somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

নতুন নকিব
আলহামদুলিল্লাহ। যা চাইনি তার চেয়ে বেশি দিয়েছেন প্রিয়তম রব। যা পাইনি তার জন্য আফসোস নেই। সিজদাবনত শুকরিয়া। প্রত্যাশার একটি ঘর এখনও ফাঁকা কি না জানা নেই, তাঁর কাছে নি:শর্ত ক্ষমা আশা করেছিলাম। তিনি দয়া করে যদি দিতেন, শুন্য সেই ঘরটিও পূর্নতা পেত!

পবিত্র মাহে রমজান: ফজিলত ও আমল পর্ব-০১

২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ বিকাল ৪:৪৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



আলহামদুলিল্লাহিল আকরামিল্লাজি খালাক্কাল ইনছানা ওয়া কাররামাহু ওয়া আল্লামাহু মিনাল বাইয়ানি মা- লাম ইয়া'লাম। ফাসুবহানাহু লা ইউহছা ইমতিনানুহূ বিল্লিছানি ওয়ালা- বিল ক্কলাম। নাশহাদু আল্লা- ইলাহা ইল্লাল্লাহু অহদাহু লা- শারিকা লাহু অনাশহাদু আন্না সাইয়্যিদানা ওয়া হাবিবানা ওয়া মাওলানা মুহাম্মাদান আবদুহূ ওয়া রসূলুহু। আল্লাহ পাকের অশেষ রহমত আমাদের প্রতি- পবিত্র রমজান মাসের নিকটে এসে পৌঁছেছি আমরা। এ মাস আল্লাহ তা‘আলার এক বিশেষ নিয়ামাত। এটি সাওয়াব অর্জন করার মাস। সাওয়াবের মওসুম। এ মাসেই অবতীর্ণ হয়েছে পবিত্র গ্রন্থ আল কুরআন। রহমাত, বরকত ও নাজাতের বারতা নিয়ে আসে রমজান মাস। আল কুরআনে এসেছে:

شَهْرُ رَمَضَانَ الَّذِيَ أُنزِلَ فِيهِ الْقُرْآنُ هُدًى لِّلنَّاسِ وَبَيِّنَاتٍ مِّنَ الْهُدَى وَالْفُرْقَانِ فَمَن شَهِدَ مِنكُمُ الشَّهْرَ فَلْيَصُمْهُ وَمَن كَانَ مَرِيضًا أَوْ عَلَى سَفَرٍ فَعِدَّةٌ مِّنْ أَيَّامٍ أُخَرَ يُرِيدُ اللّهُ بِكُمُ الْيُسْرَ وَلاَ يُرِيدُ بِكُمُ الْعُسْرَ وَلِتُكْمِلُواْ الْعِدَّةَ وَلِتُكَبِّرُواْ اللّهَ عَلَى مَا هَدَاكُمْ وَلَعَلَّكُمْ تَشْكُرُونَ

‘রমযান মাসই হল সে মাস, যাতে নাযিল করা হয়েছে কুরআন, যা মানুষের জন্য হেদায়েত এবং সত্যপথ যাত্রীদের জন্য সুষ্পষ্ট পথ নির্দেশ আর ন্যায় ও অন্যায়ের মাঝে পার্থক্য বিধানকারী। কাজেই তোমাদের মধ্যে যে লোক এ মাসটি পাবে, সে এ মাসের রোযা রাখবে। আর যে লোক অসুস্থ কিংবা মুসাফির অবস্থায় থাকবে সে অন্য দিনে গণনা পূরণ করবে। আল্লাহ তোমাদের জন্য সহজ করতে চান; তোমাদের জন্য জটিলতা কামনা করেন না, যাতে তোমরা গণনা পূরণ কর এবং তোমাদের হেদায়েত দান করার দরুন আল্লাহ তা’আলার মহত্ত্ব বর্ণনা কর, যাতে তোমরা কৃতজ্ঞতা স্বীকার কর।’ [সূরা আল বাকারাহ : ১৮৫]

রমজানুল মুবারকের ফযিলাত:
রমজানুল মুবারকের ফযিলাত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: ‘রমজান- বরকতময় মাস তোমাদের দুয়ারে উপস্থিত হয়েছে। পুরো মাস রোযা পালন আল্লাহ তোমাদের জন্য ফরয করেছেন। এ মাসে জান্নাতের দরজা উন্মুক্ত করে দেয়া হয়, বন্ধ করে দেয়া হয় জাহান্নামের দরজাগুলো। দুষ্ট শয়তানদের এ মাসে শৃংখলাবদ্ধ করে দেয়া হয়। এ মাসে আল্লাহ কর্তৃক একটি রাত প্রদত্ত হয়েছে, যা হাজার মাস থেকে উত্তম। যে এর কল্যাণ থেকে বঞ্চিত হল, সে বঞ্চিত হল (মহা কল্যাণ হতে)।’ [সুনান আত-তিরমিযি: ৬৮৩]

অন্য এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে-

عَنْ سَلْمَانَ الْفَارِسِيِّ قَالَ: خَطَبَنَا رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ آخِرَ يَوْمٍ مِنْ شَعْبَانَ فَقَالَ: يَا أَيُّهَا النَّاسُ إِنَّهُ «قَدْ أَظَلَّكُمْ شَهْرٌ عَظِيمٌ شَهْرٌ مُبَارَكٌ فِيهِ لَيْلَةٌ خَيْرٌ مِنْ أَلْفِ شَهْرٍ فَرَضَ اللَّهُ صِيَامَهُ وَجَعَلَ قِيَامَ لَيْلِهِ تَطَوُّعًا , فَمَنْ تَطَوَّعَ فِيهِ بِخِصْلَةٍ مِنَ الْخَيْرِ كَانَ كَمَنْ أَدَّى فَرِيضَةً فِيمَا سِوَاهُ , وَمَنْ أَدَّى فِيهِ فَرِيضَةً كَانَ كَمَنْ أَدَّى سَبْعِينَ فَرِيضَةً , وَهُوَ شَهْرُ الصَّبْرِ , وَالصَّبْرُ ثَوَابُهُ الْجَنَّةُ الخ

'হযরত সালমান ফারসি রাদিআল্লাহু তাআ'লা আনহু থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শাবানের শেষ দিন আমাদের সামনে খুতবা দিলেন। তাতে বললেন, হে লোক সকল! নিশ্চয় তোমাদের উপরে ছায়া বিস্তার করছে একটি মহান, বরকতময় মাস। যাতে রয়েছে এমন একটি রাত- যা হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ। আল্লাহ তাআ'লা এর দিনের বেলায় রোযা ফরজ করেছেন আর রাতে কিয়ামকে করেছেন নফল। সুতরাং, এ মাসে যে ব্যক্তি কোন নফল আদায় করবে সে যেন অন্য মাসে একটি ফরজ আদায় করল। আর যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল, সে যেন অন্য মাসে সত্তুরটি ফরজ আদায় করল। এ মাস হল ছবরের মাস। আর ছবরের পুুরস্কার হল জান্নাত।' {মুসনাদুল হারেস, হাদীস নং-৩২১, শুয়াবুল ঈমান, হাদীস নং-৩৩৩৬, সহীহ ইবনে খুজাইমা, হাদীস নং-১৮৮৭, কানযুল উম্মাল, হাদীস নং-২৩৭১৪, মিশকাতুল মাসাবীহ, হাদীস নং-১৯৬৫}

এ মাসে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আমল রয়েছে, যেগুলো পালন করার মাধ্যমে আমরা আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআ'লার নৈকট্য অর্জনের পথে ধাবিত হতে পারি, জান্নাতপ্রাপ্তির আশা আর জাহান্নাম থেকে মুক্তির প্রত্যাশা পোষন করতে পারি। রমজান মাসের বিশেষ বিশেষ আমল সম্পর্কে অত্র নিবন্ধে সামান্য আলোকপাতের চেষ্টা থাকবে ইনশাআল্লাহ। তবে সকল প্রকারের নেক আমল কবুলযোগ্য হওয়ার জন্য কিছু বিষয়ের প্রতি আমাদের লক্ষ্য রাখা বাঞ্চনীয়:

প্রথমত: ইখলাস তথা ‘একনিষ্ঠতা'। প্রতিটি আমল একনিষ্ঠতার সাথে একমাত্র আল্লাহ তা‘আলার জন্যে করা। সুতরাং, কোনো আমল করার পেছনে উদ্দেশ্য যদি থাকে টাকা উপার্জন কিংবা নেতৃত্ব অর্জন অথবা সুনাম সুখ্যাতি অর্জন; সে আমল হয়ে যাবে ইখলাসশুন্য। এমনসব ইবাদাত বা নেক আমলের দ্বারা আল্লাহ তাআ'লার সন্তুষ্টি অর্জিত হবে না, প্রকারান্তরে তা পরিনত হতে পারে শিরকের মত গোনাহে। যেমন মহাগ্রন্থ আল কুরআনে এসেছে:

وَمَا أُمِرُوا إِلَّا لِيَعْبُدُوا اللَّهَ مُخْلِصِينَ لَهُ الدِّينَ

'আর তাদেরকে কেবল এই নির্দেশ দেয়া হয়েছিল যে, তারা যেন আল্লাহর ইবাদাত করে তাঁরই জন্য দীনকে একনিষ্ঠ করে।' [সূরা আল-বাইয়্যেনাহ : ৫]

দ্বিতীয়ত: প্রতিটি ইবাদাতের ক্ষেত্রে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের অনুসরণ অনুকরণকে আবশ্যক করে নেয়া। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের যে সকল ইবাদাতের কথা নির্ভরযোগ্য সূত্রের মাধ্যমে আমাদের নিকট পৌঁছেছে, হাদিসে উল্লেখিত সেই আমলগুলো পরিপূর্ণভাবে অনুসরণ করতে হবে। মেনে চলতে হবে। এক্ষেত্রে আমাদের কোনো হ্রাস বৃদ্ধির এখতিয়ার নেই। মনে রাখতে হবে, ইবাদাত তো কেবলমাত্র তা-ই, যা রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শিখিয়ে দিয়েছেন। আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে আমলগুলো যেভাবে নিজে করেছেন, তাঁর সঙ্গী সাথী ন্যায়পরায়ন, সত্যের মাপকাঠি আসহাবগন করেছেন ঠিক সেভাবেই অামাদেরও করতে হবে। এ বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েই কুরআনে হাকিমে ইরশাদ হয়েছে:

مَا آتَاكُمُ الرَّسُولُ فَخُذُوهُ وَمَا نَهَاكُمْ عَنْهُ فَانتَهُوا

‘এবং রাসূল তোমাদের জন্য যা নিয়ে এসেছেন তা তোমরা গ্রহণ কর, আর যা থেকে সে তোমাদের নিষেধ করে তা থেকে বিরত হও’ [সূরা হাশর: ৭]

কোনো বাড়তি বিষয় ইবাদতের অন্তর্ভূক্ত করা যাবে না। সে কারণেই রাসূলে আরাবি সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: ‘যে এমন ইবাদত করল যাতে আমাদের কোন নির্দেশনা নেই তা পরিত্যাজ্য হিসাবে গণ্য হবে’’। [সহীহ মুসলিম : ৪৫৯০]

রমজান মাসের গুরুত্বপূর্ণ আমলগুলো হলো:

এক. রোজা বা সিয়াম পালন করা: রোজা বা সিয়াম ইসলামের পাঁচটি রুকনের অন্যতম। আর রমজান মাসে সিয়াম পালন করা ফরজ। সেজন্য রমজান মাসের প্রধান আমল হলো সুন্নাহ মোতাবেক সিয়াম পালন করা। মহান আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা বলেন:

فَمَن شَهِدَ مِنكُمُ الشَّهْرَ فَلْيَصُمْهُ

'সুতরাং তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি মাসটিতে উপস্থিত হবে, সে যেন তাতে সিয়াম পালন করে।' [সূরা আল-বাকারাহ : ১৮৫]

সিয়াম পালনের ফযিলাত সম্পর্কে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক হাদিসে বলেছেন: ‘যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে ইখলাস নিয়ে অর্থাৎ একনিষ্ঠভাবে আল্লাহ পাককে সন্তুষ্ট করার জন্য রমজানে সিয়াম পালন করবে, তার অতীতের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’ [সহীহ বুখারী : ২০১৪]

আরেক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে: ‘যে কেউ আল্লাহ তাআ'লার রাস্তায় (অর্থাৎ শুধুমাত্র আল্লাহ তাআ'লাকে খুশী করার জন্য) একদিন সিয়াম পালন করবে, তাদ্বারা আল্লাহ তাআ'লা তাকে জাহান্নামের অগ্নি থেকে সত্তর বছরের রাস্তা পরিমাণ দূরবর্তী স্থানে রাখবেন’। [সহীহ মুসলিম : ২৭৬৭]

দুই. সময় মত নামাজ আদায় করা: পবিত্র রমজান মাস নেক আমলের ট্রেইনিং এর মাস। এ মাসে সিয়াম পালনের সাথে সাথে সময়মত পাঁচ ওয়াক্ত নামায আদায় করার প্রতি মনযোগী হতে হবে। এমনটা যেন না হয় যে, আমার কাজ শেষ করে তবেই আমি নামাজ আদায় করে নেব। বরং সময়মত নামাজ আদায় করে আমি আমার অসম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন করবো। হাদিসে নামাজকে জান্নাতের চাবি বলা হয়েছে। আর নামাজের প্রতি যত্নবান হওয়ার মাধ্যমে জান্নাতে যাওয়ার পথ সুগম হয়। কুরআন মাজীদে বলা হয়েছে:

إِنَّ الصَّلاَةَ كَانَتْ عَلَى الْمُؤْمِنِينَ كِتَابًا مَّوْقُوتًا

‘নিশ্চয় সালাত মুমিনদের উপর নির্দিষ্ট সময়ে ফরয।’ [সূরা নিসা : ১০৩]

হাদিস শরিফেও এ বিষয়ে নির্দেশনা এসেছে। আব্দুল্লাহ ইবন মাসউদ রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, 'আমি বললাম, হে আল্লাহর নবী! কোন আমল জান্নাতের অতি নিকটবর্তী? তিনি বললেন, সময় মত নামায আদায় করা।' [সহীহ মুসলিম : ২৬৩]

তিন. সহীহভাবে কুরআন শেখা: মহাগ্রন্থ আল কুরআন নাযিল হয়েছে পবিত্র রমজান মাসে। তাই এ মাসের অন্যতম আমল হলো সহীহভাবে কুরআন তিলাওয়াত করা। তিলাওয়াতে অক্ষম ব্যক্তিবর্গের জন্য তিলাওয়াত শিখে নেয়া। আর আমাদের জন্য কুরআন শিক্ষা করাকে ফরয করা হয়েছে। যেমন, কুরআনুল কারিমে ইরশাদ হয়েছে:

اقْرَأْ بِاسْمِ رَبِّكَ الَّذِي خَلَقَ

‘পড়ুন আপনার রবের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেন।’ [সূরা আলাক : ১]

হাদিস শরিফে এসেছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কুরআন শেখার নির্দেশ দিয়ে বলেন: ‘তোমরা কুরআন শিক্ষা কর এবং তিলাওয়াত কর।’ [মুসনাদ আলজামি : ৯৮৯০]

চার. অপরকে কুরআন তিলাওয়াত শেখানো: রমজান মাস অপরকে কুরআন শেখানোর উত্তম সময়। এ মাসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে সাহাবীদেরকে কুরআন শিক্ষা দিতেন। এ বিষয়ে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: ‘তোমাদের মধ্যে সর্বোত্তম ব্যক্তি তিনিই, যিনি নিজে কুরআন শিক্ষা করেন এবং অপরকে শিক্ষা দেন।’ [সহীহ আল-বুখারী : ৫০২৭]

‘যিনি আল্লাহর কিতাব থেকে একটি আয়াত শিক্ষা দিবেন, যত তিলাওয়াত হবে তার সাওয়াব তিনি পাবেন।’ [সহীহ কুনুযুস সুন্নাহ আন-নবুবিয়্যাহ : ০৭]

পাঁচ. রাত্রির শেষ প্রহরে সাহরী খাওয়া: সাহরী খাওয়ার মধ্যে বরকত রয়েছে এবং সিয়াম পালনে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। হাদিস শরিফে বর্ণিত হয়েছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন: ‘সাহরী হল বরকতময় খাবার। তাই কখনো সাহরী খাওয়া বাদ দিয়ো না। এক ঢোক পানি পান করে হলেও সাহরী খেয়ে নাও। কেননা সাহরীর খাবার গ্রহণকারীকে আল্লাহ তা‘আলা ও তাঁর ফেরেশতারা স্মরণ করে থাকেন।’ [মুসনাদ আহমাদ : ১১১০১, সহীহ]

ছয়. সালাতুত তারাবীহতে অংশগ্রহন করা: রমজানের প্রতি রাতে সালাতুত তারাবীহ পড়া এ মাসের অন্যতম আমল। তারাবীহ পড়ার সময় তার হক আদায় করতে হবে। হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে: ‘যে ব্যক্তি ঈমানের সাথে সাওয়াব হাসিলের আশায় রমজানে কিয়ামু রমাদান (সালাতুত তারাবীহ) আদায় করবে, তার অতীতের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’ [সহীহ আল-বুখারী : ২০০৯]

তারাবীহ এর সালাত তার হক আদায় করে অর্থাৎ ধীরস্থীরভাবে সময় নিয়ে আদায় করতে হবে। তারাবীহ জামায়াতের সাথে আদায় করা সুন্নাহ এর অন্তর্ভুক্ত। হাদীসে আছে: ‘যে ব্যক্তি ইমামের সাথে প্রস্থান করা অবধি সালাত আদায় করবে (সালাতুত তারাবীহ) তাকে পুরো রাত কিয়ামুল লাইলের সাওয়াব দান করা হবে।’ [সুনান আবূ দাউদ : ১৩৭৭, সহীহ]

ইদানিং তারাবীহ নামাজের রাকাআত সংখ্যা নিয়ে আমাদের সমাজে একটি স্বার্থান্বেষী মহল কর্তৃক সাধারন মুসল্লিদের ভেতরে মতপার্থক্য ও বিভেদ সৃষ্টির পায়তারা লক্ষ্য করা যাচ্ছে, যা মোটেই কাম্য নয়। যদিও বিগত প্রায় দেড় হাজার বছর যাবত পবিত্র মক্কাতুল মুকাররমাহতে অবস্থিত বাইতুল্লাহ শরিফে এবং মদিনাতুল মুনাওওয়ারাহতে অবস্থিত মাসজিদে নববীতে জামাআতের সাথে ২০ রাকাআত তারাবীহর নামাজই চলে আসছে।

তারাবীহ নামাজের রাকাআত সংখ্যা নিয়ে দলিলসহ বিস্তারিত জানতে আমার এই পোস্ট থেকে ঘুরে আসার আমন্ত্রণ থাকলো: তারাবীহ নামায বিশ রাকাতঃ একটি দলীলভিত্তিক পর্যালোচনা

পবিত্র রমজানের ফজিলত, গুরুত্ব ও তাৎপর্য বিষয়ে পুরনো গুরুত্বপূর্ণ এই পোস্টটিও দেখা যেতে পারে -

মাহে রমজানের ফজিলত, গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ছবি কৃতজ্ঞতা: অন্তর্জাল।

ইনশাআল্লাহ চলবে-
সর্বশেষ এডিট : ২৫ শে এপ্রিল, ২০১৯ রাত ৯:৩১
৭টি মন্তব্য ৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বিবর্ণ জীবন

লিখেছেন মুক্তা নীল, ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:০৮



কেস স্টাডি ১ : কণা ও আবিরের সাত বছরের সম্পর্কের সমাপ্তি ঘটে দুই পরিবারের বিয়ের সম্মতিতে।আবির চাকরি করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে আর কনা বেসরকারি ব্যাংকে। বিয়ের চার... ...বাকিটুকু পড়ুন

এলোমেলো ডায়েরী: শৈশবের ৯ টি সবচেয়ে স্বস্তির, মজার মুহূর্ত! আমার সাথে আপনারটা মেলে কি? :) :)

লিখেছেন সামু পাগলা০০৭, ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ বিকাল ৫:৫৫



পূর্বের পর্বগুলো: এলোমেলো ডায়েরি: ঈদ ইন বিদেশ ভার্সেস বাংলাদেশ। দেশীয় ঈদের যে ৬ টি জিনিস প্রবাসে সবচেয়ে মিস করি!
[link|https://www.somewhereinblog.net/blog/samupagla007/30250594|এলোমেলো ডায়েরী (২): ৭ টি গা জ্বালানি বাংলাদেশী... ...বাকিটুকু পড়ুন

রাশিয়ান নিউক্লিয়ার মনিটরিং স্টেশন এর নিরবতাঃ কিসের আভাস?

লিখেছেন আর্কিওপটেরিক্স, ২০ শে আগস্ট, ২০১৯ সন্ধ্যা ৭:২২


৮ই আগষ্ট রাশিয়ান মিলিটারি টেস্টিং ফ্যাসিলিটিতে একটি বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর থেকে রাশিয়ার ৪টি নিউক্লিয়ার মনিটরিং স্টেশন থেকে ডেটা ট্রান্সমিশান বন্ধ হয়ে গেছে। এই মনিটরিং স্টেশনগুলো বাতাসে রেডিয়েশান লেভেল... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমন্বিতা

লিখেছেন পদাতিক চৌধুরি, ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ রাত ১২:২০



সাহেবকে বলে আজ একটু তাড়াতাড়ি অফিস থেকে বার হলাম। নাহ আজ আর অন্য কোথাও যাব না, তাড়াতাড়ি বাড়িতে ফিরতে হবে। দ্রুত পা চালিয়ে স্টেশনে গেলাম। বেশিক্ষণ দাঁড়াতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মাটিতে পুতা কুরবানীর পশুর চামড়াই ধ্বংসের হাতিয়ার হয়ে ঝাপিয়ে পড়ুক চামড়াশিল্পের অশুভ সিন্ডিকেট বিনাশে

লিখেছেন ডঃ এম এ আলী, ২১ শে আগস্ট, ২০১৯ ভোর ৬:০৭


ছবি সুত্র : Click This Link

পর্ব-১ : চামড়া শিল্পের পতনকে চামড়ার চাবুক মেরেই প্রতিকার

কোরবানির পশুর চামড়ার বাজারে ধ্বস নেমেছে। কোরবানির চামড়ার বাজারে ধ্বস নামার নেপথ্য কারণ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×