somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অমর একুশ : আমাদের ইতিহাস

২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ রাত ১:০১
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



ভাষা শহীদদের প্রতি প্রথম প্রহরের শ্রদ্ধান্জলি :


ইতিহাসের পাতা থেকে ...........

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস প্রতি বছর ২১শে ফেব্রুয়ারি পালিত হয়। দিবসটি উদযাপনের মূল উদ্দেশ্য বিশ্বজুড়ে ভাষা এবং সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের সচেতনতা বাড়ানো। ইউনেস্কো দ্বারা সর্বপ্রথম ১৭ই নভেম্বর ১৯৯৯ সালে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসঘোষণা করা হয়েছিল। তারপর থেকে প্রতি বছর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পালিত হচ্ছে ।

জনাব রফিকুল ইসলামের প্রস্তাবটি বাংলাদেশ সংসদে প্রবর্তিত হয়েছিল এবং যথাযথভাবে (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে) বাংলাদেশ সরকার ইউনেস্কোর কাছে একটি আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পেশ করেছিল। ইউনেস্কোর নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রস্তাবটি পালনের প্রক্রিয়াটি তৎকালীন ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সৈয়দ মুয়াজ্জেম আলী এবং ইউনেস্কোর স্থায়ী প্রতিনিধি এবং তার পূর্বসূরি তোজাম্মেল টনি হক, যিনি তখন ইউনেস্কোর সেক্রেটারি জেনারেল ফেদেরিকো মেয়রের বিশেষ উপদেষ্টা ছিলেন। অবশেষে ১৯৯৯ সালের ১৭ ই নভেম্বর ইউনেস্কোর ৩০ তম সাধারণ পরিষদ সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল যে, “১৯৫২ সালের এই দিনে শহীদদের স্মরণে বিশ্বজুড়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করা হবে।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি পুলিশ মাতৃভাষার দাবীর সমাবেশে গুলি চালায়। সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার ও শফিউর মারা যান এবং আহত হয়েছেন আরও কয়েকশ। এটি ইতিহাসের একটি বিরল ঘটনা, যেখানে লোকেরা তাদের মাতৃভাষার জন্য প্রাণ উৎসর্গ করেছিল।সেই থেকে বাংলাদেশিরা তাদের মর্মান্তিক দিন হিসাবে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে। তারা শহীদ মিনারটি শহীদদের স্মরণে নির্মিত একটি স্মৃতিসৌধ এবং এর প্রতিরূপে তাদের প্রতি গভীর গভীর দুঃখ, শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা জানাতে সকলে অত্যন্ত মর্যাদা ও ভাব গন্ভীর সহ শ্রদ্ধা নিবেদন করতে যান। ভাষা সংস্কৃতি সংরক্ষণ এবং বিকাশের এবং এটি সারা বিশ্ব জুড়ে প্রচার করার সবচেয়ে শক্তিশালী উপায়। এই দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার কারণে, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বিশ্বজুড়ে পালিত হয়, বাংলাদেশে এই দিনটি সরকারী ছুটি ও অত্যন্ত মর্যাদার দিন ।




১৯৪৭ সালে পাকিস্তান বিভাগের সময়, বাংলাভাষা ভাষী অঞ্চল দুটি ভাগে বিভক্ত হয়েছিল: পশ্চিমাংশটি ভারতবর্ষের পশ্চিম বাংলা এবং পূর্ব অংশটি পূর্ব বাংলা নামে পরিচিত যা পরবর্তীকালে পূর্ব পাকিস্তান নামে পরিচিত ছিল। এ সময় ভাষাগত ইস্যু সহ অনেকগুলি অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক সমস্যা তীব্র আকার ধারন করে। ১৯৪৮ সালে যখন সরকার উর্দুকে জাতীয় ভাষা হিসাবে ঘোষণা করল তখন এটি পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালির ক্ষোভ ও প্রতিবাদের জন্ম দেয়। এই প্রতিবাদ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় এবং পুলিশ গুলি করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারজন বিক্ষোভকারীকে হত্যা করে । তাদের মাতৃভাষার লড়াইয়ের সময় শিক্ষার্থীদের মৃত্যুকে এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে স্মরণ করা হয়।

শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে অস্ট্রেলিয়ার সিডনির অ্যাশফিল্ড পার্কে একটি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্মৃতিসৌধ নির্মিত হয়েছে।
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ইউনেস্কো এবং জাতিসংঘের অন্যান্য সংস্থাগুলি বিশ্বজুড়ে সাংস্কৃতিক ও ভাষাগত বৈচিত্র্য প্রচারে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে । তারা তাদের মাতৃভাষা সম্পর্কে জ্ঞানবান হওয়ার জন্য এবং তাদের ভাষা ও সংস্কৃতি অন্যান্য দেশের দিকে প্রচারের বিষয়ে সচেতনতা ও সমৃদ্ধি করার জন্য লোকদের প্রশংসা ও উৎসাহ দেয়।




আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস - ২১ শে ফেব্রুয়ারি
আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস নামে পরিচিত, এটি বিশ্বব্যাপী প্রতি বৎসর পালন করা হয়। ইউনেস্কোর সহায়তায়, দিনটি বহুভাষিকতা এবং ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের সচেতনতা প্রচার করে।




জাতিসংঘ কর্তৃক ২০২০ সালের থিম: আদিবাসী ভাষা বিকাশ, শান্তিনির্মাণ এবং পুনর্মিলনের জন্য গুরুত্বপূর্ণ
গুরুত্ব: প্রতিটি দেশের মাতৃভাষা সংরক্ষণ, সমস্ত ভাষার সুরক্ষা
এছাড়াও বলা হয়: আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস বা মাতৃভাষা দিবস বা ভাষা আন্দোলন দিবস বা শহীদ দিবস
পর্যবেক্ষণ: বিশ্বব্যাপী জাতিসংঘ কর্তৃক পালন
সর্বশেষ এডিট : ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ দুপুর ২:২২
৩টি মন্তব্য ৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কাঁচপোকা লাল টিপ অথবা ইচ্ছেপদ্ম...

লিখেছেন নান্দনিক নন্দিনী, ১২ ই জুলাই, ২০২০ রাত ১২:২৯



‘হৃদয়ে ক্ষত- তা তোমার কারণেই
তাই, তুমিই সেলাই করে দেবে-
বিনা মজুরিতে।
কিছু নেই এমন যা দিতে পারি তোমাকে;
ঠান্ডা মাথায় দেখেছি অনেক ভেবে!
যদি নাও দাও তবে থাকুক এ ক্ষত
এ ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইসলামে নিকাহে মুত'আ বা সাময়িক বিবাহের বিধান ও প্রাসঙ্গিক কিছু কথা

লিখেছেন নতুন নকিব, ১২ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১০:৪৬

ছবি কৃতজ্ঞতাঃ অন্তর্জাল।

ইসলামে নিকাহে মুত'আ বা সাময়িক বিবাহের বিধান ও প্রাসঙ্গিক কিছু কথা

নিকাহে মুত'আ কাকে বলে?

আরবি: نكاح المتعة‎‎, English: 'wedlease'। নিকাহ মানে, বিয়ে, বিবাহ। আর মুত'আ অর্থ, উপকার ভোগ... ...বাকিটুকু পড়ুন

বন্ধু, কি খবর বল...

লিখেছেন পদ্ম পুকুর, ১২ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:০১


সময়ের হাওয়া গায়ে মেখে ভাসতে ভাসতে যখন এই অব্দি এসে পড়েছি, তখন কখনও কখনও পেছনে ফিরতে ইচ্ছে হয় বৈকি। কদাচিৎ ফিরে তাকালে স্মৃতির পাতাগুলো বেশ উঞ্চ এক ওম ছড়িয়ে দেয়... ...বাকিটুকু পড়ুন

বাংলাদেশ যা পারেনি নেপাল তা করিয়ে দেখালো!

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ১২ ই জুলাই, ২০২০ দুপুর ১২:২৭



ভারতীয় যত টিভি চ্যানেল আছে তা প্রায় সবগুলোই বাধাহীন ভাবে বাংলাদেশে সম্প্রাচারিত হচ্ছে কিন্তু বাংলাদেশে একটি টিভি চ্যানেলও ভারতে সম্প্রচার করতে দেওয়া হয়না। ভারতের কিছু কিছু চ্যানেলের মান অত্যন্ত... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্যবধান

লিখেছেন মুক্তা নীল, ১২ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:২৭




পারুল আপা আমাদের সকলের একজন প্রিয় আপা। তিনি সকল ছোটদের খুবই স্নেহ আদর ও আবদার পূরণে একধাপ এগিয়ে থাকতেন। অতি নম্র ও ভদ্র তার কারণে বাড়ির গুরুজনদের কাছে এই আপার... ...বাকিটুকু পড়ুন

×