somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

ইমন জুবায়ের
অন্ত্যজ বাঙালী, আতরাফ মুসলমান ...

আতেন-এর জন্য রক্তপাত!

১১ ই অক্টোবর, ২০০৮ সকাল ১০:২৯
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

চতুর্থ আমেনহোটেপ ছিলেন প্রাচীন মিশরের একজন ফারাও। মৃত্যু ১৩৩৬ খ্রিস্টপূর্ব। তাকে স্মরণ করার কারণ: তিনি মিশরে একেশ্বরবাদের সূচনা করেছিলেন। এবং তার একেশ্বরবাদ হিব্রুবাসী ইহুদিদের প্রভাবিত করেছিল। ইহুদিরা এককালে মিশরে বন্দি ছিল আমরা জানি। মুসা নবী তাদের মুক্ত করে সিনাই উপত্যকায় নিয়ে গিয়েছিলেন। মুসা নবীর ওপর চতুর্থ আমেনহোটেপ-এর প্রভাবের কথাও কেউ কেউ বলে থাকেন।
সে যা হোক। চতুর্থ আমেনহোটেপ-এর সময়ে মিশরজুড়ে আমুন-রে উপাসনা প্রচলিত ছিল। প্রাচীন মিশরের প্রধানতম দেবতা ছিলেন আমুন-রে। এমন কী তাকে থিবস নগরের রক্ষাকর্তাও মনে করা হত।
ফারাও চতুর্থ আমেনহোটেপ কী কারণে আমুন-রে উপাসনার পরিবর্তে একেশ্ববাদী “আতেন” উপাসনার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন। আতেনকে মনে করা হত আলোর জীবনদায়ী শক্তি। কাজেই আতেন ছিল সূর্যের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।
ফারাও চতুর্থ আমেনহোটেপ-এর আমুন-রে উপাসনার পরিবর্তে একেশ্বরবাদী আতেন উপাসনার সিদ্ধান্তে সমগ্র মিশরজুড়ে আমুন-রেপন্থি পুরোহিতদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। তারা একত্র হয়ে সশস্ত্র আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নেয়। ফারাও চতুর্থ আমেনহোটেপ পিছ-পা হননি। তিনি অসংখ্য আমুন-রেপন্থী উপাসনাকারী পুরোহিত ও আমুন-রে অনুসারীদের হত্যা করার নির্দেশ দেন!
একেশ্বরবাদ প্রতিষ্ঠায় রক্তপাতের সেই শুরু। যে ধারাটি আজও অব্যাহত।
এখন প্রশ্ন এই-হঠাৎ ফারাও চতুর্থ আমেনহোটেপ-এর আতেন পূজার ভূত চাপল কেন?
....তিনি আতেন শব্দটার প্রতি এমন গভীর আবেগ বোধ করলেন কেন? আতেনের প্রতি গভীর আবেগের বশবর্তী হয়ে ফারাও চতুর্থ আমেনহোটেপ তার নাম পরিবর্তনেরও সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন।
আমেনহোপেট থেকে আখেনাতেন।
আখেনাতেন মানে, “আতেন-এর দাস।”
তারপর আখেনাতেন মিশরের রাজধানী পরিবর্তন করার সিদ্ধান্ত নেন। মিশরের রাজধানী আগে ছিল থিবস, এখন নতুন রাজধানী হল- আখেটাটেন। আখেটাটেন মানে আতেন-এর দিগন্ত। (বর্তমানে এই জায়গাটির নাম আমারনা।)
ফারাও আখেনাতেন-এর উদ্যেগে ক্রমশ আখেটাটেন নগরটি হয়ে উঠল আতেন উপাসনার কেন্দ্রে। বিশাল বিশাল সব আতেন-মন্দির গড়ে তুললেন আখেনাতেন । ওদিকে আতনবাদী একেশ্বরবাদ প্রতিষ্ঠায় অসংখ্য আমুন-রে উপাসনাকারী পুরোহিত ও আমুন-রে অনুসারীদের গুমখুন চলছিল আখেনাতেন-এর নির্দেশে।
“আতেনের প্রতি সুমহান স্তব” নামে ধর্মীয়গ্রন্থও নাকি লিখেছিলেন ফারাও আখেনাতেন ।
আতেনপূজো হত খোলা সূর্যালোকে । বদ্ধ মন্দিরে নয়। আতেন মন্দিরে ছাদ ছিল না। চারিদিকে কলাম। মাঝখানে নেফারতিতি দুহাত তুলে দাঁড়িয়ে। নেফারতিতি? হ্যাঁ। নেফারতিতি ছিলেন আখেনাতেন-এর স্ত্রী। আজও সৌন্দর্যর জন্য বিখ্যাত হয়ে রয়েছেন নেফারতিতি। আতেন পূজায় আসক্ত ছিলেন জানা যায়। স্বামীর বিশ্বাসের বিরুদ্ধে কজন নারী যেতে পারে? অনুমান করি- খোলা সূর্যালোকে দাঁড়িয়ে স্বামীর সঙ্গে আতন উপাসনা করতেন নেফারতিতি । নেফারতিতি সম্ভবত তার স্বামীকে একটা প্রশ্ন করেননি-আতেন-এর জন্য এত রক্তপাত কেন?
আগেই বলেছি, আখেনাতেন-এর একেশ্বরবাদ হিব্র“বাসীদের প্রভাবিত করেছিল। মনোবিজ্ঞানী সিগমন্ড ফ্রয়েড “মেজেস অ্যান্ড মনোথেইজম” (মুসা ও একেশ্বরবাদ) নামে একটি বই লিখেছিলেন। ফ্রয়েডের মতে: মুসা ছিলেন আতনবাদী পুরোহিত; আখেনাতেন-এর মৃত্যুর পর তাঁর অনুসারীসহ তাকে মিশর থেকে নির্বাসিত করা হয়েছিল। ফ্রয়েডের মতে আখেনাতেন যা অর্জন করতে পারেননি-মুসা তাই পেরেছেন। ইহুদি ধর্মের সঙ্গে পরবর্তী সেমেটিক ধর্মসমূহের সাদৃশ্য স্পস্ট। কাজেই ইহুদিদের ঈশ্বর ও আখেনাতেন-প্রবর্তিত আতেন অভিন্ন।
কাজেই, মাঝে মাঝে আখেনাতেন কে আমার মৌলবাদের জনক বলেও মনে হয়।

সূত্র: উইকিপিডিয়া।
সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে সেপ্টেম্বর, ২০০৯ দুপুর ১২:৩১
১১টি মন্তব্য ৪টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আজকের ডায়েরী- ৯২

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩০ শে নভেম্বর, ২০২১ রাত ১:০১


ছবিঃ আমার তোলা।

আজ দুপুরে বাসায় রুই মাছ রান্না হয়েছে।
আমার চাচা বাসায় বিশাল এক রুই মাছ পাঠিয়েছেন। ওজন হবে সাড়ে পাঁচ কেজি। এত বড় মাছ বাসায় কাটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

ময়ূর সিংহাসন: পৃথিবীর সবচেয়ে দামী সিংহাসনের গল্প

লিখেছেন জুল ভার্ন, ৩০ শে নভেম্বর, ২০২১ সকাল ১০:২৩

ময়ূর সিংহাসন: পৃথিবীর সবচেয়ে দামী সিংহাসনের গল্প.......

সম্রাট শাহ জাহান সাংস্কৃতিক দিক থেকে ভারতবর্ষে মুঘল সাম্রাজ্যকে এক অনন্য অবস্থানে নিয়ে গেলেও ইতিহাস তাকে বিখ্যাত সব স্থাপত্য ও কীর্তির জন্য মনে রাখবে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

………..শুধু সেই সেদিনের মালী নেই!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ৩০ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৩২



আমি তখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র।

আমেরিকা প্রবাসী আমার বড় বোনের প্রথম সন্তান হবে। এই ধরাধামে আমাদের পরের জেনারেশানের প্রথম সদস্যের আবির্ভাব ঘটতে যাচ্ছে, আব্বা-আম্মা প্রথমবারের মতো নানা-নানী হতে যাচ্ছেন……...সবাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

এই প্রতিবাদী প্রজন্ম লইয়া আমরা কী করিব...

লিখেছেন বিচার মানি তালগাছ আমার, ৩০ শে নভেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৪৮




১. একজন ছাত্র মাসে কত টাকা খরচ করে বাস ভাড়ায়, আর কত টাকা খরচ হয় তার বেতন, জীবনযাপন, কোচিং বা শিক্ষা কার্যক্রমের জন্য কেউ কি এটা ভেবে... ...বাকিটুকু পড়ুন

কিছু বই না পড়া অন্যায়

লিখেছেন রাজীব নুর, ৩০ শে নভেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৪৪



১। স্কুলে 'হাজার বছর ধরে' আর ইন্টারে পড়েছি 'পদ্মা নদীর মাঝি'।
দুটোই পরকীয়া প্রেমের গল্প। হাজার বছর ধরে উপন্যাস নিয়ে সিনেমা হয়েছে। উপন্যাসে অঙ্কিত গ্রামের মানুষ গুলোর সকলের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×