) ঘর। বলা হত এটাই সর্ব শক্তিমানের আবাস। প্রাচীন পৃথিবীর অন্যতম সুন্দর এক স্থাপত্য ছিল এই উপাসনালয়। এর চারপাশে ছিল প্রশস্ত আঙ্গিনা। যার পরিধি ছিল আধা মাইলের বেশী। একে ঘিরে রেখেছিল এই সুউচ্চ দেয়াল যার সর্বনিম স্থানও ৪৫০ ফিটের মত উচু।

এর দৈর্ঘ্য ছিল ৯০ ফিট এবং বারান্দা সহ একশ পাচ ফিট। প্রশস্ত ৩০ ফিট। এর বাইরের প্রাঙ্গন অসংখ্য ছোট বড় বারান্দা, ভেতরে বাইরের কারুকাজ এক দিয়েছিল এক অনন্য মাত্রা যার কারনে শেবার রানী এটিকে দেখে বলছিলেন নিশ্চয়ই এটি কোন সুদক্ষ কারিগরির হাতে তৈরী।


The First Temple: Crowning Achievement of King Solomon and Home of the Legendary Ark of the Covenant

ইসরাইলের বারোটি গোত্রই এই নির্মান কাজে অংশ নিয়েছিল। এটি নির্মানে বর্তমানের হিসাবে প্রায় সাড়ে চার হাজার মিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছিল। এবং সাত বছর ধরে প্রায় ১৮৪৬০০ মানুষ নিয়োজিত ছিল। কাজ শেষ হবার পর সাত দিন উপবাস করে সলোমন এখানে প্রথমবারের মত উপাসনা করেন। এই সময় বিশ হাজার ষাড়, এক লাখ বিশ হাজার ভেড়া উৎসর্গ করা হয়। যা গ্রহন করতে আকাশ থেকে নেমে আসে স্বর্গীয় আগুন।

খ্রীষ্ট পূর্ব ৫৮৭ সালে ব্যাবেলনীয়ার রাজা নেবুচাদনেজার এই মন্দির ধ্বংস করে দেয়, এবং হারিয়ে যায় আর্ক অভ কভেন্যান্ট। মুল প্রাঙ্গন থেকে বারো ধাপ ওপরে উঠলে ছিল মুল মন্দির। যেটি তিনটি ধাপে বিভক্ত বারান্দা, আশ্রম এবং সব থেকে পবিত্র স্থান “ Holy of the holies” যেখানে এই আর্ক অভ কভেন্যান্ট রাখা হয়েছিল। সে সময় কাসা ছিল সব থেকে মূল্যবান ধাতু। মুল মন্দিরে ঢোকার দরজা ছিল সম্পূর্ন কাসার এর ঠিক নীচেই বারান্দার ঠিক বাইরেই ছিল ২৭ ফিট উচু কাসা নির্মিত দুটো খুটি এদুটোর নাম ছিল “জাকিন” এবং “বোয়াজ”। ধারনা করা এই খুটি দুটো নির্মানের সময় সলোমন আগুন আর মেঘের সেই খুটির কথা মনে রেখেছিলেন যেটি দেশত্যাগের সময় বুনো অঞ্চল পার হবার সময় ইজ্রাইলীদের সামনে থাকত।


Solomon and the plan for the First Temple , illustration from a Bible card published by the Providence Lithograph Co

বারান্দা থেকে একটি সরু পথের মাঝ দিয়ে আশ্রমে প্রবেশ করা যেত। এখানে দরজার পরিবর্তে থাকত নানা রঙয়ের একটি পর্দা, যেটি মুলতঃ মহাবিশ্বের প্রতীক হিসাবে কাজ করত। সব থেকে পবিত্র স্থান ছিল একদম আশ্রমের কেন্দ্রে যা একটা জলপাই কাঠে প্রস্তত দরজা দ্বারা আলাদা করা হয়েছে। এই পবিত্র স্থানে কেবল মাত্র প্রধান পুরোহিত ঢুকতে পারত তাও বছরের একটা নির্দিষ্ট দিনে যাকে তারা বলতঃ “প্রায়শ্চিত্ত স্বীকারের দিন”।

জোসেফাস বলছেন, “কেউ যদি প্রাচীরের ওপর থেকে নীচের দিকে তাকাত তবে তার মাথা ঘুরে উঠত, কারন এর নীচ পর্যন্ত দৃষ্টি চলত না।” এটিকে অবশ্য বাড়িয়ে বলা বলে মনে করা হত যতদিন না আধুনিক পর্যবেক্ষক দলের মাধ্যমে কথাটির সত্যতা প্রমানিত না হত। মোরিয়ার ঢাল বেয়ে গড়ে উঠেছে বিশালাকার সব বিল্ডিং তাদের চাপে উপাত্যাকা প্রায় সমান হয়ে গিয়েছিল। সলোমনের মন্দির বলে যে জায়গাটিকে সনাক্ত করা হয়েছে বাস্তবে দেখা গেল তার সত্তর থেকে নব্বই ফিটে এর অবস্থান।


In the middle of ancient Jerusalem stands the famous temple of Solomon. Library of Congress's Prints and Photographs division

কোদাল আর শাবল নিয়ে লেগে গেল ব্রিটিশ অভিযাত্রী দল সঠিক ভিত্তির সন্ধানে। বিশাল খুটিগুলো সামনে পড়লে এড়িয়ে যাওয়া হত অথবা নিয়ন্ত্রিত বিস্ফোরনের মাধ্যমে পথ করে নেয়া হত। দগ্ধ জেরুজালেমের ছাই আর মাটির নীচ থেকে বের হতে থাকল ইহুদী অহংকারের সব প্রতীক। এখান থেকে উদ্ধার করা হয় প্রাচীন হিব্রু ভাষায় লেখা “হাজ্জাই” এর সীলমোহর। ফিনিশীয় স্থাপতিদের প্রথম স্থাপন করা পাথরের ভিত্তিতে পৌছে যায় অভিযাত্রীরা যার নীচেই ছিল প্রাকৃতিক পাথরের ভিত্তি।


Gigantic footprints belonging to the resident deity were carved at the temple’s entrance. Photo: A.M. Appa.

পুরা মোরিয়া পাহাড় পর্বতে রয়েছে অসংখ্য গুহা। এর একটি গুহার নাম “গ্রেট সী” যেখানে প্রায় দশ মিলিয়ন গ্যালন পানি ধরত। ওফেলের দেয়াল পাওয়া গেছে যেটি পাওয়ার সময়ই ছিল সত্তর ফিট উচু, এছাড়া অন্যান্য বাড়ী ঘর পাওয়া গেছে যেগুলো জুডাহদের রাজাদের সময় তৈরী। বর্তমানে সলোমনের মন্দিরের জায়গায় আছে দুটো তুর্কি নির্মিত মসজিদ। ৯৭৫ খ্রীষ্টপূর্বে রাজা সলোমন মারা যায়। তার সময় তার রাজ্য এতই সম্পদশালী হয়ে উঠছিলো যে রূপা হয়েগিল মূল্যহীন।

আজকে কিং সলোমন টেম্পলের এতটুকু বর্ননাই দেব ভালো লাগলে এর সাথে সম্পর্কীয় অন্যান্য বিষয় বস্ত আনব।

কেন জানি আজকে বাংলা ব্লগের মুকুটহীন সম্রাট প্রায়াত ইমন যুবায়ের ভাইকে মনে পড়ছে লেখাটা তাকে উৎসর্গ করে। এই ধরনের লেখা উনি খুব পছন্দ করতেন।।

কেউ চাইলে এই রিলেটেড কিং সলোমন ও শেবার রানী বিলকিস লেখাটি পড়ে দেখতে পারেন। অনেক আগে লিখছিলাম।।

হযরত সোলায়মান (অঃ) মুসলমানদেরও নবী ছিলেন, পবিত্র কোরানের আলোকে হযরত সোলায়মান (অঃ) এর জীবনীঃ লেখাটা পড়লে ইসলামের দৃষ্টিতে তাকে বুজতে পারবেন।


সূত্রঃ Solomon's Temple

The First Temple: Crowning Achievement of King Solomon and Home of the Legendary Ark of the Covenant

Searching for the Temple of King Solomon

The origin of freemasonry and Knights templar

সর্বশেষ এডিট : ৩০ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪৪
১৮টি মন্তব্য ১৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

চিলেকোঠার প্রেম- ১৩

লিখেছেন কবিতা পড়ার প্রহর, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:২৫


দিন দিন শুভ্র যেন পরম নিশ্চিন্ত হয়ে পড়ছে। পরীক্ষা শেষ। পড়ালেখাও নেই, চাকুরীও নেই আর চাকুরীর জন্য তাড়াও নেই তার মাঝে। যদি বলি শুভ্র কি করবে এবার? সে বলে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নগ্ন দেহের অপূর্ব সৌন্দর্যতা বুঝেন না! বলাৎকার বুঝেন?

লিখেছেন মুজিব রহমান, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৮:৩৫


শৈল্পিক প্রকাশের সর্বোচ্চ রূপ হিসেবে বিবেচনা করা হয় নগ্নতাকে৷ ইউরোপে অন্ধকার যুগ কাটিয়ে রেনেসাঁ নিয়ে এসেছিল আধুনিক ও সভ্য ইউরোপ৷ রেনেসাঁ যুগের শিল্পীরা দেদারছেই এঁকেছেন শৈল্পিক নগ্ন ছবি৷... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমাদের নবীকে ব্যঙ্গ করার সঠিক শাস্তি সে ফরাসি শিক্ষক কি পেয়েছে?

লিখেছেন নূর আলম হিরণ, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৯:৫৩



গত কয়েকদিন আগে ফ্রান্সে কি হয়েছিল? একজন শিক্ষক ক্লাসে আমাদের নবীর ব্যঙ্গচিত্র দেখিয়েছিলেন, বলা হয়েছিল তার উদ্দেশ্যে ছিল বাকস্বাধীনতা ও ব্যক্তিস্বাধীনতার বিষয়ে বুঝানো। এটার পর এক মুসলিম যুবক তার ধর্মীয়... ...বাকিটুকু পড়ুন

কবি ও পাঠক

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ১১:৩১

কবিদের কাজ কবিরা করেন
কবিতা লেখেন তাই
ভেতরে হয়ত মানিক রতন
কিবা ধুলোবালিছাই

জহু্রি চেনেন জহর, তেমনি
সোনার পাঠক হলে
ধুলোবালিছাই ছড়ানো পথেও
মাটি ফুঁড়ে সোনা ফলে।

৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

***

স্বরচিত কবিতাটির ছন্দ-বিশ্লেষণ

শুরুতেই সংক্ষেপে ছন্দের প্রকারভেদ জেনে নিই। ছন্দ... ...বাকিটুকু পড়ুন

হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর প্রিয় খাবার সমূহ

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৮ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৩:৩৪



আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)।
প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) যেসব খাবার গ্রহণ করেছেন, তা ছিল সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যসম্মত ও পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ। নবীজি (সা.) মোরগ, লাউ, জলপাই, সামুদ্রিক মাছ,... ...বাকিটুকু পড়ুন

×