somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আমার পরিচয়

সবার জন্য ভালোবাসা রইলো ।

আমার পরিসংখ্যান

আমার সকল পোস্ট (ক্রমানুসারে)

রম্যরচনা : আমার বোধিলাভ !!!

লিখেছেন গেছো দাদা, ১০ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ৮:৩৭

আজ একটু সকালে ঘুম ভেঙে গেল। দোকান আছে, যেতে হবে। সোফায় বসে হঠাৎ আধ্যাত্মিক ভাব এল। চোখ বন্ধ করে ভাবতে লাগলাম আমি ...

★১) আমি কে?

★২) কোথা থেকে এলাম?

★৩) কেন এলাম?

★৪) কোথায় যাবো?

ঠিক তখনই রান্নাঘর থেকে বৌ এর আওয়াজ ছিটকে এলো...

★১) এক নম্বরের অলস তুমি !

★২) না জানি কোন... বাকিটুকু পড়ুন

৩২ টি মন্তব্য      ৩৪৪ বার পঠিত     like!

রম্যরচনা : ভয়ঙ্কর বাংলা সিরিয়াল

লিখেছেন গেছো দাদা, ০৯ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১:১৬

বাংলা সিরিয়াল বড় ভয়ংকর জিনিস। কিছুক্ষণ দেখার পর সাংঘাতিক প্রতিক্রিয়া হয় আমার। আমি বুঝতে পারি পৃথিবী কী ভীষণ ভয়াবহ জায়গা! কেউ কারুর প্রেমিক বা বর অথবা প্রেমিকা বা বউকে কেড়ে নিতে চাইছে। ছলে-বলে-কৌশলে
কেউ কাউকে বিষ দিয়ে বা পুড়িয়ে বা অন্য কোনও ভাবে মেরে ফেলতে চাইছে। ভয়াল সান্নিপাতিক সব... বাকিটুকু পড়ুন

৯ টি মন্তব্য      ২১৩ বার পঠিত     like!

গল্প--ধ্বজভঙ্গ

লিখেছেন গেছো দাদা, ০৬ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:২৪

বসন্ত আমাদের ক্লাসে টপার ছিল না। দারুণ গান গাইত না, গিটার, কবিতা আবৃত্তি, কোনটাই করতে দেখিনি ওকে। ক্রিকেটটা খেলে নিত, তবে এমন আহামরি নয় যে ওকে মনে রাখা যায়। তবুও ওর নামটা মনে রাখার অন্য একটা কারণ আছে। ছেলেটা আমাদের থেকে অন্যরকম ভাবত, মানে একেবারে অন্যরকম। তখন একাদশ... বাকিটুকু পড়ুন

২০ টি মন্তব্য      ৩৪৬ বার পঠিত     like!

গল্প--সুখের ঘ্রাণ

লিখেছেন গেছো দাদা, ০৩ রা ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১১:৪৬

কলিং বেলটা অনেকক্ষণ ধরে বাজছে।
.
অন্ধকার আমার ভাল লাগে।
ছোটবেলায় রান্নাঘরে পাশে বসিয়ে মা রান্না করছিল। কখন জ্বলন্ত স্টোভের কাছে চলে গিয়ে গায়ে আগুন লাগিয়ে ফেলেছিলাম। লম্বা চিকিৎসার পর প্রাণে বাঁচলাম কিন্তু মুখটা পুড়ে বীভৎস হয়ে গেল।
তারপর থেকে আলোকে আমি ঘেন্না করি, আলো আমার শত্রু।
.
বাবা-মা পরপর চলে গেল। দাদা-বৌদির সংসারে... বাকিটুকু পড়ুন

১১ টি মন্তব্য      ১৩৫ বার পঠিত     like!

গল্প : অ্যাসিড

লিখেছেন গেছো দাদা, ০১ লা ডিসেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:২৫

রায়া আজ কলেজ যায়নি। কোনো কারণ নেই। এমনিই। এক একদিন এমন হয়! কিছুই করতে ইচ্ছে করে না। মনে হয় শুধু ল্যাদ খাই। আজ সেইরকম একটা দিন।
আজ শমীকের কথা খুব মনে পড়ছে। কেমন পালটে গেল শমীক। কী সব থার্ডক্লাস বন্ধু হয়েছে এখন। পড়া ছেড়ে দিল। সারাদিন কটা বদ ছেলের... বাকিটুকু পড়ুন

১০ টি মন্তব্য      ৭০ বার পঠিত     like!

না গল্প নয় !!

লিখেছেন গেছো দাদা, ২৯ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:০৬

সে খুব আস্তে আস্তে এগোচ্ছে ঘরের দেয়াল ঘেঁষে। তার বাইশ দিন বয়স। তার মা কদিন দুধ খাইয়েছে কিন্তু আজ তাকে ছেড়ে কোথায় চলে গেছে সে জানে না। সে জন্মেছে আরও সাতজন ভাই - বোনের সঙ্গে বাইশ দিন আগে। জন্মানোর সময় সে ছিল অন্ধ আর কালা। এমনকি গায়ে তার... বাকিটুকু পড়ুন

৫ টি মন্তব্য      ১০৩ বার পঠিত     like!

গল্প--সাদা - কালো প্রেম

লিখেছেন গেছো দাদা, ২৫ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:১৯

সবসময় মরার কথা ভাবে রিমি। কখন, কিভাবে সেটাই শুধু ঠিক করা বাকি।
যেদিন প্রথম পেটে সাদা দাগটা দেখেছিল, ভেবেছিল ছুলি-টুলি হবে, দ্রুত দাগটা বাড়তে থাকল। রিমি বুঝল এ ছুলি নয় শ্বেতি।বাবা মাকে বলতেই তাঁদের মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ল।মধ্যবিত্ত ঘরের কুমারী মেয়ের শ্বেতি?? বিয়ে হবে কেমন করে? বহু স্কিন স্পেশালিস্টকে দেখানো... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ১৫৩ বার পঠিত     like!

রম্যরচনা : জাঙিয়া

লিখেছেন গেছো দাদা, ২১ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:১৬

এখন হাফপ্যান্টেও চেন থাকে,ছোটোবেলায় আমাদের বোতাম ছিল। তিন বোতামের এক আধটা খসে যেত প্রায় প্রায়। স্কুল যাওয়ার ঠিক আগে সে শূন্যস্থান আবিষ্কার হতেই, শাঁখা থেকে সেফটিপিন খুলে মা টেঁকে দিত ততক্ষণাৎ। সন্তানের লজ্জা নিবারণে মায়ের এই first aid কার্যকরী ছিল নিঃসন্দেহে, কিন্তু যে কুস্থান রাখতে ঢাকতে এই তৎপরতা অধিকাংশ সময়ে... বাকিটুকু পড়ুন

২১ টি মন্তব্য      ৩৭৬ বার পঠিত     like!

রম্যরচনা : বউ, ফেসবুক, কবিতা এবং

লিখেছেন গেছো দাদা, ১৭ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:২৭

ফেসবুকের মেসেঞ্জার বড় ভয়ংকর জিনিস।
অঘোরে ঘুমাচ্ছি। মাঝরাতে হঠাৎ বেজে উঠল টুংটুং করে। ভয়েস কল। ফোন ধরলাম। সুদূর আসাম থেকে এক ফেসবুক বন্ধু বলল, "দাদা একটা কবিতা পাঠিয়েছি, পড়ে বলুন না কেমন হয়েছে?"
আমি বললাম, "এখন নয় পরে বলব।"
বলে ফোন কেটে দিলাম।
অমনি পাশ থেকে আমার স্ত্রী বলল, "এখন নয় পরে কী বলবে?"
সেরেছে!... বাকিটুকু পড়ুন

১৬ টি মন্তব্য      ২৩১ বার পঠিত     like!

লটারি

লিখেছেন গেছো দাদা, ১৬ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৪৬

তপেশ দার স্ত্রী: তোমার যদি 1কোটির লটারি লাগে, আর সেই দিনই আমায় কেউ কিডন্যাপ করে তোমার কাছে টাকা চায়, তাহলে তুমি কি করবে?
.
.
.
.
.
.
তপেশদার সপ্রতিভ উত্তর: ধূর! দুটো লটারি একসাথে লাগে নাকি? বাকিটুকু পড়ুন

৩ টি মন্তব্য      ১৪৮ বার পঠিত     like!

অদ্ভুত রহস্য: পৃথিবীর একমাত্র বায়োনিক চাইল্ড অলিভিয়া ।

লিখেছেন গেছো দাদা, ১৪ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:১২

...মেয়েটির শরীরে নেই ব্যথা, ঘুম ও খিদে।

তখন মেয়েটির বয়স সবে সাত বছর। মায়ের সঙ্গে সে হাঁটতে বের হয়। তবে কিছুতেই মায়ের হাত ধরবে না। নিজের খেয়াল মতো রাস্তা পার হতে গিয়ে ভয়ঙ্কর এক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে সে। ছোট্ট শরীরটাকে ধাক্কা মারার পর ঠেলতে ঠেলতে ১০০ ফুট দূরে নিয়ে গিয়েছিলো... বাকিটুকু পড়ুন

৭ টি মন্তব্য      ২৪৭ বার পঠিত     like!

একটি মিঞা কবিতা ‌।। (আসামের এনআরসি বিরোধী কবিতা)

লিখেছেন গেছো দাদা, ১২ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:০১

উৎসর্গ : রাষ্ট্রহীন যাঁরা ।

আমার কোন জন্মদিন নাই হে
ঘর বাড়িও নাই , একখান পেট আছে ,
কোনো কাগজ পত্তর‌ নাই ।

বন্যায় ভেসে গেছি , খরায় পুড়ে মরেছি
তোমারে ভোট দিয়ে রাজা করেছি ।
তুমি রাজা প্রমাণ আছে , আমি প্রজা ,
তার কোনো প্রমাণ নাই ।

দাঙ্গায় কাটা পরেছি , যুদ্ধে গুলি খেয়েছি
তোমার গোপন... বাকিটুকু পড়ুন

৭ টি মন্তব্য      ৯৯ বার পঠিত     like!

একটি সম্পূর্ণ কাল্পনিক গল্প।(বাবরি মসজিদ রায়ের সাথে এর কোনো মিল নেই।)

লিখেছেন গেছো দাদা, ১০ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১:০৪

এক গ্রামে দুটো লোক ছিল। একজনের নাম উনো, অন্যজনের নাম ঝুনো। উনোর ফলোয়ার একদল বাঁদর, যারা নিজেদের 'উনোবাদী' বলে৷ আর ঝুনোর ফলোয়ার একদল পাঁঠা, যারা নিজেদের 'ঝুনোবাদী' বলে৷ এই দুই দলই বেশ ইউনিক, কারণ বাঁদরগুলোর পাঁঠামি সর্বজনবিদিত, এবং পাঁঠাগুলো বাঁদরামিতে ডক্টরেট৷

যাই হোক, তো গ্রামে এক জায়গায় তিন একর জমি ছিল।... বাকিটুকু পড়ুন

৭ টি মন্তব্য      ২৩০ বার পঠিত     like!

বাস্তবের গল্প --অসহায়

লিখেছেন গেছো দাদা, ০৭ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৩২


চুল কাটাতে গেছি এক নামি ইউনিসেক্স পার্লারে.. চুলের বংশ ধ্বংস হবার পালা আসার অপেক্ষায় বসে আছি.. এক ভদ্রমহিলা এলেন, যা বুঝলাম, আগেই এপয়েন্টমেন্ট নেওয়া ছিলো ওনার.. শ্যামলা, সাধারণ চেহারা, আলাদা করে চোখে পড়ার মতো তেমন কিছুই নেই.. শুধু যেটা লক্ষ্যণীয়..মহিলার কোমর ছাপানো এক ঢাল চুল,এই বব আর স্ট্রেইটনিং এর... বাকিটুকু পড়ুন

১৪ টি মন্তব্য      ২৯১ বার পঠিত     like!

বৌদির খরচ

লিখেছেন গেছো দাদা, ০৬ ই নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১০:৫৬

অনির এক খ্যাচ দাদা অনিরে একদিন.. আর কইস না রে অনি, তর বৌদির খরচের হাত খুব বাড়সে.. দু দিন পর পর ই হাজার দু হাজার ট্যাহা চায় !.. দাদা খুব চিন্তিত !

অনি.. তা বৌদি এতো ট্যাহা দিয়া করে টা কি !

কি জানি কি করে.. কোনোদিন তো দিয়া দেহি নাই !..... বাকিটুকু পড়ুন

৩ টি মন্তব্য      ১৩৮ বার পঠিত     like!
আরো পোস্ট লোড করুন
ব্লগটি ৪৫০৮৫ বার দেখা হয়েছে

আমার পোস্টে সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার করা সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার প্রিয় পোস্ট

আমার পোস্ট আর্কাইভ