somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ভাষা সাম্রাজ্যে দুই পক্ষই ভাষা সৈনিক

২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১০:৫৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

একটা পরিবেষ্টিত চত্বরে আপনারা কি করবেন বা করবেন না সেইটার একটা ভাষা আছে। সেই ভাষা সবসময় আইন হিসেবে লেখা থাকবে বিষয়টা তেমন না। ভাষা আইন নি‍র্ভর না। আইন ভাষা নির্ভর। পরিবেষ্টন নিজে একটা ভাষা। মানে আপনাদের জন্য বিশেষ সময় প‍র্যন্ত একটা খোপ দেয়া হইছে, সেই খোপে পারফ‍‍র্ম করেন, মানে এইটা আসলে একটা মঞ ।

এই যে বিভিন্ন নিয়ম জারি হয় (নিরাপত্তার জন্য ব্যাগ খুলে দেখাতে হবে, কখন ঢুকবেন কখন বের হতে হবে) নিদর্েশনা থাকে (কোন ধরণের ব্যাগ আনা যাবে বা যাবে না) বিভিন্ন পরিপ্রেক্ষিতে (দেশের নিরাপত্তা, নৃশংস আক্রমণ) এই সবগুলা নিজেই একটা ভাষা। এই যে বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি হয় (ওয়াচ টাওয়ার, বুথ), বিশেষ জায়গায় জড়ো হয় (মেলা), বিশেষভাবে ঘিরা থাকে (কর্ডন কইরা) সেইটাও একটা ভাষা, সেই ভাষা যে কোন লিখিত নিয়মের চাইতে অনেক ভালোভাবে আপানারে বুঝাইয়া দেয় কে বা কারা এইখানে পাওয়ারফুল। এইখানে কে কতদূর কেরদানী করবে?

বাংলা একাডেমি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজু ভাষ্ক‍র্য, টিএসসি, শাহবাগ এলাকাও একটা পরিবেষ্টিত মঞ। এখানে কারো কারো যে কেমন যেন "মুক্ত মুক্ত" লাগে, কেমন যেন এমপাওয়ারিং লাগে এই ফিলিংটা আপনার ভাষাদলের সৃষ্টি। আবার যার বন্দী বন্দী লাগে অশালিন লাগে সেইটাও আপনার ভাষাদলের সৃষ্টি। এসব নিয়া বিস্তারিত আলাপ হইবো নে পরে।

তো যেই পরিবেষ্টিত চত্বরে যেই যেই জিনিস করা যাইবো বা যাইবো না (মনে করেন সিগারেট খাওয়া, বিরিয়ানির স্টল দেয়া, বইয়ের স্টল দেয়া) সেইটার গাইড/নিয়ন্ত্রণের জন্য ভাষা সৈনিক মোতায়েন থাকে। মোতায়নের মাধ্যমে একটা ভাষা প্রবলভাবে বহমান থাকে যারে বলা যাইতে পারে “আন্ডার কন্ট্রল” ভাষা। সেই ভাষা নিয়ত উৎপাদন করা দরকার, রিমাইন্ডার দেয়া দরকার। তো এই রকম রিমাইন্ডার কেবল যাদের উপর প্রয়োগ করা হয় তাদের জন্যই না; যারা প্রয়োগ করেন তাদের জন্যও। এইটা হল ভাষা রেজিম মেনটেইনের পদ্ধতি।

যাদের উপর প্রয়োগ করা হয় তারা হয়ত মনে করেন যে এইটাতো তাদের স্পেস। এই স্পেসতো তার। এই স্পেসের জন্য সারাজীবন কত কষ্টই না করছি, নিজের জন্য আবার বিশেষ স্পেস বানাইতাছি। মোটামুটি স্পেস বানানির বা বাড়ানির কামটা করছি বইলাই তো বাকীদের জন্য স্পেস বাড়ছে। “আন্ডার কন্ট্রল” ভাষা কি এইটা চায় না? সে এলাও করে না? করে বইলাইতো একটা পরিবেষ্টিত চত্বরে আপনারে স্পেস বাড়াইতে দেয়। আবার আপনারে দিয়ে অন্যর স্পেস কমায়াও নেয়, আপনি কননা এই স্পেসে এর থাকা যাবে না? আবার সে আপনারে ভাষা সদস্য-র অনুভূতি দিয়া বলে না আমি থাকলে অনেক অনেক স্পেস পাবা কিন্তু, ওরা থাকলে কিন্তু পারবা না। যদিও আপনি জন্মানোর পর থেইক্কাই কিন্তু বিভিন্ন ভাষাদলের টানাটানিতে থাকেন, তাও আনকনশাসলি অধিকাংশ সময়।

একটা বিশেষ পরিবেষ্টিত চত্বরে আপনার নিজের স্পেস অনুভুতি ঘন হয় বইলা সেইটা দেয়। কিন্তু স্পেসটারে ছোট কইরা রাখে। ভাষা রেজিমের দারুণ একটা ডিল। সে পরস্পর গুতাগুতি করণের ছোট ছোট খোপ বানায়া ভাষা সৈন্যদের বিজি রাখে, হায়ারা‍র্কি বানায় এনগেজ রাখে। এইটা একটা চলমান ইনোভেটিভ প্রসেস, এবং “আন্ডার কন্ট্রল” ভাষার জন্য চলমান পূঁজি উৎপাদক। মানে “আন্ডার কন্ট্রল” ভাষায় দুই পক্ষই ভাষা সৈনিক! খুব তীব্র জোড়ালো প্রতিভাবান হয়ত, কিন্তু ছোট ছোট খোপের ছোট হায়ারাকর্ির ভাষা সৈনিক।

তাই আমি বলি ভাষা সাম্রাজ্যর রিক্রটমেন্ট শুরু হয় আপনার জন্ম-র আগে থেইক্কা, একটা খুবই এডভান্স টেকনোলজি। জন্মের পরে আবার নতুন নতুন লেয়ার আর সেইটার সাথে স্পেস নিয়া দরকষাকষি। ভাষা সৈনিক হইতে না চাইলে ভাষারে আনলাণর্ করা শুরু করতে হবে বেইব!

ভাষার মাসে ভাষা রেজিম আনলাণর্ করা হোক আপনাদের প্রচেষ্টা
এই কামনায়
শরৎ চৌধুরী
হিগাশি হিরোশিমা
জাপান
সর্বশেষ এডিট : ২২ শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সকাল ১১:০০
৩টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

রম্যরচনাঃ ক্যামেরা ফেস

লিখেছেন আবুহেনা মোঃ আশরাফুল ইসলাম, ১১ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ৮:৫৯


খুব ছোট বেলায় আমাদের শহরে স্টার স্টুডিও নামে ছবি তোলার একটা দোকান ছিল। সেটা পঞ্চাশের দশকের কথা। সে সময় সম্ভবত সেটিই ছিল এই শহরের একমাত্র ছবি তোলার দোকান। আধা... ...বাকিটুকু পড়ুন

আবাসন ব্যাবসায় অশনি সংকেত

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১১ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৫:২২




জুলাইয়ের শুরুতে একটি বিজ্ঞাপন দেখা গেল একটি আবাসন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের । তারা ৫০ পারসেনট কমে ফ্লাট বিক্রি করছে । মুখ চেপে হাসলাম এত দুঃখের মাঝেও... ...বাকিটুকু পড়ুন

রৌপ্যময় নভোনীল

লিখেছেন স্বর্ণবন্ধন, ১১ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৯


একটা অদ্ভুত বৃত্তে পাক খাচ্ছে আত্মা মন,
বিশ্বকর্মার হাতুড়ির অগ্ন্যুৎপাতে গড়া ভাস্কর্যের মতো গাড়-
হাড় চামড়ার আবরণ; গোল হয়ে নৃত্যরত সারসের সাথে-
গান গায়; সারসীরা মরেছে বিবর্তনে,
জলাভুমি জলে নীল মার্বেলে সবুজের... ...বাকিটুকু পড়ুন

""--- ভাগ্য বটে ---

লিখেছেন ফয়াদ খান, ১১ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:৪৪

" ভাগ্য বটে "
আরে! সে কী ভাগ্য আমার
এ যে দেখি মন্ত্রিমশায় !!
তা বলুন দেখি আছেন কেমন
চলছে কেমন ধানায় পানায় ?
কিসের ভয়ে এতো জড়োসড়ো
লুকিয়ে আজি ঘরের... ...বাকিটুকু পড়ুন

আমার ‘অন্তরবাসিনী’ উপন্যাসের নায়িকাকে একদিন দেখতে গেলাম

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ১১ ই জুলাই, ২০২০ রাত ৯:৪২

যে মেয়েকে নিয়ে ‘অন্তরবাসিনী’ উপন্যাসটি লিখেছিলাম, তার নাম ভুলে গেছি। এ গল্প শেষ করার আগে তার নাম মনে পড়বে কিনা জানি না। গল্পের খাতিরে ওর নাম ‘অ’ ধরে নিচ্ছি।
বইটি... ...বাকিটুকু পড়ুন

×