somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

"গিথর্ন" রাস্তাবিহীন একটি ডাচ গ্রাম

২০ শে মার্চ, ২০১৪ রাত ১০:৩২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



আচ্ছা আপনারা কি কল্পনা করতে পারেন বর্তমান সময়ে এমন কোন জায়গা আছে যেখানে কোন রাস্তা নেই!! কি অবাক হচ্ছেন রাস্তা ছাড়া আবার কোন অঞ্চল কল্পনা করা যায়!! তা ঠিক বলেছেন, কিন্তু আজ আপনাদের সাথে নেদারল্যান্ডের এমন এক গ্রামের সাথে পরিচয় করিয়ে দিব যেখানে কোন সড়ক পথ নেই, আছে শুধু জল পথ। গ্রাম বলছি ভেবে আবার আমাদের দেশের গ্রামের সাথে তুলনা করে বসেন না। এটা গ্রাম হলেও শহরে জীবনের বা প্রযুক্তির সব সুবিধাই আছে এখানে, শুধু একটাই সমস্যা তা হল এখানে কেউ গাড়ি চালায় না। আর যাদের গাড়ি আছে তারা গাড়ি গ্রামের বাইরে গাড়ি রেখে নৌকায় করে গ্রামে ঢোকে।



এতক্ষন বকবক করলাম কিন্তু গ্রামের নামটা আর বলা হল না। এই গ্রামের নাম "গির্থন" (Giethoorn), আর এই গ্রামটি "ষ্টিমওয়েক" (Steenwijck) শহর থেকে ৫ কিঃমিঃ দক্ষিন পশ্চিম দিকে অবস্থিত। প্রথম দিকে এই গ্রামটি সকলের কাছে এতটা পরিচিত ছিল না যতটা বর্তমানে। ১৯৫৮ সালে এই গ্রামে নির্মিত "Fanfare" সিনেমা মধ্য দিয়ে সবার প্রথম এই গ্রাম সকলের নজর কারে। আর নজর কারবেই না কেন বলুন, যেমন প্রাকৃতিক সৈন্দর্য, তেমন নজরকারা বাড়ি আর সাথে বাড়ির সামনে দিয়ে বয়ে চলা জল পথ। এক কথায় অপূর্ব সুন্দর এই গ্রাম।



গিথর্ন গ্রামকে বলা হয়, "নেদারল্যান্ডের ভেনিস", কেননা ভেনিস শরের মত এই গ্রামের মূল যোগাযোগ ব্যাবস্থা জলপথ। ৭.৫ কিঃমিঃ দীর্ঘ এই জলপথ, যা এই গ্রামের মধ্য দিয়ে বয়ে চলেছে, এছাড়াও আছে ৫০টি কাঠের তৈরি সাঁকো। বলতেই তো ভুলে গেলাম এই নালা গুলি সর্বোচ্চ ১ কিঃমিঃ পর্যন্ত গভীর হয়।

এই গ্রামটি প্রথম প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১২৩০ সালে, তখন এই গ্রামের নাম ছিল "গিথেনহর্ন" (Geytenhorn) কিন্তু কালের বিবর্তনে এই গ্রামের বর্তমান নাম "গির্থন" (Giethoorn)।



গ্রামের মূল যোগাযোগ ব্যাবস্থা যেহেতু জলপথ, তাই এখানে বেশ কয়েক ধরনের নৌকা দেখা যায়। যার মধ্যে সব থেকে জনপ্রিয় নৌকার নাম "Pnters" যার ইংরেজি নাম "Whisper Boats", আর এই নৌকা গুলি চলে ইলেক্ট্রিক মটরের সাহায্যে তাই কোন শব্দ হয়না বললেই চলে, অনেকটা আমাদের দেশের "ইজি বাইক" গুলির মত। এর ফলে গ্রামের শান্তির পরিবেশ বজায় থাকে।



এই গ্রামের জনসংখ্যা ২৬২০ জন মাত্র। এই গ্রামের বাড়ি গুলি তৈরি করা হয়েছে ছোট ছোট দ্বীপের মধ্যে যার চারিপাশ দিয়ে বয়ে চলেছে পানি। বাড়ি গুলি তৈরি করা হয়েছে কাঠ দিয়ে, আর চাল হিসেবে আগে খড় বা গাছের পাতা জনপ্রিয় থাকলেও বর্তমানে মাটির তৈরি টিলা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।




কি সুন্দর এই গ্রাম, যান্ত্রিক জীবনের কোন শোরগোল নেই এখানে, চারিদিকে সবুজের ছড়াছড়ি। দেখলে মনে হবে যেন কেউ তার মনের মধ্যে লুকিয়ে রাখা সব টুকু রঙকে নিংরে রাঙ্গিয়েছে এই গ্রামকে। আমার তো খুব যেতে ইচ্ছা করছে, আপনার কি অবস্থা??

















মূল লেখাঃ "গিথর্ন" রাস্তাবিহীন একটি ডাচ গ্রাম :P
১৪টি মন্তব্য ১৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

গুলতেকিন কই যাবে?

লিখেছেন দপ্তরবিহীন মন্ত্রী, ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৪২



১. ২০০৩ সালের আগে হুমায়ুন আহমেদের শাওন প্রীতির সময়টাতে গুলতেকিন পরকীয়া করলে সমালোচনা হত।
২. ২০০৩ সালে ডিভোর্সের পর গুলতেকিন আবার বিয়ে করলে সমালোচনা হত।
৩. ২০১৯ সালে বিয়ে না করে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইলেক্ট্রিকের তারে বসা হতচকিত জোড় শালিক বেজোড় হল ।

লিখেছেন স্বপ্নবাজ সৌরভ, ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১১:৫২



বহুকাল আগে ইলেক্ট্রিকের তারে একাকী শালিক দেখে বলেছিলে -
'One for Sorrow' ; পরক্ষনেই কোথা থেকে উড়ে এলো আরেকটি শালিক
বসলো গিয়ে একাকী শালিকের পাশে , ওরা জোড়া... ...বাকিটুকু পড়ুন

পেয়াঁজ বিহীন ভর্তার রেসিপিঁঁ

লিখেছেন ঢাবিয়ান, ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:০৪



খোদ গনভবনে যেহেতু পেয়াজ ছাড়া রান্না হইতেছে , সেখানে আপনি ২৮০ টাকা কেজি দিয়ে পেয়াজ কিনে রান্না করবেন সেটা কি ভাল দেখায়? যাই হোক ব্লগে আমরা পেয়াজ... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোলকাতা ভ্রমন- ৩ (শেষ পর্ব)

লিখেছেন রাজীব নুর, ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৪:২৫



শান্তিনিকেতন থেকে কোলকাতা ফিরলাম ট্রেনে করে।
ভয়াবহ সেই ট্রেন। পা রাখার জায়গা নাই। ট্রেনের নাম কাঞ্চন। আসাম থেকে এসেছে যাত্রী বোঝাই করে। কোনো রকমে ট্রেনে উঠলাম। যাওয়ার সময়... ...বাকিটুকু পড়ুন

অধরার যাতনা

লিখেছেন আরোগ্য, ১৮ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫

( কাব্যিক পোস্টের জন্য মা হাসান ভাই ও ভুয়া মফিজ ভাইদ্বয়ের সমীপে দুঃখিত। গল্প বা বিশদ বিশ্লেষণ লিখতে পারি না, তাই স্বল্প সময়ে অকবিতাই মোর ভাব প্রকাশের বাহন)... ...বাকিটুকু পড়ুন

×