somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

Bluetooth Speaker এর ক্রমাগত জনপ্রিয়তার নেপথ্যে

১৪ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ৩:২৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


প্রয়োজনীয় গ্যাজেটের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ হলো স্পিকার। একসময় শুধুমাত্র তারযুক্ত স্পিকার ব্যবহৃত হলেও, বর্তমানে প্রযুক্তির কল্যাণে এখন আর কেউ তারের ঝামেলা করতে চায় না। প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে তাল মিলিয়ে স্পিকারের আকার, শক্তিমত্তা, ফিচার, সহজলভ্যতা ও ডিজাইনে হয়েছে ব্যাপক উন্নয়ন। ছোট, বহনযোগ্য ও স্টাইলিস্ট স্পিকারের অন্যতম বড় সুবিধা এর তারবিহীন ব্লুটুথ ফিচার। অর্থাৎ ব্লুটুথ স্পিকার তারহীন প্রযুক্তিতে গান বাজাতে পারে। ঘরোয়া পরিবেশে বা ছোট পরিসরে টিভি, রেডিও, কম্পিউটার এমনকি মোবাইল ফোনে ভিডিও কিংবা গানের অডিও উপভোগের সেরা সমাধান পোর্টেবল ব্লুটুথ স্পিকার। যত দিন যাচ্ছে এই ব্লুটুথ স্পিকারগুলো ততই জনপ্রিয় হচ্ছে। নিচে ব্লুটুথ স্পিকারের ক্রমাগত জনপ্রিয়তার নেপথ্যে কিছু কারণ উল্লেখ করা হলো।

তারহীনঃ
ব্লুটুথ স্পিকারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এগুলো ব্যবহার করার জন্য কোনো তার লাগে না। শুধুমাত্র চার্জ দিন এটাকে অথবা ব্যাটারি ভরুন আর তারপর ব্যবহার করুন।

সহজ ব্যবহারঃ
ব্লুটুথ স্পিকারকে ফোন, ট্যাবলেট বা ল্যাপটপের সাথে খুব সহজেই সংযোগ করা যায়। এজন্য যা করতে হবে তা হলো আপনার ফোন, ট্যাবলেট বা ল্যাপটপের ব্লুটুথ অপশন অন করতে হবে, আর তারপর আপনার ব্লুটুথ স্পিকারের অন বাটন চেপে এটাকে অন করতে হবে। তারপর কতিপয় সহজ পদক্ষেপে এটাকে পেয়ার করতে হবে। ব্যস, কাজ শেষ। এরপর যখনই আপনি স্পিকার অন করবেন, আপনার ফোন, ট্যাবলেট বা ল্যাপটপ অটোমেটিক্যালি কানেক্ট হয়ে যাবে। এই পদ্ধতি অতীতের তারযুক্ত স্পিকার বা স্টেরিও সেটআপ করার চেয়ে অনেক সহজ।

অতীতের স্বপ্ন পূরণঃ
আজ থেকে বাইশ-তেইশ বছর আগে (আমি তখন কলেজে পড়ি) মোবাইল ফোন এবং MP3 প্লেয়ার ছিলো বেশ দুষ্প্রাপ্য। তখন ছিলো বাটন ফোনের যুগ যা দিয়ে কথা বলা ছাড়া আর কোনো কাজ করা যেত না। সে সময় যখন MP3 প্লেয়ার আসে বাজারে তখন মুহূর্তের মধ্যে তা জনপ্রিয়তার শীর্ষে চলে যায়। অ্যাপলের আইপড ছিলো তরুনদের কাছে স্বপ্নের মতো। আমার কাছেও মনে হতো, ইশ, আমার পড়ার টেবিলে যদি MP3 প্লেয়ারের মতো ছোট্ট একটা মিউজিক প্লেয়ার থাকতো! 98, 99, 2000, 2001, 2002 বা 2003 সাল পর্যন্ত এই স্বপ্ন অনেকেই দেখতো। কিন্তু সেই স্বপ্ন বেশিরভাগের কাছে স্বপ্নই রয়ে গিয়েছিলো। এখন সময় পাল্টেছে। মানুষের সামর্থ্য বেড়েছে। প্রযুক্তি পণ্য এখন হাতের মুঠোয়। যারা অতীতে সেই স্বপ্ন দেখতো তাদের অনেকেই এখন একটি ব্লুটুথ স্পিকার কিনে তাদের টেবিলে সাজিয়ে রেখেছে। ব্লুটুথ স্পিকারের সুবিধা হলো এটি রাখার জন্য খুব সামান্য জায়গা লাগে, কিন্তু আওয়াজ দেয় চমৎকার আর জোরালো।

বাসাবাড়ির যে কোনো রুমে ব্যবহারঃ
ধরুন, আপনি রান্না ঘরে রান্না করছেন, এ অবস্থায় যদি গান বা মিউজিক শুনতে চান, তবে আপনি হেডফোন ব্যবহার করে তা করতে পারেন। কিন্তু কাজ করতে করতে কোনো এক অসতর্ক মুহূর্তে আপনার হেড ফোনের কর্ড ভাতের হাড়িতে মাড় অথবা তরকারির ঝোল দিয়ে মাখামাখি হয়ে যেতে পারে। অথবা গ্যাসের চুলার উপর তারের কোনো অংশ চলে আসলে তা পুড়েও যেতে পারে। কিন্তু আপনি যদি ব্লুটুথ স্পিকার ব্যবহার করেন তবে এটিকে আপনি রান্নাঘরের যে কোনো অংশে বসিয়ে রান্না করতে করতে আপনার পছন্দের গানগুলি একের পর এক শুনতে থাকলেন। গান শুনতে শুনতে একঘেয়েমিতে আক্রান্ত না হয়েই আপনি একসময় রান্নাবান্নার কাজ শেষ করে ফেললেন। ব্লুটুথ স্পিকারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এই সহজ বহনযোগ্যতা। আপনি এটাকে আপনার বাসাবাড়ির যে কোনো রুমে নিয়ে যেতে পারবেন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি ড্রয়িং রুমে বসে যখন আপনার সন্তানের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন তখন হয়তো তাকে অ, আ, ক, খ তথা বর্ণমালা বাজিয়ে শোনালেন, বেডরুমে ঘুম না আসলে কোনো একটা রিল্যাক্সিং মিউজিক শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে পড়লেন, গ্যারেজে গাড়ি বা মোটর সাইকেল ধোয়ার সময় গান শুনতে থাকলেন অথবা বাথরুমে কাপড় ধোয়ার সময় অথবা অন্য যে কোনো বিরক্তিকর কাজ করার সময়, সময়টাকে উপভোগ্য করার জন্য আপনি ব্লুটুথ স্পিকার ব্যবহার করলেন।


সঙ্গীত শেয়ার করাঃ
আমরা অনেক সময়ই বন্ধু বা প্রিয়জনদের সাথে ভালো গান বা সঙ্গীত শেয়ার করতে চাই। ধরুন আপনি একটা চমৎকার গান ডাউনলোড করলেন এবং চাইলেন সেটাকে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে। কিন্তু আপনাকে হয় ফোনের লাউড স্পিকার দিয়ে সেটা বাজাতে হবে অথবা শেয়ারইট অ্যাপ দিয়ে তাদের মোবাইলে সেটা পাঠাতে হবে। কিন্তু আপনার যদি একটা ব্লুটুথ স্পিকার থাকে তবে আপনি গানটি খুব সহজেই বাজাতে পারবেন যাতে সবাই শুনতে পারে। ব্লুটুথ স্পিকারগুলো ভ্রমনের ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপযোগী। এছাড়া রাতে ছাদে বন্ধুদের নিয়ে বারবিকিউ পার্টি করার সময়ও আপনি পছন্দের গান বাজিয়ে একটা উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি করতে পারবেন।


গৃহসজ্জা ও উপহার দেয়ার ক্ষেত্রে ব্যবহারঃ
বর্তমানে ব্লুটুথ স্পিকারগুলো এতো চমৎকার আর আকর্ষণীয় ডিজাইন দিয়ে তৈরি করা হয় যে এগুলো শুধু আর গান শোনার জন্য ব্যবহার করা হয় না বরং এর নান্দনিক ডিজাইনের জন্য আপনি এটাকে গৃহসজ্জার একটি উপকরণ হিসেবেও ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি এটাকে বিছানার পাশে, টি টেবিলে, শোকেসে, টিভি বক্সের উপরে অথবা ভিতরের কোনো তাকে রাখতে পারবেন। ফলে ঘর সাজানোও হলো আবার দরকার মতো গান শোনাও হলো। এ যেন একই সাথে রথ দেখা আর কলা বেচা। এখন আপনি যদি সুন্দর দেখে একটা ব্লুটুথ স্পিকার কাউকে জন্মদিন, ম্যারেজ ডে বা ভ্যালেনটাইন ডে উপলক্ষ্যে গিফট করেন, তবে বাজী ধরে বলা যায়, আপনার উপহারটিই হবে তার কাছে সে দিনের শ্রেষ্ঠ উপহার।


ঘরের বাইরে ব্যবহারঃ
একটি বহনযোগ্য ব্লুটুথ স্পিকার শুধুমাত্র ঘরের ভিতরেই ব্যবহার করা হয় না। যখন আপনি পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কোনো রিসোর্টে ঘুরতে গেলেন অথবা বন্ধুদের সাথে ছাদে আড্ডা দিচ্ছেন সে সময় একটা ব্লুটুথ স্পিকার আপনার বা আপনাদের সময়টাকে আরো আনন্দময় করে তুলতে পারে। আবার ছাদে উঠে ব্যায়াম করার সময়ও আপনি সঙ্গীত শুনতে শুনতে আপনার ব্যায়ামের সময়টাকে উপভোগ্য করে তুলতে পারবেন।


হ্যান্ডস ফ্রি কলিংঃ
কখনও কখনও দীর্ঘসময় ধরে কথা বলার ক্ষেত্রে আপনি যদি কানের কাছে মোবাইল ধরে রাখতে রাখতে ক্লান্ত হয়ে যান বা বিরক্তিবোধ করেন তখন আপনি লাউড স্পিকার মোড চালু করে দেন। কিন্তু লাউড স্পিকার মোডে কখনও কখনও বক্তার কথা স্পষ্টভাবে শোনা যায় না। কিন্তু একটি ব্লুটুথ স্পিকার এই সমস্যার সমাধান করতে পারে। ব্লুটুথ স্পিকারের একটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা হলো বিল্ট ইন মাইক্রোফোন অপশন যা হ্যান্ডস ফ্রি কলিং এর সুবিধা প্রদান করে। ব্লুটুথ স্পিকারের আওয়াজ যথেষ্ট জোরালো যে আপনি অপরপ্রান্তের বক্তার কথা পরিষ্কারভাবে শুনতে পারবেন এবং হাতে ফোন না থাকায় আপনি কথাবার্তা বলতে বলতে অন্য কাজও করতে পারবেন।


বাজেট বান্ধবঃ একটি মোটামুটি মানের স্টেরিও সিস্টেম ক্রয় করতে হলে আপনাকে কমপক্ষে পাঁচ থেকে আট হাজার টাকা খরচ করতে হবে। কিন্ত একটি ভালো মানসম্মন্ন ব্লুটুথ স্পিকার আপনি তিন-চার হাজার টাকার মধ্যেই পেয়ে যাচ্ছেন। সাশ্রয়ী মূল্য অথচ ভালো মান এটা ব্লুটুথ স্পিকারের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তার অন্যতম বৈশিষ্ট্য। নিচে বাংলাদেশে পাওয়া যায় এমন কিছু ব্লুটুথ স্পিকারের নাম ও বিবরণ উল্লেখ করা হলো। তথ্যগুলো রায়ানস কম্পিউটারের ওয়েবসাইট থেকে নেয়া হয়েছে। আরো বিস্তারিত তথ্যের জন্য আপনি তাদের ওয়েবসাইট দেখতে পারেন।

Rapoo A100 Grey Bluetooth Mini Speaker
Special Price Tk 1,650
Type - Bluetooth Mini Speaker
Microphone - Yes
Battery - Built-in 800mAh battery
Specialty - 4W high-powered amplifier system for excellent sound quality, Stylish and comfortable


REMAX Fabric Series RB-M30 Portable Blue Wireless Speaker
Special Price Tk 1,800
Type - Fabric Series Portable Wireless Speaker
Microphone - Yes
Bluetooth Range - 10 meters
Battery - 3.7V/1200mAh Battery
Weight - 0.25Kg


Creative WOOF3 Bluetooth,Wireless Speaker
Special Price Tk 2,750
Type - Wireless Bluetooth Speaker
USB Port - micro USB
Mircophone - Yes (Built-in)


Remax RB-M26 Clock Bluetooth Silver Speaker
Special Price Tk 3,600
Type - Clock Bluetooth Speaker
USB Port - Yes
Bluetooth Range - 10 Meter
Battery - 4400mAh Battery
Integrated alarm clock,
2 in 1 Bluetooth Speaker with Alarm Clock


REMAX RB-H7 EU Bluetooth Yellow Speaker
Special Price Tk 3,600
Type - Bluetooth Speaker
Microphone - Yes
Bluetooth Range - 10 Meter
Can play music directly from AUX cable and Bluetooth devices,
convenient to use Broad compatibility


Remax RB-M23 Desktop Bluetooth Black Speaker
Special Price Tk 3,800
Type - Desktop Bluetooth Speaker
Bluetooth Range - 10 Meter
Battery - 3.7V/2000mA Battery
Able to connect with AUX audio cable too
Weight - 1.8Kg

সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই জুলাই, ২০১৯ রাত ৩:৩২
৫টি মন্তব্য ৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শুভ জন্মদিন প্রিয় ত্রিরত্ন।

লিখেছেন এস.কে.ফয়সাল আলম, ১৭ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৩৫



আজ যখন ঢাকাগামী ট্রেনের সিটে বসে মোবাইল থেকে এই পোষ্ট লিখছি, তখনও প্রিয় সামু ব্লগ দেশের বেশিরভাগ ISP তে ব্লক! ব্লগের সেই চিরচেনা দিনগুলি আস্তে আস্তে যেন স্মৃতিগত হয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

দুই পাগলের ঝগড়া

লিখেছেন প্রামানিক, ১৭ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ৮:৫৫


শহীদ্লু ইসলাম প্রামানিক

দুই পাগলে গাছের নিচে
করছে বাড়াবাড়ি
হায়! হায়! হায়! করছে একজন
আরেকজন আহাজারী।

এমন সময় এক পাগলে
দিল গালে চড়
শব্দ হওয়ায় আরেক পাগল
পেল ভীষণ ডর।

ডরের চোটে বলছে পাগল,
এমন করলি কেন
এটম বোমের মতই... ...বাকিটুকু পড়ুন

যে কূটনামীগুলো করলে আপনি ক্ষমতা লাভ করবেন ! :P

লিখেছেন রাকু হাসান, ১৭ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১০:৪১




সব কিছুই একটা নিয়মের মধ্য থেকেই করতে হয় । কূটনামী কিংবা ক্ষমতাবান হওয়ারও কিছু নিয়ম আছে ।
সেগুলো নিয়েই আজকের পোস্টে গোপন সূত্র শেয়ার করবো ;) । যারা... ...বাকিটুকু পড়ুন

কুটুম

লিখেছেন হাসান মাহবুব, ১৭ ই আগস্ট, ২০১৯ রাত ১১:২৬



শেষরাতে ঘুম ভেঙে গেলে আমার বেহালার সুর শুনতে ইচ্ছে করে। বেহালা যে আমি খুব ভালোবাসি তা নয়। তবে শেষ রাত সময়টা রহস্যময়। এ সময় মানুষের ইচ্ছা-অনিচ্ছা, পছন্দ-অপছন্দের ভার... ...বাকিটুকু পড়ুন

বেলফোর রোড টু কাশ্মীর ! : সভ্যতার ব্লাকহোলে সত্য, বিবেক, মানবতা!

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ১৮ ই আগস্ট, ২০১৯ দুপুর ১:৪০

ফিলিস্তিন আর কাশ্মীর! যেন আয়নার একই পিঠ!
একটার ভাগ্য নিধ্যারিত হয়েছিল একশ বছর আগে ১৯১৭ সালে; আর অন্যটি অতি সম্প্রতি ২০১৯ এ!
বর্তমানকে বুঝতেই তাই অতীতের সিড়িঘরে উঁকি দেয়া। পুরানো পত্রিকার... ...বাকিটুকু পড়ুন

×