somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বাবরি মসজিদ ও লোভী ভারতের পর্যটন শিল্প

০৯ ই নভেম্বর, ২০১৯ বিকাল ৫:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


চিত্রঃ [বাবরি মসজিদ]

ভারতের বাবরি মসজিদ নিয়ে আজ ঐতিহাসিক রায় হয়েছে, যা ভারতে সুদীর্ঘ সময় নিয়ে আলোচিত-সমালোচিত ইস্যু। এ নিয়ে কয়েক দফা দাঙ্গায় প্রায় কয়েক হাজার মানুষ মারা যায়। দাঙ্গার বিষয়টা ভারতের জন্য সাধারণ একটা ইস্যু হলেও বাবরি মসজিদ নিয়ে দাঙ্গাটা সাধারণ কোন ইস্যু নয়।
এ রায়ে ভারত রাষ্ট্র হিসেবে বিচক্ষণতার প্রমাণ দিতে পারতো, কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছে।
আগে যা ছিলো তা আলাদা ব্যাপার। মন্দিরের স্থানে মসজিদ নাকি মসজিদের স্থানে মন্দির সেটা অতীত হয়ে গেছে। বর্তমান নিয়ে ভাবতে পারতো ভারত। বিতর্কিত এ জমিতে কাউকেই মসজিদ বা মন্দির স্থাপনের নির্দেশ না দিয়ে বাজেয়াপ্ত করতে পারতো। সেটাই হতো সবচেয়ে মানবিক। কিন্তু তারা না করে একপাক্ষিক রায় দিয়ে নিজেদের কলুষিত করেছে।

মানছি, রাষ্ট্রের জমি রাষ্ট্রের যেভাবে ইচ্ছে সেভাবে ব্যবহার করার নৈতিক অধিকার রয়েছে। কিন্তু বিচক্ষণতার প্রমাণ দিতে যৌক্তিকতার আশ্রয় নিতে পারতো। কারোপক্ষে রায় না দিয়ে জমিটি বাজেয়াপ্ত করলে কারোরই কিছু করার থাকতো না। এক্ষেত্রে উভয় গ্রুপই মানতে বাধ্য হতো। পাশাপাশি চিরস্থায়ী একটা সমস্যার চিরস্থায়ী সমাধান দেয়া সম্ভব হতো।

দেখা যাক সামনে কি হয়!
দাঙ্গা-হাঙ্গামা ইন্ডিয়ানদের জন্য একেবারে পান্তাভাত।

* বাবরি মসজিদ ছিল ভারতের উত্তর প্রদেশের, ফৈজাবাদ জেলার অযোধ্যা শহরের রামকোট হিলের উপর অবস্থিত একটি প্রাচীন মসজিদ। ১৯৯২ সালে একটি রাজনৈতিক সমাবেশের উদ্যোক্তারা ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের আদেশ অনুযায়ী মসজিদ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না এই প্রতিশ্রুতি দিয়ে মসজিদ সংলগ্ন এলাকায় একটি রাজনৈতিক সমাবেশ শুরু করে যা ১৫০,০০০ জন সম্মিলিত একটি দাঙ্গার রূপ নেয় এবং মসজিদটি সম্পূর্ণরূপে ভূমিসাৎ করা হয়। ফলস্বরূপ ওই একই সালে ভারতের প্রধান শহরগুলোতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সংঘটিত হয় যা মুম্বাই ও দিল্লী শহরে ২০০০ মানুষের প্রাণ কেড়ে নেয়।

* ঐতিহাসিক এ মসজিদটি নির্মাণ করা হয় ১৫২৮ সালে। মোগল সম্রাট বাবরের সময়ে, তারই নির্দেশে। মোগল আমলে মূলত ভারতের আধুনিক স্থাপনা তৈরি শুরু হয়। বর্তমান সময়ের বিপুল অর্থাহরণকারী ঐতিহাসিক স্থাপনার বেশিরভাগই মোগল আমলে তৈরি হওয়া। যা নির্মানের কয়েকশত বছর পর উগ্রহিন্দুদের আক্রোশের স্বীকার হয়ে ধ্বংস হয়ে যায়।

মসজিদটি তাজমহল, লালকেল্লা কিংবা কুতুব মিনারের মত গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা হলে কি ভারত সরকার কিংবা উগ্রহিন্দুরা তা কি ভেঙ্গে ফেলতো?
নিঃসন্দেহে তখন ভারত সরকার কিংবা ভারতের উগ্রহিন্দুত্ববাদীদের মুখে থাকতো অন্যসুর। যেখানে লালকেল্লা, কুতুব মিনার, তাজমহল সহ বিভিন্ন স্থাপনা থেকে অর্থ আসছে সেখানে বাবরি মসজিদ ততোটা গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ছিলো না সেখান থেকে কোন অর্থও আসতো না। তাই সেটা ভেঙ্গে ফেলেছে।
অথচ কুতুব মিনার প্রাচীন হিন্দু মন্দিরের ধ্বংসাবশেষের পাথর দিয়ে কুতুব কমপ্লেক্স এবং মিনারটি তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু উগ্রহিন্দুরা তো সেটা ভাঙ্গছে না! কেন ভাঙ্গছেনা সেটা বুঝতে ভুল হওয়ার কথা নয়।

ভারতের পর্যটন শিল্পের কিছু লাভজনক মোগল স্থাপনাঃ
তাজমহলঃ


চিত্রঃ তাজমহল

তাজমহলে বর্তমানে ২ থেকে ৩ মিলিয়ন পর্যটক আসে যার মধ্যে ২,০০,০০০ পর্যটক বিদেশী, যা ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র। সবচেয়ে বেশি পর্যটক আসে ঠান্ডা মৌসুমে অক্টোবর, নভেম্বর ও ফেব্রুয়ারি মাসে।
* বর্তমানে তাজ দর্শনের খরচ ভারতীয়দের জন্য মাত্র ৪০ টাকা।। সার্ক দেশের পর্যটকদের জন্য তাজের প্রবেশমূল্য ৫৩০ টাকা। আর বাকি বিশ্বের জন্য তা ১০০০ টাকা।

কুতুব মিনারঃ


চিত্রঃ কুতুব মিনার

ভারতের দিল্লিতে অবস্থিত একটি স্তম্ভ বা মিনার, যা বিশ্বের সর্বোচ্চ ইটনির্মিত মিনার। এটি কুতুব কমপ্লেক্সের মধ্যে অবস্থিত, প্রাচীন হিন্দু মন্দিরের ধ্বংসাবশেষের পাথর দিয়ে কুতুব কমপ্লেক্স এবং মিনারটি তৈরি করা হয়েছে। ভারতের প্রথম মুসলমান শাসক কুতুবুদ্দিন আইবেকের আদেশে কুতুব মিনারের নির্মাণকাজ শুরু হয় ১১৯৩ খ্রিষ্টাব্দে, তবে মিনারের উপরের তলাগুলোর কাজ সম্পূর্ণ করেন ফিরোজ শাহ তুঘলক ১৩৮৬ খ্রিষ্টাব্দে। ভারতীয়-মুসলিম স্থাপত্যকীর্তির গুরুত্বপূর্ণ এবং অন্যতম প্রাচীন নিদর্শন হিসেবে কুতুব মিনার গুরত্বপূর্ণ।
* এই কমপ্লেক্সটি ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্ব ঐতিহ্য স্থান হিসেবে তালিকাবদ্ধ হয়েছে এবং এটি দিল্লির অন্যতম জনপ্রিয় পর্যটন-গন্তব্য। এটি ২০০৬ সালে সর্বোচ্চ পরিদর্শিত সৌধ, পর্যটকের সংখ্যা ছিল ৩৮.৯৫ লাখ যা তাজমহলের চেয়েও বেশি, যেখানে তাজমহলের পর্যটন সংখ্যা ছিল ২৫.৪ লাখ।

লাল কেল্লাঃ


চিত্রঃ লালকেল্লা

খ্রিষ্টীয় সপ্তদশ শতাব্দীতে প্রাচীর-বেষ্টিত পুরনো দিল্লি (অধুনা দিল্লি, ভারত) শহরে মুঘল সম্রাট শাহজাহান কর্তৃক নির্মিত একটি দুর্গ। ১৮৫৭ সাল পর্যন্ত এই দুর্গটি ছিল মুঘল সাম্রাজ্যের রাজধানী।
* বর্তমানে এটি একটি জনপ্রিয় পর্যটনকেন্দ্র এবং ভারতীয় প্রজাতন্ত্রের সার্বভৌমত্বের একটি শক্তিশালী প্রতীক। প্রতি বছর ভারতীয় স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে ভারতের প্রধানমন্ত্রী লালকেল্লার লাহোরি গেটসংলগ্ন একটি স্থানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে থাকেন। ২০০৭ সালে লালকেল্লা ইউনেস্কো বিশ্বঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে নির্বাচিত হয়।
* লালকেল্লা পুরনো দিল্লির সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় দর্শনীয় স্থান। প্রতিবছর সহস্রাধিক পর্যটক এই কেল্লাটি দেখতে আসেন। বর্তমানে সন্ধ্যায় লাইট অ্যান্ড সাউন্ড শো’র মাধ্যমে কেল্লায় মুঘল ইতিহাসের প্রদর্শনী করা হয়।
[ সূত্রঃ উইকিপিডিয়া]

এরকম হাজারো মোগল-মুসলিম স্থাপনা রয়েছে ভারতের ৩২,৮৭,৫৯০ কিমি. এর মধ্যে। যা চারিদিকে শুধু আলো উজ্জ্বলতার দ্যুতি ছড়াচ্ছে। যেটা ছড়াচ্ছে না সেটার পরিণতি বাবরি মসজিদের মত হচ্ছে।

বাবরি মসজিদ নিয়ে উগ্রহিন্দুদের রাজনীতির কিছু নমুনাঃ
১৮৫৩ : এ মসজিদ নিয়ে প্রথম সহিংসতা ঘটনা ঘটে। তখন ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক প্রশাসন দুই ধর্মের উপাসনার জায়গা আলাদা করার উদ্দেশ্যে বেষ্টনী তৈরি করে। বেষ্টনীর ভেতরের চত্বর মুসলিমদের জন্য এবং বাইরের চত্বর হিন্দুদের ব্যবহারের জন্য নির্ধারিত হয়।
১৯৪৯: মসজিদের ভেতর ইশ্বর রামের মূর্তি দেখা যায়। হিন্দুদের বিরুদ্ধে মূর্তিগুলো রাখার অভিযোগ ওঠে। মুসলিমরা প্রতিবাদ জানায় এবং দুই পক্ষই দেওয়ানি মামলা করে। সরকার ঐ চত্বরকে বিতর্কিত জায়গা বলে ঘোষণা দেয় এবং দরজা বন্ধ করে দেয়।
১৯৮৪: বিশ্ব হিন্দু পরিষদের (ভিএইচপি) নেতৃত্বে ইশ্বর রামের জন্মস্থান উদ্ধার এবং তার সম্মানের একটি মন্দির প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে একটি কমিটি গঠন করে হিন্দুরা। তৎকালীন বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদভানি (পরবর্তীতে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী) ঐ প্রচারণরা নেতৃত্ব নেন।
১৯৮৬: জেলার বিচারক আদেশ দেন যেন বিতর্কিত মসজিদের দরজা উন্মুক্ত করে দিয়ে হিন্দুদের সেখানে উপাসনার সুযোগ দেয়া হয়। মুসলিমরা এর প্রতিবাদে বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটি গঠন করে।
১৯৮৯: বিতর্কিত মসজিদ সংলগ্ন জায়গায় রাম মন্দিরের ভিত্তি স্থাপান করে নতুন প্রচারণা শুরু করে ভিএইচপি।
১৯৯০: ভিএইচপি'র কর্মীরা মসজিদের আংশিক ক্ষতিসাধন করে। প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখর আলোচনার মাধমে বিতর্ক সমাধানের চেষ্টা করলেও তা পরের বছর বিফল হয়।
১৯৯১: অযোধ্যা যে রাজ্যে অবস্থিত, সেই উত্তর প্রদেশে ক্ষমতায় আসে বিজেপি।
১৯৯২: ভিএইচপি, বিজেপি এবং শিব সেনা পার্টির সমর্থকরা মসজিদটি ধ্বংস করে। এর ফলে পুরো ভারতে হিন্দু ও মুসলিমদের মধ্যে হওয়া দাঙ্গায় ২ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়।
১৯৯৮: প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ির অধীনে জোট সরকার গঠন করে বিজেপি।
২০০১: মসজিদ ধ্বংসের বার্ষিকীতে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। ঐ স্থানে আবারো মন্দির তৈরির দাবি তোলে ভিএইচপি।
জানুয়ারি ২০০২: নিজের কার্যালয়ে অযোধ্যা সেল তৈরি করেন প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ি। সিনিয়র কর্মকর্তা শত্রুঘ্ন সিংকে নিয়োগ দেয়া হয় হিন্দু ও মুসলিম নেতাদের সাথে আলোচনার জন্য।
ফেব্রুয়ারি ২০০২: উত্তর প্রদেশের নির্বাচনের তফসিলে মন্দির তৈরির বিষয়টি বাদ দেয় বিজেপি। ভিএইচপি ১৫ই মার্চের মধ্যে মন্দির নির্মানকাজ শুরু করার ঘোষণা দেয়। শত শত স্বেস্বচ্ছাসেবক বিতর্কিত স্থানে জড়ো হয়। অযোধ্যা থেকে ফিরতে থাকে হিন্দু অ্যাক্টিভিস্টদের বহনকারী একটি ট্রেনে হামলার ঘটনায় অন্তত ৫৮ জন মারা যায়।
মার্চ ২০০২: ট্রেন হামলার জের ধরে গুজরাটে হওয়া দাঙ্গায় ১ হাজার থেকে ২ হাজার মানুষ মারা যায়।
এপ্রিল ২০০২: ধর্মীয়ভাবে পবিত্র হিসেবে বিবেচিত জায়গাটির মালিকানার দাবিদার কারা, তা নির্ধারণ করতে তিনজন হাইকোর্ট বিচারক শুনানি শুরু করেন।
জানুয়ারি ২০০৩: ঐ স্থানে ইশ্বর রামের মন্দিরের নিদর্শন আছে কিনা, তা যাচাই করতে আদালতের নির্দেশে নৃতত্ববিদরা জরিপ শুরু করেন।
অগাস্ট ২০০৩: জরিপে প্রকাশিত হয় যে মসজিদের নিচে মন্দিরের চিহ্ন রয়েছে, কিন্তু মুসলিমরা এই দাবির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে। হিন্দু অ্যাক্টিভিস্ট রামচন্দ্র পরমহংসের শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ি বলেন তিনি মৃত ব্যক্তির আশা পূরণ করবেন এবং অযোধ্যায় মন্দির তৈরি করবেন। তবে তিনি আশা প্রকাশ করেন যে আদালতের সিদ্ধান্তে এবং আলোচনার মাধ্যমে এই দ্বন্দ্বের সমাধান হবে।
সেপ্টেম্বর ২০০৩: বাবরি মসজিদ ধ্বংসের পেছনে উস্কানি দেয়ায় সাত জন হিন্দু নেতাকে বিচারের আওতায় আনা উচিত বলে রুল জারি করে একটি আদালত। তবে সেসময়কার উপ-প্রধানমন্ত্রী লালকৃষ্ণ আদভানির - যিনি ১৯৯২ সালে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন - বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আনা হয়নি।
অক্টোবর ২০০৪: বিজেপি নেতা আদভানি জানান তার দল এখনও অযোধ্যায় মন্দির প্রতিষ্ঠা করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং তা 'অবশ্যম্ভাবী।
নভেম্বর ২০০৪: উত্তর প্রদেশের একটি আদালত রায় দেয় যে মসজিদ ধ্বংস করার সাথে সম্পৃক্ত না থাকায় মি. আদভানিকে রেহাই দিয়ে আদালতের জারি করা পূর্ববর্তী আদেশ পুনর্যাচাই করা উচিত।
জুলাই ২০০৫: সন্দেহভাজন ইসলামি জঙ্গীরা বিস্ফোরক ভর্তি একটি জিপ দিয়ে বিতর্কিত স্থানটিতে হামলা চালিয়ে সেখানকার চত্বরের দেয়ালে গর্ত তৈরি করে। নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনী'র হাতে নিহত হয় ছয়জন, যাদের মধ্যে পাঁচজনই জঙ্গি বলে দাবি করে নিরাপত্তা রক্ষীরা।
জুন ২০০৯: মসজিদ ধ্বংস হওয়া সম্পর্কে অনুসন্ধান করতে থাকা লিবারহান কমিশন তদন্ত শুরু করার ১৭ বছর পর তাদের প্রতিবেদন জমা দেয়।
নভেম্বর ২০০৯: প্রকাশিত লিবারহান কমিশনের প্রতিবেদনে মসজিদ ধ্বংসের পেছনে বিজেপি'র শীর্ষ রাজনীতিবিদদের ভূমিকার বিষয়টি উল্লেখ করা হয় এবং এনিয়ে সংসদে হট্টগোল হয়।
সেপ্টেম্বর ২০১০: এলাহাবাদ হাইকোর্ট রায় দেয় যে স্থানটির নিয়ন্ত্রণ ভাগাভাগি করে দেয়া উচিত। কোর্টের রায় অনুযায়ী এক-তৃতীয়াংশের নিয়ন্ত্রণ মুসলিমদের, এক-তৃতীয়াংশ হিন্দুদের এবং বাকি অংশ 'নির্মোহী আখারা' গোষ্ঠীর কাছে দেয়া উচিত। যেই অংশটি বিতর্কের কেন্দ্র, যেখানে মসজিদ ধ্বংস করা হয়েছিল, তার নিয়ন্ত্রণ দেয়া হয় হিন্দুদের কাছে। একজন মুসলিম আইনজীবী বলেন যে এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।
মে ২০১১: ২০১০ সালের রায়ের বিরুদ্ধে হিন্দু ও মুসলিম দুই পক্ষই আপিল করায় হাইকোর্টের পূর্ববর্তী রায় বাতিল করে সুপ্রিম কোর্ট ।
নভেম্বর ২০১৯: সে জায়গাটিতে মন্দির তৈরির পক্ষেই চূড়ান্ত রায় দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।
[সূত্রঃ বিবিসি]

আজকের ঐতিহাসিক রায়ের মাধ্যমে ভারতের নৈতিক পরাজয় ঘটেছে বলে ধারণা করতে দোষ নেই।
সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই নভেম্বর, ২০১৯ সকাল ১০:৪৪
৮টি মন্তব্য ৮টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

প্রসঙ্গ নবীর কার্টুন

লিখেছেন রাবব১৯৭১, ২৬ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৮:৪০

নবী মুহাম্মদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কোন ছবি নেই বা কোন মুর্তি নেই । এখন কেউ যদি মনগড়া কোন ছবি অংকন করে আর সেটাকে মহাম্মদের ছবি বলে, আমরা মানবো কেন? সেটাকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমি ভালো আছি (আলহামদুলিললাহ)

লিখেছেন রাবেয়া রাহীম, ২৬ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ৯:৩৯

আলহামদুলিললাহ । সমস্ত প্রশংসা মহান আল্লাহ পাকের । তিনি আমাকে-আপনাদের সুস্থ রেখেছেন । ভালো রেখেছেন। কিছু দিন আগে নিজের মৃত্যু সংবাদ শুনে খারাপ লাগেনি একটুও বরং ভালোই লেগেছে। কারন একদিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

ফ্রান্সের ভিতর থেকেই প্রতিবাদ আসবে....আসবেই

লিখেছেন সত্যপথিক শাইয়্যান, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ রাত ১২:৩৬

নেপোলিয়ন, নস্ট্রাডামুস, জুলভার্ন, জিদান, ভল্টেয়ারের দেশ ফ্রান্স এ কি করছে!!!
.
ফ্রান্সের ইতিহাস রাজনৈতিক হানাহানিতে ভরা। তাদের রাজারা জনগণের উপরে খুব অত্যাচার করতো...অসভ্য একটি দেশ ছিলো এক সময়ে। সেই দেশ উগ্রতা ছড়িয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

এই আমি আর নেই সেই আমি!!!

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ দুপুর ১:১৫



আমার একটা অভ্যাস আছে। বদ অভ্যাসও বলতে পারেন। সেটা হলো, সুযোগ পেলে আমার পুরানো লেখাগুলোতে মাঝে মধ্যে চোখ বুলানো। তবে, লেখাতে যতোটা মনোযোগ দেই, তার চাইতে বেশী মনোযোগ দিয়ে পড়ি... ...বাকিটুকু পড়ুন

চিলেকোঠার প্রেম- ১৩

লিখেছেন কবিতা পড়ার প্রহর, ২৭ শে অক্টোবর, ২০২০ বিকাল ৪:২৫


দিন দিন শুভ্র যেন পরম নিশ্চিন্ত হয়ে পড়ছে। পরীক্ষা শেষ। পড়ালেখাও নেই, চাকুরীও নেই আর চাকুরীর জন্য তাড়াও নেই তার মাঝে। যদি বলি শুভ্র কি করবে এবার? সে বলে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×