somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

আমার পরিচয়

মায়াঘাসি

আমার পরিসংখ্যান

জুয়েল বিন জহির
quote icon
বাধার পাহাড় ডিঙিয়ে সূর্যের হাসি ফুটবেই
আমার সকল পোস্ট (ক্রমানুসারে)

আত্মকথন...

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ২০ শে জুলাই, ২০০৯ সন্ধ্যা ৭:১৫

গারো পাহাড়ের গায়ে চুমু খেয়ে মেঘ নামছে কলকলিয়ে। চিকমাং আচিক থেকে পূণ্যবাণ আত্মারা নেমে আসছে বাগবা-বরম্বিদের সাথে। হাবা নেই, হাবাহুয়া নেই, জুম চাষীদের সাগল আমা রিব্বক মিচিক থেকে বৃষ্টি নামানোর বিশ্বাসী খ্রিতা নেই...তবু তারা আসবেন; হাবিমা-হাপালের সবখানে। আমি দেখি আর না দেখি, শুনি আর না শুনি...। বাকিটুকু পড়ুন

৩ টি মন্তব্য      ১১৬ বার পঠিত     like!

ঢাকা-চেংগ্নী-নাদেংকল-বিরিশিরি-ঢাকাঃ বাউণ্ডুলের তীর্থযাত্রা - শেষ কিস্তির আগে

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ৩০ শে নভেম্বর, ২০০৮ ভোর ৪:২৩

সকালে নাস্তা সেরে বের হয়েই দেখি একজন মধ্য বয়স্ক লোক বারান্দায় বসে পাতার বিড়ি টানতে টানতে সুপ্তির মা-বাবার সাথে আলাপ করছে। সাথে আরেকজন। সোহেল বিড়ি টানেওয়ালার সাথে পরিচয় করিয়ে দিল, এটাই সুপ্তির মামা তুদিন চিসিম। মামার বাড়ি গারো হিলসে। সকাল বেলায় সীমান্ত পাড়ি দিয়েই বাংলাদেশে বোনের বাড়িতে চলে এসেছেন। মামার... বাকিটুকু পড়ুন

২ টি মন্তব্য      ২০১ বার পঠিত     like!

ঢাকা-চেংগ্নী-নাদেংকল-বিরিশিরি-ঢাকাঃ বাউণ্ডুলের তীর্থযাত্রা - দ্বিতীয় কিস্তি

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ২৫ শে অক্টোবর, ২০০৮ রাত ২:১৮

শেরেনজিং -ওয়ালজানদের খপ্পর থেকে বেরুতে বেরুতে সকালে একটু বেশিই সময় লাগল। পরাগ আমার অনেক আগে ওঠেই বারান্দায় বসে বসে বাড়ির লোকজনদের সাথে আলাপ জমিয়ে ফেলেছে। বিছানা ছেড়ে আমরা তিনজন চলে গেলাম চেংগ্নী গাঙে। উহ! নো ম্যানস ল্যান্ডে পা রাখতেই উত্তরের বিশাল পাহাড়রাজির সুপ্রভাত সম্ভাষণ ভাষায় প্রকাশ করবার মতন নয়। মুগ্ধতার... বাকিটুকু পড়ুন

২ টি মন্তব্য      ২৫৯ বার পঠিত     like!

ঢাকা-চেংগ্নী-নাদেংকল-বিরিশিরি-ঢাকা : বাউণ্ডুলের তীর্থযাত্রা - পয়লা কিস্তি

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ২২ শে অক্টোবর, ২০০৮ রাত ১১:২৯

চুনিয়ার সোহেল মৃ'র লগে বন্ধুত্ব বেশ কয়েক বছরের। মান্দি রীতি মেনে মধুপুরের চুনিয়া গ্রামের পান্থি (যুবক) সোহেল মৃ এখন গারো পাহাড়ের পাদদেশে নেত্রকোনার চেংগ্নী গ্রামের জামাই। গারো হিলসের স্বাধীনতাকামী সংগঠন-আচিক ন্যাশনাল ভলান্টিয়ার কাউন্সিল- এএনভিসি‌' র সক্রিয় ক্যাডার ছিল এই সোহেল। সংগঠনের কাজ করতে গিয়েই সীমান্তবর্তী চেংগ্নীর সুপ্তি রাকসামের সাথে ভালবাসার... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ২৪৩ বার পঠিত     like!

ভিন্ন ভাবনা : বাংলাদেশে বাংলা ভিন্ন অপরাপর ভাষা সমূহের প্রতি উদাসীনতা বজায় রেখে কী ভাষা শহীদদের প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো...

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ১৭ ই ফেব্রুয়ারি, ২০০৮ রাত ১১:৫৮

"ছাং ক্রেংছাদা ইক্হংগো

দালা প্রেংয়াগা আচাক মারেং কলা

নি নি ঞা ঞা লিকহো তুংহে..."




(চাক গানের অংশ বিশেষ; ভাবানুবাদঃ চৈত্র মাসে জুম কাটি/দালা গ্রামের চাক,মারমা,মুসলমান/আমরা সবাই সমান কাজ করি/জ্যৈষ্ঠ মাসে ধান রোপন করি/ চারা বড় হলে/ আমরা সবাই খুশিতে আত্মহারা...।)

......................................................................................................

"ওন্টে পাচ্চো পাইরি পুদবাকী ... বাকিটুকু পড়ুন

২৫ টি মন্তব্য      ৭৯৯ বার পঠিত     ১২ like!

তবু বেঁচে থাকা...

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৬ ই জানুয়ারি, ২০০৮ দুপুর ১২:১২





ঘাটবাঁধা নৌকোর গলুইতে বসা মাছরাঙা। কাঁচস্বচ্ছ দৃষ্টিতে চেয়ে আছে জলের পানে। কাঠফাটা রোদে এক প্রেমিকের দীর্ঘ অপেক্ষা যেন! ক্ষাণিক পরে অব্যর্থ নিশানায় ঠোটের নির্মম চুমু শিকার করা প্রাণের ঘাড়ে। উহ! বেঁচে থাকার এমন মিছেমিছি প্রণয়ে তবু ফিরি বারেবার...। বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ৩০৬ বার পঠিত     like!

ডুব যাত্রা

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৪ ঠা জানুয়ারি, ২০০৮ রাত ১১:১১

আমাদের গাঁয়ের পাশের ছোট্ট যে খালটা তাকে আমরা ছোট গাঙ বলেই জানতাম শৈশবে। যৌবনে এসে তা হয়ে গেছে শুধুই খাল; কলকারখানার আবর্জনাবাহী নালাও বলা যেতে পারে। অথচ এই আমাদের এই ছোট্ট খালেই আমরা আর অসংখ্য বালিহাঁসেরা পালা করে পানিতে লুকোতাম। লুকোনোর পর চোখ খুলে তাকাতাম পানির তলদেশে। কেমন যেন ফ্যাঁকাশে... বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ২৪২ বার পঠিত     like!

সবকিছুই লুট হয়ে যায়...

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৮ ই ডিসেম্বর, ২০০৭ দুপুর ১:৪০

চাল-ডাল, সাদা কাফন বা চু এর দিখ্যা ভর্তি খক মাথায় বয়ে বয়ে দকমান্দা পড়া বিভিন্ন বয়সী নারীরা চলেছেন বন-বাইদ পেরিয়ে। মাঝে মাঝে পুরুষদের কাঁধে চ্যাদোলা পোষমানানো বন্যশুকর। বিভিন্ন বয়সী বাচ্চা-কাচ্চার দল একেকটা লেজ তৈরি করে এগিয়ে চলছে পিছু পিছু। আর কাঁধে আঁচলে বাঁধা পুটুলির চোখদুটো হেলেপড়া সূর্যের আলোয় বিষ্মিত চাহনিতে।... বাকিটুকু পড়ুন

১৩ টি মন্তব্য      ৩১৪ বার পঠিত     like!

বিপন্ন বনের বিপন্ন মানুষদের উষ্ণতায় (শেষ কিস্তি)

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ১৭ ই নভেম্বর, ২০০৭ সন্ধ্যা ৬:২০

আচ্চুর বাড়িতে সঞ্জয়সহ আমরা প্রথম যখন এলাম সেদিন কোন চু ছিল না। কিন্তু সকালে যখন দিখ্যা নামাতে চেয়েছিল তখনই বুঝেছি পাড়া-প্রতিবেশি কারো কাছ থেকে হয়ত যোগাড় করেছে। যতই কষ্ট হোক আমরা এলে চু এর ব্যবস্থা করবেই করবে। অনেকবার মানা করা সত্বেও তা রোধ করতে পারিনি। আমরা জানি তাদের সংসার কিভাবে... বাকিটুকু পড়ুন

২ টি মন্তব্য      ৩০২ বার পঠিত     like!

২৪তম মৃত্যূবার্ষিকীতে খোলা চিঠি: বাবু লারমা প্লিজ আপনি আমাদের ক্ষমা করবেন না, কারণ ক্ষমা পাবার যোগ্য আমরা হয়ে উঠিনি আজও

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ১০ ই নভেম্বর, ২০০৭ সকাল ৮:৪৭

মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা







শ্রদ্ধেয় মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা,

আপনার সাথে আমার কখনো দেখা হয়নি, কথাও হয়নি। কিন্তু তারপরেও আপনাকে খুব করে মনে পড়ছে। না, এটা কোনো ভণিতা নয়, বা কথার কোনো চাতুর্য্যতাও নয়, আমার হৃদয়ের খুব গভীরের এক উপলব্ধি। আপনার চোখ জোড়ার দিকে তাকালে কখনোই মনে হয় না আপনি আমার অপরিচিত কেউ। কেমন... বাকিটুকু পড়ুন

১১ টি মন্তব্য      ৬৯৫ বার পঠিত     ৫৭ like!

বিপন্ন বনের বিপন্ন মানুষদের উষ্ণতায় (চতুর্থ কিস্তি)

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৯ ই নভেম্বর, ২০০৭ দুপুর ১২:০৭

২৭ অক্টোবর বেলা এগারটার দিকে বিজন্তীদির দেয়া এক গ্লাস চুবিচ্চি টেনে চুনিয়া থেকে দোখলার দিকে যাচ্ছি, সেখান থেকে পরে পীরগাছায় যাব। দোখলা রেস্ট হাউজের সামনে দেখা হলো প্রীতিদার সাথে (আচ্চুর ছেলে), লাঠি হাতে মনের সুখে শীস বাজাচ্ছেন আর বাইদের ধান ক্ষেত পাহারা দিচ্ছেন। বানরেরা দল বেঁধে বেঁধে এসে পাকা ধানের... বাকিটুকু পড়ুন

২ টি মন্তব্য      ২৬৫ বার পঠিত     like!

বিপন্ন বনের বিপন্ন মানুষদের উষ্ণতায় (তৃতীয় কিস্তি)

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৭ ই নভেম্বর, ২০০৭ বিকাল ৫:০২

বচনদার সাথে আমাদের সর্ম্পক অনেকদিনের। কবিতা, কেবল কবিতার জন্য এই লোকটা তার জীবনকে বদলে নিয়েছে। বা বলা চলে কবিতার প্রতি নিখাত প্রেমই তাকে বদলে দিয়েছে। এলাকার সবাই জানে বচন সারাদিন চু এর নেশায় বুঁদ হয়ে থাকে আর কি সব লেখালেখি করে। কবিতা লেখার জন্য কতবার যে মিশন ফাদারের বিরাগভাজন হতে... বাকিটুকু পড়ুন

০ টি মন্তব্য      ২৩৯ বার পঠিত     like!

প্রথম পাতায় সর্বোচ্চ ব্লগারের তালিকা কি খুব প্রয়োজনীয়?

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৬ ই নভেম্বর, ২০০৭ বিকাল ৫:১৫

ব্লগ জগতে আমার প্রবেশ সাহোইন দিয়েই। প্রতিদিনই কয়েকঘন্টা যাতায়াত থাকে এখানে, নইলে কেমন যেন একটা অপূর্ণতা কাজ করে। যাই হোক, প্রথমদিন থেকেই সর্বোচ্চ ব্লগারদের তালিকাটা দেখতে দেখতে তালিকায় থাকা সবগুলো নাম প্রায় মুখস্ত হয়ে গেছে বা বলা চলে একজন নতুন ব্লগারকে গুলিয়ে খাইয়েছেন কর্তৃপক্ষ। তালিকায় থাকা কেউ কেউ এখন আর... বাকিটুকু পড়ুন

৩৪ টি মন্তব্য      ৩৭৬ বার পঠিত     like!

বিপন্ন বনের বিপন্ন মানুষদের উষ্ণতায় (দ্বিতীয় কিস্তি)

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০৩ রা নভেম্বর, ২০০৭ সন্ধ্যা ৭:১৭

পরাগ রিছিল ফোনে বলেছিল যে, ২৬ তারিখে নাকি সাইন্যামারি গ্রামে ওয়ানগালা হবে। জলছত্রে এব্যাপারে কেউ তেমন কিছু জানে বলে মনে হলো না। ওয়ানগালা হলো জুমচাষী মান্দিদের ঐতিহ্যবাহী এক ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসব। সাংসারেক (মান্দিদের আপন ধর্মের নাম) মান্দিরা একে বলেন ওয়ান্না। এক সময় হাবা বা জুমে উৎপাদিত ফসলাদি দেবতা মিসি... বাকিটুকু পড়ুন

৬ টি মন্তব্য      ২৮২ বার পঠিত     like!

বিপন্ন বনের বিপন্ন মানুষদের উষ্ণতায় (পয়লা কিস্তি)

লিখেছেন জুয়েল বিন জহির, ০২ রা নভেম্বর, ২০০৭ সকাল ৯:৫৭

রাত দুইটা। শীতের কুয়াশার চাদরে শালবনের চারিদিক নিস্তব্ধ। শালবন। হ্যাঁ, চলেশ রিছিল-গিদিতা রেমা-পীরেন স্নাল-সেন্টু নকরেক-বিহেন নকরেক-অধীর দফোদের শালবন! না, লালমাটির শালবন যাদের রক্তে আরো লাল হয়েছিল তাদের নিয়ে কোন কথা বলার সময় এখন না। এই রাষ্ট্রের নানান আয়োজন-প্রয়োজনে প্রিয়াঙ্কা সিমসাং-মিন্টু চাম্বুগং-রীতা চাম্বুগং-মেরি চাম্বুগং-উৎস নকরেক-রাত্রি নকরেকদের বাবা কিংবা লিপু রেমা-পাপড়ি রেমাদের... বাকিটুকু পড়ুন

৭ টি মন্তব্য      ২৮৪ বার পঠিত     like!
আরো পোস্ট লোড করুন
ব্লগটি ১৪৯৬১ বার দেখা হয়েছে

আমার পোস্টে সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার করা সাম্প্রতিক মন্তব্য

আমার প্রিয় পোস্ট

আমার পোস্ট আর্কাইভ