somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

জাপানে যাপিত জীবন- পর্ব ০১

১৫ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:২২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

গতকাল রাতে মা বলছিল, “বাবা আজকে তো ২৪ তারিখ, তুমি আমাদের ছেড়ে গিয়েছ আজ এক মাস”। আসলেই, ভুলে গিয়েছিলাম। আর আজ ২৫ অক্টোবর, জাপানে আমার এক মাস পূর্ণ হল। ব্যস্ততা আমাদের এইসব দিনক্ষণ মনে রাখতে দেয়না, ছেড়ে আসার কষ্টটাও হয়ত সয়ে গিয়েছে। কিন্ত, মায়েরা মনে হয় আঙুলে গুনে রাখে, কতদিন হল, ছেলেকে আবার কবে চোখের সামনে দেখবে…!!
তবে প্রযুক্তির কল্যাণে দেখা অবশ্য প্রায়ই হয়। মা’কে আসার আগে স্মার্টফোন কিনে দিয়ে এসেছিলাম। আর ভাইয়া মোটামোটি শিখিয়ে দিয়ে গিয়েছে। সন্ধ্যার নামাজ পড়েই আমাকে ফোন দেয় আর বলে, “বাবা, ভিডিওটা অন করতো… তোমাকে দেখি!” । তারপর কলটা কাটার ঠিক আগে স্ক্রিনে একটা চুমু দিয়ে রাখে। ছোট ছেলেটাকে একটু ছুঁয়ে দেয়ার চেষ্টা করে হয়ত……
মায়ের চিন্তার শেষ নেই, কেমন আছে ছেলে… দূরদেশে?
আমি অবশ্য ভালই আছি। আলহামদুলিল্লাহ্‌। আসার পর কোন সমস্যা হয়নি। আমাকে স্টেশন থেকে রিসিভ করে ডরমে নিয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে সিটি কর্পোরেশন, পোস্টঅফিস, ব্যাংক, ইনস্যুরেন্স, ল্যাব, শপিং সবসময় ছায়ার মত সাথে ছিল আমার চাইনিজ সাপোর্টার মিঃ হুয়াং। গুল্লগাল্লু দেখতে এই ভদ্রলোক আমার ল্যাবেরও সিনিয়র। আর ছিল বাংলাদেশী কমিনিটি। এই ক্ষেত্রে যার কথা না বললেই নয়, সে হল শাহজাহান ভাই। এই লোকটার সাথে আগে আমার কখনো দেখা হয়নি। পরিচয়ের মাধ্যম, আমার হলের রুমমেট। এতটুকুই। কিন্তু আসার পর থেকে কি পরিমাণ সাহায্য যে করছেন, তা বলে শেষ করা যাবে না। প্রথম দিনই উনাকে এক জায়গার কথা বলে ভুলে অন্য জায়গায় বসে ছিলাম... । বিশাল ক্যাম্পাস ঘুরে আমাকে উনি খুজে বের করেছেন। তারপর লাঞ্চ থেকে শুরু করে পরের দুই দিনের খাবার পর্যন্ত উনার দেয়া। আর, আমি আসার আগেই আমার জন্য সাইকেল থেকে শুরু করে ফ্রাইপ্যান পর্যন্ত ম্যানেজ করে রেখেছেন। আর কি লাগে... আবার আসার একদিন পরই বাংলাদেশী তিন ভাই খুজে খুজে আমার ডরমেটরীতে এসে হাজির। আমার কোন সমস্যা হচ্ছে কিনা জানতে। অর্থাৎ, এখানে বাংলাদেশী ভাইদের সাহায্য মাত্র এক ম্যাসেজ দূরত্বে (এখনো সিম নেইনি)।
আসার পর অরিয়েন্টেশন হয়েছে তিনটা। ফ্যাকাল্টি, ইউনিভার্সিটি আর স্টুডেন্ট অর্গানাইজেশনের। এখানের শিক্ষা ব্যবস্থা, জাপানি নিয়ম কানুন আর কালচার সম্পর্কে। আমাদের দেশ থেকে অনেক আলাদা। সব কিছুরই আইন আছে বটে, কিন্তু গুছানো, ঝামেলাহীন। আর কারো কাছে কিছু জানতে চাইলে, ও তার ভাঙ্গা ইংরেজীতে যতক্ষণ আপনাকে বুঝাতে বা সাহায্য করতে না পারবে ততক্ষণ ক্ষান্ত হবে না।
এবার আসি আমার ল্যাব সম্পর্কে। প্রথম দিন যখন প্রফেসরের সাথে দেখা করতে গেলাম, অনেকটা ভয়ে ছিলাম। কেমন জানি হয়। উনার সাথে কথা বলে এক নিমিষেই আমার সব ভয় দুর হয়ে গেল। অমায়িক একজন মানুষ। সদা হাস্যোজ্জল। দেখা হতেই আমাকে বলে... Mamudurrr… welcome,,, I was eagerly waiting for you, its been long we know each other। since 2016, right?? ওয়েলকাম পার্টিতে জিজ্ঞেস করে, অ্যালকোহল অর নো অ্যালকোহল? তারপর নিজ হাতে জুস সারভ করে। বিজনেস ট্রিপে গেলে ল্যাবের সবার জন্য কিছু না কিছু খাবার নিয়ে আসে। বাকিটা আল্লাহ জানে, ল্যাবের কাজতো এখনো শুরু করিনি। আমার কোন ক্লাসও নেই, শুধু জাপানিজ ভাষার ক্লাস। বিরক্তির ব্যাপার হল, ওদের অক্ষর তিন ধরণের, হিরাগানা, কাতাকানা আর কাঞ্জি। কাঞ্জির আবার আছে জাপানে ব্যবহৃত ৩০০০ শব্দ!! কৃতিত্বের সাথে ফেইল করব আশা করি। মজার ব্যাপার হল, ওদের বলার ধরণ তিন রকম। চলিত, ভদ্র আর অতিভদ্র ধরণ। এত ভদ্রতা যে ওরা কই পায়!!
তবে, এখানের সবচেয়ে ভাল বিষয় হল পরিবেশ। শান্ত, সুন্দর, গুছানো আর জ্যাম ছাড়া রাস্তা। রাস্তায় কোন ট্রাফিক পুলিশ নেই। লাল হলুদ আর সবুজ বাতিতেই যদি সব হয়, পুলিশের আর কি দরকার? রাস্তার পাশে কারা যেন ফুলের বাগান করে যায়, অদ্ভুত সব সুন্দর ফুল।
এখন অবশ্য কাঙ্ক্ষিত ফল সিজন চলছে। ক্যাম্পাস অসম্ভব সুন্দর এখন। মাঝে মধ্যে সাইকেল নিয়ে চক্কর দেই, হোক্কাইডোর অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র, এই ক্যাম্পাস। অন্য কোথাও যাওয়ার সুযোগ এখনো হয় নাই। তবে, দেখতে যাব নিশ্চয়ই... অতি শীগ্রই...
চলবে..

সর্বশেষ এডিট : ১৫ ই ডিসেম্বর, ২০১৯ দুপুর ২:৪৯
৩টি মন্তব্য ১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

চামড়া ও চামড়াশিল্পের কেন আজ এই ভয়াবহ পরিস্থিতি?#২

লিখেছেন শেরজা তপন, ০৮ ই আগস্ট, ২০২০ সকাল ১১:২৯


আগের পর্বের জন্য: Click This Link
হাজারীবাগ
১৯৪০ এর দশকে এক ব্যবসায়ী আর.পি. শাহা কর্তৃক নারায়ণগঞ্জে বাংলাদেশের প্রথম ট্যানারি স্থাপন করা হয়েছিল। ট্যানারিটি পরে(১৯৪৫ সালে দিকে- মতান্তর আছে, কোথাও বলা হয়েছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

খুকু ও মুনীরের পরকীয়ার বলি শারমীন রীমাঃ হায়রে পরকীয়া !!

লিখেছেন নূর মোহাম্মদ নূরু, ০৮ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৩১


পরকীয়া একটি নিষিদ্ধ সম্পর্কের নাম। মানবসমাজে কত ধরণের প্রেমই তো আছে! তবে যত ধরণের প্রেমই থাকুক না কেন ‘পরকীয়া’ প্রেমকে সবাই একটু ভিন্ন চোখে দেখে। নিষিদ্ধ জিনিষের প্রতি... ...বাকিটুকু পড়ুন

মেয়েটি চলল প্রবাসের পথে - আগমনী বার্তা (সামু পাগলার নতুন সিরিজ :) )

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ০৮ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৪০



এই পোস্টটি মূলত নতুন সিরিজ আসার আগমনী বার্তা। আবার একদিক দিয়ে দেখলে আমার জীবনে প্রবাসের আগমনী বার্তাও বটে।
আমি সাধারণত কোন সিরিজ শুরু করলে শেষ করতে পারিনা। সেজন্যেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

বৈরুত – হিরোশিমার মিনি ভার্সন

লিখেছেন শাহ আজিজ, ০৮ ই আগস্ট, ২০২০ সন্ধ্যা ৭:৫৭



বৈরুতকে একসময় প্রাচ্যের প্যারিস বলা হত । ৪০এর দশকে আমাদের এই অঞ্চলের ছেলেরা বৈরুতের আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যেত । ওখানে চিকিৎসা এবং হাসপাতাল ব্যাবস্থা খুব উন্নত ছিল... ...বাকিটুকু পড়ুন

নির্ঘুম রাত

লিখেছেন মিরোরডডল , ০৮ ই আগস্ট, ২০২০ রাত ১০:৫২





আবারও আসলাম কিছু প্রিয় গান নিয়ে ।
সাধারণত মেল ভোকালে বেশী গান শোনা হয় কিন্তু আজ কিছু ফিমেল ভোকালে গান শেয়ার করছি ।

আমি কেমনে কাটাই এ রাত... ...বাকিটুকু পড়ুন

×