somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ড্রাফট পোস্ট সিরিজ-১: সাভাক , ইরানের কুখ্যাত ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি

১৩ ই মে, ২০২০ সকাল ১১:৫৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

মৌলিক পোস্ট নয়, ব্লগে হাত খুলতে লগ ইন করা হলো বছরখানেক পরে. যেসব পোস্টার ড্রাফট তৈরী ছিল, সূত্র থেকে আক্ষরিক অনুবাদ /টেক্সট প্র্যারাফ্রেজ করে, কিন্তু নিজের ব্যস্ততার কারণে আপাতত পোস্টগুলোকে ঝালাই আর ক্লিনআপ করে ফুল পোস্ট দেয়ার সম্ভাবনা নেই, সেগুলোকে পাবলিশ করে দেব এক এক করে। লেখার কোয়ালিটি রক্ষা হবে না ,এই পোস্টে আমার ব্লগ আমলের চিরাচরিত মৌলিক লেখা নয়.

সাভাক, (জাতীয় প্রতিরক্ষা ও গোয়েন্দা সংস্থা) পাহলভি রাজবংশের কালে ইরানের গোপন পুলিশ।
যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইএ) এবং ইস্রায়েলি মোসাদের সহায়তায় মোহাম্মদ রেজা শাহ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।সাভাক ১৯৫৭ সাল থেকে ইরানের বিপ্লব শুরু হওয়ার সময় ইরানের বিপ্লব অবধি পরিচালিত হয়েছিল। পাহাভি শাসন বিরোধীদের নির্যাতন ও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ১৯৫৭ সালের বিপ্লবের পূর্বে সাভাককে ইরানের "সবচেয়ে ঘৃণ্য এবং ভয়ঙ্কর প্রতিষ্ঠান" হিসাবে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

১৯৫৩ সালে ইরান অভ্যুত্থানের পরে আমেরিকা ও যুক্তরাজ্য মোহাম্মদ মোসাদ্দেককে অপসারণ করেছিল, যিনি মূলত ইরানের তেল শিল্পকে জাতীয়করণের দিকে মনোনিবেশ করেছিলেন, তবে ১৯ আগস্ট, ১৯৫৩-এ শাহকে ক্ষমতা থেকে দূর্বল করার জন্যও প্রস্তুত ছিলেন। , রাজা মোহাম্মদ রেজা শাহ পুলিশ ক্ষমতা দিয়ে একটি গোয়েন্দা সেবা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। শাহের লক্ষ্য ছিল রাজনৈতিক বিরোধীদের নজরদারিতে রেখে এবং বিরোধী আন্দোলন দমন করে তাঁর শাসনব্যবস্থা শক্তিশালী করা।

সিআইএর পক্ষে কাজ করা একজন মার্কিন সেনা কর্নেলকে ১৯৫৩ সালের সেপ্টেম্বরে পারসিয়ায় পাঠানো হয়েছিল জেনারেল তৈমুর বখতিয়ারকে, যিনি ১৯৫৩ সালের ডিসেম্বরে তেহরানের সামরিক গভর্নর নিযুক্ত হন এবং সঙ্গে সঙ্গে একটি নতুন গোয়েন্দা সংস্থার তৈরী করা শুরু করেন। মার্কিন সেনা কর্নেল বখতর এবং তার অধস্তনদের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করেছিলেন, নতুন গোয়েন্দা সংস্থার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এবং এর সদস্যদের বুদ্ধি কৌশল, যেমন নজরদারি এবং জিজ্ঞাসাবাদের পদ্ধতি, গোয়েন্দা নেটওয়ার্কগুলির ব্যবহার এবং সাংগঠনিক সুরক্ষা সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন। এই সংস্থাটি ছিল পার্সিয়ায় পরিচালিত প্রথম আধুনিক, কার্যকর গোয়েন্দা পরিষেবা। এর প্রধান অর্জন ১৯৫৪ সালের সেপ্টেম্বরে ঘটেছিল, যখন এটি পারস্য সশস্ত্র বাহিনীতে প্রতিষ্ঠিত একটি বৃহত কমিউনিস্ট টুদেহ পার্টির নেটওয়ার্ক আবিষ্কার করে এবং ধ্বংস করে দেয়।

১৯৫৫ সালের মার্চ মাসে সেনাবাহিনীর কর্নেলকে আরও পাঁচটি ক্যারিয়ার সিআইএ অফিসারের আরও স্থায়ী দলের সাথে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল, যার মধ্যে গোপন তদন্ত, গোয়েন্দা বিশ্লেষণ, এবং পাল্টা লড়াইয়ের বিশেষজ্ঞরা ছিলেন, মেজর জেনারেল হারবার্ট নরম্যান শোয়ার্জকপফ যিনি "সাভাকের প্রথম প্রজন্মের কার্যত সমস্ত প্রশিক্ষণ করেছিলেন। কর্মীরা। "১৯৫৬ সালে এই সংস্থাটিকে পুনর্গঠিত করা হয় এবং সাজিমান-ইত্তেলাতে বা আমনিয়াত-ই কেশ্বর (সাভাক) নাম দেওয়া হয়েছিল।

সাভকের মিডিয়া সেন্সর করার ক্ষমতা, সরকারী চাকরীর জন্য আবেদনকারীদের স্ক্রিন করা এবং "নির্ভরযোগ্য পশ্চিমা উত্স অনুসারে, [অসন্তুষ্টির শিকার করার জন্য নির্যাতন সহ প্রয়োজনীয় সকল উপায় ব্যবহার করা হয়েছে।" ১৯৬৩-এর পরে শাহ সাভাক সহ তার সুরক্ষা সংস্থাগুলি প্রসারিত করেছিলেন, যা বেড়ে ৫,৩০০-এরও বেশি ফুলটাইম এজেন্ট

১৯৬১ সালে ইরানি কর্তৃপক্ষ সংস্থাটির প্রথম পরিচালক জেনারেল তৈমুর বখতিয়ারকে বরখাস্ত করে এবং পরে তিনি রাজনৈতিক বিরোধে পরিণত হন। ১৯৭০ সালে সাভাক এজেন্টরা তাকে হত্যা করে এবং একে দুর্ঘটনা বলে।

১৯৬১ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত সাভাকের পরিচালক জেনারেল হাসান পাকরওয়ান প্রায় দানশীল খ্যাতি অর্জন করেছিলেন, উদাহরণস্বরূপ খোয়ামিনী গৃহবন্দী থাকাকালীন আয়াতুল্লাহ খোমেনির সাথে সাপ্তাহিকভাবে খাওয়া, এবং পরে খোমেনীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার কারণেই হস্তক্ষেপ করেছিলেন "ইরানের সাধারণ মানুষকে ক্রুদ্ধ করবে"। ইরান বিপ্লবের পরে অবশ্য খোমেনি শাসনকর্তা কর্তৃক মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত শাহের প্রথম আধিকারিকদের মধ্যে পাকরওয়ান ছিলেন।

সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই মে, ২০২০ সকাল ১১:৫৪
৩টি মন্তব্য ৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

চট্রগ্রাম যে ভাবে বাংলাদেশের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ।

লিখেছেন দেশ প্রেমিক বাঙালী, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ সকাল ৯:১২


আরাকান আমলে চট্টগ্রাম বন্দরের সমৃদ্ধি ঘটলেও সে সময় দৌরাত্ম বেড়ে যায় পর্তুগীজ এবং মগ জলদস্যুদের। এরা চট্টগ্রামের আশেপাশে সন্দ্বীপের মত দ্বীপে ঘাঁটি গেড়ে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলে লুটপাট করত এবং... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রতিভা

লিখেছেন রাজীব নুর, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:৪৩



এক শকুনের বাচ্চা তার বাপের কাছে আবদার ধরলো-
বাবা, আমি মানুষের মাংস খেতে চাই, এনে দাও না প্লিজ!
শকুন বলল, ঠিক আছে ব্যাটা সন্ধ্যার সময় এনে দেব।

শকুন উড়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

গরুর নাড়ি ভুরি খাওয়া নিয়ে দ্বিধা জায়েজ /না জায়েজ

লিখেছেন মোঃ মাইদুল সরকার, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৩৭


কোরবানী বা ঈদ-উদ-আযহা এলে সারা পৃথিবীতে মুসলমানরা বিভিন্ন পশু কোরবানী করে থাকে। মাংস ও ভুড়ি খাওয়ার ধুম পড়ে। অনেকে আবার ভুড়ি খাননা বা খেতে চাননা কারণ খাওয়া ঠিক না বেঠিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

আলোচিত খুন , আলোচিত গুম, আলোচিত ধর্ষণ ও আলোচিত খলনায়ক।

লিখেছেন নেওয়াজ আলি, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ বিকাল ৩:৪০

মেজর সিনহাকে চারটা নাকি ছয়টা গুলি করেছে তা নিয়ে বিতর্ক করে কি লাভ এখন। তাকে নির্মম নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়েছে এটাই সত্য। আর এই হত্যা করেছে দেশের আইন শৃঙ্খলা... ...বাকিটুকু পড়ুন

৮ টি প্রয়োজনীয় ও বিনোদনমূলক ওয়েবসাইটের লিংক নিয়ে সামুপাগলা হাজির! (এক্কেরে ফ্রি, ট্রাই না করলে মিস! ;) )

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ১২ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪৬



করোনার সময়ে অনেকেই ঘরবন্দি অবস্থায় আছেন। বাচ্চাদের স্কুল বন্ধ। বড়দের অফিস চললেও অপ্রয়োজনীয় কাজে সচেতন মানুষেরা বাইরে যাচ্ছেন না। ইচ্ছেমতো বাইরে গিয়ে শপিং, ইটিং, ট্র্যাভেলিং করে ছুটির দিনটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×