somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

মাসউদুর রহমান রাজন
আমি মাসউদুর রহমান, আব্বা আম্মা ডাকেন রাজন নামে। একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে পারফর্মিং আর্টস-এর শিক্ষক। ফিল্মমেকিং, অভিনয়, পাবলিক স্পিকিং, প্যান্টোমাইম- এইসব বিষয় পড়াই। এর আগে স্কুলে মাস্টারি করতাম। শিক্ষকতা আমার খুব ভালোবাসার কাজ।

যারা এই ভ্যাকসিনকে ভিক্ষা বলে মূল্যায়ন করেন... একটু শুনবেন

২২ শে জুলাই, ২০২১ দুপুর ২:৫৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


সপ্তাহ তিনেক আগে আমার করোনার প্রাথমিক সকল পদের আলামতসহ জ্বর দেখা দেয়। ডাক্তার কইলেন টেস্ট করাইতে। জেনারেল হাসপাতালে চইলা যান। সকাল সকাল যাইবেন। খুব ভীড় হইব। আমি চিন্তা করলাম, প্রাইভেট ক্লিনিকে ট্রাই কইরা দেখি, যদি ওইখানে করা যায়, তাইলে আর সরকারী হাসপাতালে গিয়া লম্বা লাইন ধরা লাগবে না। যথারীতি একটা ক্লিনিকে কল দিলাম যারা কোভিড টেস্ট করায়। এরা আমার কল রিসিভ কইরা আমারে “স্যার” বইলা সম্বোধন করলো, সকাল নয়টা থেকে বিকাল ৫টার মইধ্যে আমার সুবিধামতো যাইতে কইলো। জিগাইলাম খরচ কত? সে কইলো প্রতিবার টেস্ট ৩০০০ টাকা। আমার তো চক্ষু চড়কগাছ। কয় কি? এত টাকা দিয়া তো টেস্ট করানো সম্ভব হইলেও তো করামু না। পরদিন সকালে সরকারী হাসপাতালে গিয়া ১০০ টাকা দিয়া টেস্ট করায়া আসছি। এক ঘণ্টা লাইনে দাঁড়াইতে হইছে। যেই মানুষগুলার সাথে লাইনে দাঁড়াইছিলাম এদের বেশিরভাগরে দেখলেই বুঝা যায় এদের পক্ষে কখনোই ৩০০০ টাকা দিয়া টেস্ট করানো সম্ভব হইতো না। যাই হোক, আমার রেজাল্ট নেগেটিভ আইছে। মালিকের মেহেরবানী।

সিম্পল করোনা টেস্ট, সরকারি-বেসরকারি টেস্ট ফির রেশিও ১ঃ৩০! পার্থক্যটা ভাবা যায়?

এবার ভ্যাকসিনের ব্যাপারে আসি। গত ফেব্রুয়ারি থেকে আজকে পর্যন্ত এক কোটি ১০ লাখ মানুষ ভ্যাক্সিনেশনের আওতায় আসছে, যার মধ্যে ৪২ লক্ষ জন দুই ডোজ পূর্ণ করেছেন । নানা ধরণের জটিলতা থাকা সত্ত্বেও সরকার এখনো নানা জায়গা থেকে ভ্যাকসিন জোগাড় করছে যা অনেকের ভাষায় ভিক্ষা করে জোগাড় করছে। মাঝখানে ভ্যাকসিনের অভাবে টিকাদান কার্যক্রম বন্ধ হইয়া গেছিলো। ইদানিং আমেরিকাসহ বেশ কয়েকটা দেশ থেকে বড় কয়েকটা চালান আসছে। সামনে চীন থেকে সরকার দেড় কোটি ডোজ সিনোফার্মের টিকা কেনার সবকিছুই চূড়ান্ত। আগামী তিন মাসে প্রতিমাসে ৫০ লাখ ডোজ করে আসার কথা। সরকার চাইলেই এত ঝামেলা না কইরা প্রাইভেট অনেকগুলা প্রতিষ্ঠানরে দিয়া আমদানী করায়া কিছু প্রাইভেট ক্লিনিকরেও নিজেদের মতো টিকা দেয়ার পারমিশন দিতে পারতো। তাইলে কি হইতো?
১. প্রতিটা টিকা আপনারে আমারে ৩০-৪০ হাজার টাকায় কিনতে হইতো।
২. স্বাস্থ্যের সাথে জড়িত সরকারী কর্মচারিরা সরকারি টিকা গোপনে বেইচা দিত (অনেকে বলেন, এখনও তারা তা অল্পবিস্তর করতেছেন, এ ব্যাপারে কোন অথেনটিক সূত্র পাওয়া যায় নাই, তবে ব্যাপারটা অসম্ভব কিছু না।)
৩. কিছু গোপন কারখানায় নকল টিকা উৎপাদিত হইতো। আপনি আমি শরীরের ভিতরে পানি পুশ কইরা টিকা দিছি ভাইবা শান্তি পাইতাম।
৪. জাতি হিসাবে আমরা ভালই দুর্নীতিবাজ হইয়া উঠছি। এ নিয়ে আরো বহুত কিসিমের দুর্নীতির ঘটনা ঘটতো, ত্রাণের ঘটনার মতোন।

সরকার মহাজন এসবের সুযোগ না দিয়া এখনো পর্যন্ত টিকাদান কর্মসূচির নিয়ন্ত্রণ সম্পূর্ণরূপে নিজের হাতে রাইখা দিছেন এবং নানা জায়গা থেকে ভিক্ষা কইরা টিকার ব্যবস্থা করতেছেন। অনেকেই কইতাছেন রিজার্ভে অনেক টাকা আছে, টিকা কিন্যা তাড়াতাড়ি মাইরা দেয়া উচিৎ সরকারের। ১৭ কোটি মানুষের জন্য ৩৪ কোটি ডোজ টিকা দরকার। এই বিপুল পরিমাণ টিকা যদি কিনা লাগে তাইলে বিশাল অংকের ডলার রিজার্ভ থেকে দিতে হবে। মনে রাখতে হবে আমাদের শুধু করোনার টিকার সংকট মোকাবেলা করলেই হবে না, এই সংকট চলাকালীন ও করেনা পরবর্তী সময়ের প্রস্তুতিও রাখা দরকার। রিজার্ভ একটা ভরসার জায়গা। তাই যত বেশি পরিমাণ টিকা সাহায্য বা উপহারের নামে গ্রহণ করা যায়, ততটাই সঞ্চয়। এটা সরকারের একটা পলিসিও হইতে পারে।

সিনোফার্মের টিকার দাম পড়বে প্রায় ১০ ডলার কইরা। যদিও আগে ৫ ডলারে ভারতের সেরাম থেকে প্রথমবার টিকা আমদানী করার সময় টিকার অতিরিক্ত দাম নিয়ে অনেকেই অনেক কিছু কইছিলেন, তবে তারা এখন চুপ। যাই হোক, ১০ ডলার হিসাবে এক এক নাগরিকের জন্য ২০ ডলারের টিকা লাগবে। সাথে সেই টিকার পরিবহণ ও মেইটেইনেন্স খরচও আছে। ৩৪ কোটি ডোজ মানে ডলারের অংকটা বুঝতে পারতেছেন। এক কোটি টিকাও যদি উপহার হিসেবে, অনেকের ভাষায় যা ভিক্ষা, আনা যায় তাহলে আমাদের রাষ্ট্রের একটা বড় অংকের টাকা বাইচ্যা যাবে। এই ভিক্ষার পরিমাণটা যতটা বাড়ানো যায়, ততটাই মঙ্গল। হয়তো টিকা আমদানীতে যা কিছুটা সময়ক্ষেপণ তার একটা কারণ এইটা।

সম্প্রতি ভিক্ষায় পাওয়া টিকার একটা সোর্স নিয়া কথা বলি। আমেরিকার কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গ্লোবাল একসেস (কোভেক্স) কর্মসূচির আওতায় এই পর্যন্ত ৫৬ লাখ ভ্যাকসিন পাইছে বাংলাদেশ। সম্ভবত গত সপ্তাহে সর্বশেষ ৩০ লাখ ডোজ মর্ডানার টিকা এসে পৌঁছায়। তবে এই টিকার পেছনে বাংলাদেশের ৪ জন প্রবাসি আমেরিকান বাংলাদেশির সরাসরি অবদান জড়িত। অনেক বাংলাদেশিই আমেরিকায় স্থায়িভাবে আছেন, যারা ওইখানে বইসা টিকা নিয়া, শেখ হাসিনা সরকারের ভূমিকা নিয়া এইখানে, ওইখানে, ব্লগে, সামুতে বাগাড়ম্বর কইরা সরকারের ১৪ গুষ্ঠি উদ্ধার কইরা ফেলতেছেন। কিন্তু কাজের বেলায় নাই। তাদের মতো এই চার জন এই প্রশ্ন ভাবেন নাই যে, সরকারের রিজার্ভে তো অনেক টাকা, টিকা তো কিনতেই পারে, ভিক্ষা চাওয়ার দরকার কী? এই চার মহৎ ব্যক্তি হইলেন, কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. চৌধুরী হাফিজ আহসান, কার্ডিওলজিস্ট প্রফেসর ডা. মাসুদুল হাসান, নেফ্রলজিস্ট প্রফেসর ডা. জিয়াউদ্দিন আহমেদ সাদেক ও সাবেক সিনিয়র ইউএন অফিসিয়াল মাহমুদ উস শামস চৌধুরী (আহা একজনের নামের লগে আমার নামের মিল আছে)। এই চারজনের একান্ত ব্যক্তিগত উদ্যোগের ফসল এই ভ্যাকসিনপ্রাপ্তি, সূত্র ডেইলি স্টার।



বাঙালী যেইখানে যায় সেইখানেই দুর্নীতি করে। আমেরিকার কোভেক্স প্রজেক্টটা স্বল্পোন্নত দেশগুলার জন্য। প্রথমে যেই ১৮১টা দেশের লিস্ট করা হইছিল, বাংলাদেশের নাম সেইখানে সঙ্গত কারণেই ছিল না। কারণ বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ না, উন্নয়নশীল দেশ। তারা যে কোন ভাবেই হোক আমেরিকার ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউশন কমিটিতে ঢুকেন, বাংলাদেশের নাম লিস্টে ঢুকান, সর্বশেষ যে ১৮ টি দেশের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়, সেখানেও বাংলাদেশের নাম আসে। আরো ভয়ংকর দুর্নীতির ব্যাপার হইলো, এখন পর্যন্ত মাত্র দুইটা দেশ কোভ্যাক্সের আওতায় টিকা পাইছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ একাই ৫৬ লাখ আর ইউক্রেন ১০ লাখ। ভবিষ্যতে যুক্তরাষ্ট্র কোভেক্সের আওতায় যতবার ভ্যাকসিন দিবে, বাংলাদেশ ততবার ভ্যাকসিন পাবে। তারমানে এই ৫৬ লাখই শেষ না।

যারা এইটাকে ভিক্ষা বলতে চান বলেন, দুর্নীতি বলতে চান, বলেন, তবে আমি তাদেরকে জাতীয় বীর বলে স্যালুট জানাই। অবশ্য আমার স্যালুটে তাদের কিছু যায় আসে না। আমি হইলাম কেচকি মাছ।

আমরা বাঙালীরা আসলেই নিচু মানসিকতার। খোদ আমেরিকাও এই টিকা দেয়ার সময় এটাকে আমেরিকার জনগণের পক্ষ থেকে উপহার বলে ঘোষণা দিছে। আর আমরা সেটাকে গ্রহণ করছি ভিক্ষা হিসাবে। জাতি হিসাবে আমাদের এই দৈন্যতা ঘুঁচবে কবে।


যাই হোক, তিন দিন আগে আমি প্রথম ডোজ টিকা নিছি, টিকার ব্র্যান্ড মডার্না, সরকারের কল্যাণে হোক, যুক্তরাষ্ট্রের কল্যাণে হোক, অথবা সেই চার মহান প্রবাসি বাংলাদেশীর কল্যাণেই হোক, আই এম ভ্যাকসিনেটেড।
কার্টুনের লিংক
ডেইলি স্টার নিউজ লিংক
সর্বশেষ এডিট : ২২ শে জুলাই, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪১
১৪টি মন্তব্য ১৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

শেখ হাসিনা অসৎ মানুষদের থেকে ভুল তথ্য ও ফিডব্যাক পাচ্ছেন!

লিখেছেন চাঁদগাজী, ০১ লা আগস্ট, ২০২১ দুপুর ২:৪৩



শেখ হাসিনা যাদের থেকে তথ্য ও ফিডব্যাক পেয়ে থাকেন, এরা কি সৎ, এরা কি দক্ষ, জাতির প্রতি এদের কোন দায়িত্ববোধ আছে বলে মনে হয়? যাদের সাথে উনি দেশের... ...বাকিটুকু পড়ুন

এক মুক্তিযোদ্ধার নিঃশব্দ প্রস্থান

লিখেছেন জুন, ০১ লা আগস্ট, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৪০



১৬ বছরের কিশোর এক ধনীর আদরের দুলাল, সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্ম, যার পরিবারে রাজনীতির ছায়া মাত্র নেই সেই কি না এক রাতে সবার অগোচরে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগে সম্ভাবনার লেখা নাই কেন ?

লিখেছেন রক্তহীন, ০১ লা আগস্ট, ২০২১ রাত ৮:১৮



জ্ঞান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির এই যুগে ব্লগে বাংলাদেশকে নিয়ে সম্ভাবনার লেখা দেখিনা। বরং সবাই দেখি দেশকে নিয়ে হতাশ, অর্থনৈতিক দূর্বলতা, সামাজিক সংকট, দুর্ণীতি ও সরকারের দোষ এসব নিয়ে লিখতেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

লাও তো বটে, আনেটা কে?

লিখেছেন মোঃ মোশাররফ হোসাইন, ০২ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১২:০৪

দেশে বেসরকারি টিভি চ্যানেল চালু হবার পর সবচাইতে বেশী আলোচিত হয় টক শো। প্রতিদিন রাতে ধোয়ামোছা চলে দেশের সরকারের। দেখানো হয় কত সহজেই বাংলাদেশ আবার সোনার বাংলা হতে পারে!! অথচ... ...বাকিটুকু পড়ুন

সেরা ১০ জাতের আম চেনার উপায়

লিখেছেন মামুন নজরুল ইসলাম, ০২ রা আগস্ট, ২০২১ রাত ১২:১৮


আমকে ফলের রাজা বলা হয়। মধু মাসের এ সময়টাতে আম খেতে পছন্দ করেন না এমন বাঙালি পাওয়া দুস্কর। বাজারে বিভিন্ন ধরনের আম রয়েছে। কিন্তু কোনটা যে কি আম, তা চিনতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×