somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

গল্পঃ ডন যুবায়েরের কথা... ( ১ম ও ২য় পার্ট)

১০ ই অক্টোবর, ২০১৩ বিকাল ৫:৫৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

ফোটায় ফোটায় ড্রপার হতে চোখে ওষুধ নিলেন যুবায়ের। ডন যুবায়ের। এই শহরে সকলে তাঁর নাম জানে। ভাবছেন চোখে অসুখ, না তা না। সাল ২০১০। শহরে চলছে ৩য় গ্যাং ওয়ার। বহু পক্ষের লোক মরছে। একদিন ডন যুবায়েরের এরিয়ার সামনে হল ভয়ংকর হামলা। কাছের তিনজন কে হারালেন ডন। অস্ত্র হাতে নিজেই চলে আসলেন ফ্রন্ট লাইনে। ঠিক সেসময়ে চোখে আঘাত পেয়েছিলেন তিনি। ভাল কথা, সেদিন অপর পক্ষের আটজন মারা গেছিল ডনের হাতে। ডনের ঠিক বাম পাশে বসে একজন, নাম সরকার। ঢাকা থেকে আসা। ঢাকার আন্ডারওয়ার্ল্ডের ৩য় ক্ষমতাধর ব্যক্তির রেফারেন্সে তিনি এসেছেন। বড়ই রহস্যময়। ঠিক তার পিছনে K নামের একজন। ইনি ঢাকার সেকেন্ড ডনের মেয়ের প্রেমিক। ঠিক কি কারনে এই শহরে ডনের ছায়ায় রয়েছেন তিনি তা বুঝা দায়।

স্বয়ং মঙ্গোলিয়া থেকে ডন যুবায়েরের অফিসিয়াল কাজ সামলানোর জন্য এসেছেন একজন। তাঁর হাত অনেক গভীরে যেতে পারে বলে ডনের তার প্রতি আস্থা। ভয়ংকর এক কিলার নিয়ে আসা হয়েছে বরিশাল থেকে। দুর্দমনীয় একজন। ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় আছে ডন , তাই ভবিষ্যতের বিজনেস সামলানোর জন্য উচ্চতর শিক্ষায় অ্যামেরিকা যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন ডনের কাছের এক মানুষ। রাজধানীতে তিনি ডনের একজন বড় লিঙ্ক। ভাবছেন এত কিছু কি করে জানলাম ডন যুবায়ের সম্বন্ধে??? আমি বসে আছি ঠিক তাঁর পিছনে। আমি ডন যুবায়েরের প্রধান কনসিলিওর!

শহরে ডন যুবায়েরের যতটা প্রভাব ছিল বলে ভাবা হয়, তা কিন্তু একদিন গড়ে উঠেনি। ২০০২ সালে ডনের শহরে আসা, প্রভাব বিস্তার ডন কে ধীরে ধীরে যেমন জনপ্রিয় করে তোলে তেমনই ডনের শত্রুর সংখ্যা বাড়তে থাকে। ব্যক্তি জীবনে ডন যুবায়ের এক বিচিত্র চরিত্র। কখনও সাহায্যকারী কখনও দয়ালু। কিন্তু বিজনেস এর ক্ষেত্রে যেমন ছিল ধূর্ত, তেমনি ভয়ংকর। শহরের পশ্চিম অংশ টুকু তে ডনের প্রভাব বাড়লেও অন্যান্য অংশের মাফিয়া গুলো ডন যুবায়েরের প্রভাব কখনই মেনে নেয় নি। বরং ধীরে ধীরে তারা শক্তি বাড়াতে থাকে, সমূলে ডন যুবায়ের কে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার জন্য। তারা সফল হয়ত হয়ে যেত ২০১০ সালের গ্যাং ওয়ারে, কিন্তু তাঁদের সিদ্ধান্ত তাদের ডুবিয়ে দেয়।

২০১০ সালে শহরের পুরো মাফিয়াদের মধ্যে লেগে যায় যুদ্ধ। অবস্থা এমন, রাস্তায় সাধারন লোকের পাশে মারা যাচ্ছে মাফিয়া দলের কোন সন্ত্রাসী। সরকার থেকে নির্দেশ ছিল প্রশাসনের উপর; মরুক কিছু কুত্তা। পুলিশ ছিল চুপ করে। ডন যুবায়েরের দল মার খাচ্ছিল ভাল করেই। বিজনেসের অবস্থা ছিল খারাপ। সে সময় আমি ডনের কনসিলিওর হয়ে উঠিনি। বর্তমান টিমের কেউ ছিল না ডনের দলে। যদিও পরিস্থিতি সামাল দিতে ডন একাই ছিলেন যথেষ্ট। তার উপর খুলনা শহরে ছিল ডনের যথেষ্ট পরিমাণ সম্মান ও প্রভাব। আর্থিক দিক দিয়ে ভাল ভাবে সাহায্য করছিল খুলনার মাফিয়ারা। ডন যুবায়ের এই সময় দেখিয়েছিলেন তার কু বুদ্ধির একটা চমক। আমি ঠিক জানি না কি ছিল তার প্ল্যানে, তবে রাজশাহী শহরের মাফিয়াদের বিজনেস চরম ভাবে মার খেতে শুর করল। এমনকি ডনের নিজের বিজনেসও। একদিকে গ্যাং ওয়ারে সবার হচ্ছিল চরম ক্ষতি, আরেকদিকে ডনের কারনে বিজনেস এ আসল বিশৃঙ্খলা। হঠাত করেই প্রত্যেক দলের আয় চলে আসলো শূন্যের কোঠায়। একমাত্র ডন যুবায়ের খুলনা থেকে পেতে থাকলো মোটা অংকের সাহায্য। ঢাকার ডনেরা আমাদের উপর ছিলেন যথেষ্ট বিরক্ত, তারা চেয়ে চেয়ে বসেছিলেন কে জিতে শেষ পর্যন্ত।

কফিনের শেষ পেরেক ঠুকার জন্য ডন প্রচুর পরিমান টাকা দিলেন প্রশাসনের সবাই কে। নির্দেশ দিতে অভ্যস্ত ডন অনুরোধ জানালেন, যে জঞ্জাল দূর করেন। শুরু হল মাফিয়াদের উপর স্পেশাল ফোর্সের হামলা। শহরের পূর্বাঞ্চলের মাফিয়া দল গুলো পথে বসে থাকাটাই বাকি ছিল। ডন যুবায়েরের অঞ্চলে তার শত্রুরাও নিশ্চুপ হয়ে গেল একেবারে। এমনকি ডনের ২য় স্ট্রিট ফাইটার টিমের গ্যাংস্টার গামা সহ গোটা দল টা নিশ্চিহ্ন হয়ে গেল। ২০১০ সালের সেই দিনের কথা ভুলব না, চোখে আঘাত পেলেন ডন যুবায়ের।

শেষ শক্তি টুকু নিয়ে সব মাফিয়া দল মিলে আঘাত করতে আসলেন ডন যুবায়ের কে। ডন জানতেন প্রশাসন তাঁকে সাহায্য করবে না। এই আঘাতে মারা গেল আমাদের প্রধান স্ট্রিট ফাইটার টিমের গ্যাংস্টার মোহায়মেন। মোহায়মেন ছিল ডনের পুরনো পাপের সাথী। সেই সাথে মারা গেলেন এ শহরে ডন কে যিনি শিক্ষা দিয়েছিলেন চলার এবং ডনের খুলনা থেকে আসা একমাত্র সাথী। সেই প্রথম আমার দেখার সৌভাগ্য হল অস্ত্র হাতে ফ্রন্ট লাইনে ডনের নেমে আসা। আটজন মারা গেলেন ডন যুবায়েরের হাতে।
৩টি মন্তব্য ৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

একটি বাড়ি এবং শেষ ঠিকানা

লিখেছেন নাহল তরকারি, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ দুপুর ১২:৩১



মানুষ সামাজি জীব। সমাজ ছাড়া মানুষ বাচতে পারে না। আগে মানুষ গুহার মধ্যে বসবাস করিতেন। গুহাতে যখন তাদের স্থান সংকোলন না হওয়তে তারা সমতলে এসে বাড়ি বানানো শিখলো।

কালের... ...বাকিটুকু পড়ুন

তুমি !

লিখেছেন স্প্যানকড, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৩:১৬

ছবি নেট ।


তুমি,
জুলাই মাসের জমিন ফাটা রোদ্দুর
গরম চা জুড়ানো ফু
ছুঁলেই ফোসকা পড়ে
ভেতর বাহির থরথর কাঁপে
গোটা শরীর ঘামে।

তুমি তো
আর কাছে এলে না
আসি আসি বলে
ঝুলিয়েই... ...বাকিটুকু পড়ুন

=আবোল তাবোল=

লিখেছেন কাজী ফাতেমা ছবি, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ বিকাল ৪:১০



©কাজী ফাতেমা ছবি

১/
খুললে তালা মনকুঠুরীর, তবু বাঁধা শত!
মনবাড়িতে জরাজীর্ণ, পোকায় খাওয়া ক্ষত,
নিজের স্বার্থ রাখলে বজায়, মুখে রেখে হাসি
কেমনে বলো এমন তোমায়, অথৈ ভালোবাসি।
তার চেয়ে ঢের থাকুক তালা, লাল মরিচায়... ...বাকিটুকু পড়ুন

পরিমণির কুরুচি নৃত্য আমার ভালো লাগছে

লিখেছেন ব্রাত্য রাইসু, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:৩৭



জন্মদিনে লুঙ্গি কাছা দিয়া নাইচা পরিমণি রুচিহীনতা প্রদর্শন করছেন। আমার তা ভালো লাগছে।

রুচিহীনতা বা কুরুচি প্রদর্শন করার অধিকার তার আছে। তেমনি রুচিহীনতারে রুচিহীনতা বলার অধিকারও ভদ্র সমাজের আছে তো!

অনেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আল কোরআনের আসমান নিয়ে ভ্রা্ন্ত ধারণা রোধ করুন। নাস্তিক ব্যাটার শাস্তি চাই।

লিখেছেন রাশিদুল ইসলাম লাবলু, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২১ রাত ১১:২৪

সু প্রিয় পাঠক আজকে আমি ইউটিউবের আরেক নাস্তিক আলেকজেন্ডার সোলালিন নামের (ছদ্মনামধারী কেউ) এর আরেকটি উপহাসের জবাব দিতে প্রস্তুত হয়েছি। এই ব্যাটা নাস্তিক বলছে আল কোরআনের একটি আয়াতেই নাকি প্রমান... ...বাকিটুকু পড়ুন

×