somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

দরবেশ সৈয়দী মাওলা হত্যা ও সুলতানের পরিণতি

১৩ ই জুন, ২০২৪ রাত ১০:১৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

আজ একজন দরবেশের ঘটনা বলবো। ঘটনাটি ঐতিহাসিক জিয়া উদ্দীন বরানী তার তারিখ-ই-ফিরোজশাহী বইতে উল্লেখ করেছেন। উইকিপিডিয়াতেও ওই দরবেশের বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ নেই। ইন্টারনেটে বাংলা বা ইংরেজি ভাষায় ঘটনার বিস্তারিত নেই৷ ভারতের টেক্সটবুকে এ বিষয়ে প্রশ্ন দেখেছি।

ওই দরবেশের নাম সৈয়দী মওলা। তবে ইংরেজিতে তার নাম লেখা হয় সিদি মাওলা। সুলতান গিয়াস উদ্দীন বলবনের আমলের প্রথম দিকে পারস্য হতে দিল্লী শহরে আসেন। সৌম্য দর্শন৷ তাঁর কাজকর্ম অনেকটা অদ্ভুত ছিল। অনেক দান-খয়রাত করতেন৷ তবে জুমার দিন তিনি মসজিদে নামাজ পড়তে যেতেন না। পড়লেও বুজর্গানে দীনের চর্চিত জমাতের প্রতি তাঁর কোন আকর্ষণ ছিল না। এ কারণে শরীয়তি আলেমরা তাকে বাঁকা দৃষ্টিতে দেখতেন৷ তবে তিনি সারাক্ষণ জিকির আজকার করে সময় পার করতেন৷ জামা ও চাদর পরতেন। সাধারণ তরকারী দিয়ে চালের রুটি খেতেন। তাঁর কোন স্ত্রী পুত্র ও দাসদাসী ছিলনা। কোনো ধরণের আমোদ প্রমোদেও যোগ দিতেন না। তিনি কারো কাছে কিছু চাইতেন না। তবে এত বেশি খরচ করতেন যে, লোকজন অবাক হয়ে যেতো। বলতো, সৈয়দী মওলা যাদুবিদ্যা জানেন। তাঁর খানকার সামনের ময়দানে প্রচুর অর্থব্যয় করে একটি  আলীশান দালান নির্মাণ করেছিলেন। সেই ভবনে বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রচুর মেহমান আসতেন। তাদের জন্য রান্না হতো। অনেক ধরনের খাবার দস্তরখানে পরিবেশন করা হতো। ওই সময় ধনীদের পক্ষেও এমন খাবার জুটানো কঠিন ছিল। এই প্রাসাদোপম খানকায় সৈয়দী মওলা জলসা করতেন। হাজার দুই হাজার মণ ময়দা, পাঁচ ছয় শত গরু, ছাগল, দুই তিন শত মণ চিনি, এক দুই শত মণ তরিতরকারী কিনে খানকাহের সামনে স্তুপ করে রাখা হতো। তাঁর অধীনে কেতা বা জায়গীর হিসাবে কোন গ্রাম ছিল না। কোন উপহার পেতেন না। কোন নজরানাও গ্রহণ করতেন না। মালপত্র সরবরাহকারীদের বলতেন, অমুক স্থানে যাও। সেখানে ইট বা পাথরের নীচে তঙ্কা (তৎকালীন টাকা) আছে। লোকজন তাঁর নির্দেশ মতো ইট বা পাথরের নীচে প্রয়োজনীয় তঙ্কা পেয়ে যেতেন। এসব তঙ্কা টাকশাল হতে মাত্র আনা হয়েছে বলে মনে হতো।

জিয়া উদ্দিন বারানী উল্লেখ করেন,  আমি আমার শিক্ষক ও সহপাঠিদের সাথে সৈয়দী মওলাকে দেখতে যেতাম। সেখানে খাওয়া দাওয়া করতাম। সৈয়দী মওলার দরজায় সবসময় মানুষের ভীড় লেগে থাকতো। এসব লোকজনের মধ্যে আমীর উমরাহদেরকেও দেখা যেতো। জিয়া উদ্দিন বারানী লিখেছেন, আমি শুনে ছিলাম যে, সৈয়দী মওলা দিল্লী আসার পর একদিন শেখ ফরিদের কাছে গিয়ে দুই-তিন দিন অবস্থান করেন। শেখ ফরিদ তাকে বলেছিলেন, হে সৈয়দী তুমি দিল্লীতে থাকবে।সেখানে তোমার খানকায় লোকজন ভীড় করবে। চারদিকে তোমার খ্যাতি ছড়িয়ে পড়বে। এই অবস্থায় তোমার যা ভাল মনে হয়, তা তুমি করতে পারো। তবু আমার একটি উপদেশ স্মরণ রেখো, কখনও হোমড়া চেমড়াদের সঙ্গে মেলামেশা করবা না। তোমার দরজায় তাদের আগমনকে সাক্ষাৎ বিপদ বলে মনে করবা। কারণ যে দরবেশ আমীর মালীকদিগের সঙ্গে মেলামেশা করে, তার পরিণাম অনেক ভয়াবহ হয়ে থাকে।

যাই হোক, সুলতান গিয়াস উদ্দীন বলবনের আমলে সৈয়দী মওলা পক্ষে এ ধরনের ব্যয় সম্ভব হয়নি। তবে তার নাতি সুলতান মুইজ উদ্দিন কায়কোবাদের (১০ মামলুক সুলতান ও বাংলার সুলতান বুগরা খানের পুত্র)  সময় তাঁর এলাহি কান্ড শুরু হয়। তাঁর খেদমতে আগত বিশিষ্টজনকে দুই পাঁচ হাজার তঙ্কা উপহারও দিতেন। এসময় মালিক আমীরদের সঙ্গেও তার মেলামেশা শুরু হয়। কায়কোবাদের মৃত্যূর পর বিশিষ্টজনরা তার শিশুপূত্র শামসউদ্দিন কায়ুমারসকে ক্ষমতায় বসান৷অন্যদিকে গুরুত্বপূর্ণ আধিকারিক জালাল উদ্দীনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়৷ জালাল উদ্দীন তাদের হত্যা করেন৷ পরে শিশু কায়ুমারসকে সরিয়ে কেউ বলেন হত্যা করে, কেউ বলেন অনাহারে মেরে সুলতান জালাল উদ্দীন খিলজি ক্ষমতা দখল করেন। শুরু হয় খিলজি শাসন। আর খিলজি আমলে সৈয়দী মওলার প্রভাব বেড়ে যায়। সুলতানের বড় পুত্র আরকলি খান তার ভক্ত ও অনুগত হয়ে যান। মওলা তাকে পুত্র হিসেবে গ্রহণ করেন। দিল্লীর কাজী জালাল কাশানীর সঙ্গেও তাঁর হৃদ্যতা জন্মে। কাজী সাহেব বিশিষ্ট প্রভাবশালী লোক হলেও সুলতানের খুব অনুগত ছিলেন না। তিনি দুই তিন রাত সৈয়দী মওলার খানকাতে থাকতেন এবং তাঁদের মধ্যে অনেক বিষয়ে আলোচনা চলতো। এছাড়াও সুলতান বলবনের কর্মচারীদের পুত্ররা সেখানে আসর জমাতেন।এরা একসময়ে আমীরের মতো জীবন যাপন করতেন। তবে জালালুদ্দীনের আমলে নিঃস্ব হয়ে যান। এছাড়াও কতোয়াল বরঞ্জতন ও হাতিয়া পায়েকের মতো পাহলোয়ান শ্রেণির মতো লোকও আসতেন। কিছু সংখ্যক পদচ্যুত আমীরও সৈয়দী মাওলার খানকাহকে আশ্রয়স্থল বানিয়ে ফেলে। তারা অনেকেই রাতে থাকতেন। কে কী তা নিয়ে সৈয়দী মওলার মাথাব্যথা ছিলনা। তিনি সবাইকে সহায়তা করতেন। মানুষ জানত যে, সৈয়দী মওলার খানকায় তাবারুক লাভের জন্যই লোকজনের এই ভীড়। পরে এ নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু হয়। লোকজনের কানাঘুষা বেড়ে যায়।

সুলতান খবর পেলেন- কাজী জালান কাশানী, আগের আমীর, কতোয়াল বরঞ্জতন ও হাতিয়া পায়েক রাতের পর রাত সৈয়দী মওলার সঙ্গে বসে বিদ্রোগের ষড়যন্ত্র করে। তারা ঠিক করে যে, জুমার দিনে সুলতান জালাল উদ্দিন মসজিদে যাওয়ার কালে কতোয়াল বরঞ্জতন ও হাতিয়া পায়েক জীবন বিসর্জন দিয়ে সুলতানকে হত্যা করবে। আর এই গোলযোগের মধ্যে সৈয়দী মওলাকে ডেকে এনে বাকীরা খলীফা বলে ঘোষণা করবে। এছাড়াও সুলতান নাসির উদ্দিনের কন্যাকে সৈয়দীর হস্তে ন্যাস্ত করা হবে। কাজী জালাল কাশানী খান পদে নিযুক্ত হয়ে মুলতান রাজ্যটি কেতা হিসাবে লাভ করবেন। বাকীদের অন্যান্য জায়গায় অনুরূপ পদ ও জায়গীর প্রদান করা হবে।

এদের মধ্যে দিল্লীর কোন এক বিশিষ্ট লোকও ছিলেন। তিনি সুলতানের কাছে গিয়ে সব বলে দিলেন। সুলতান জালাল উদ্দিন সাথে সাথেই সৈয়দী মওলাসহ সবাইকে গ্রেফতার করেন। তাদেরকে দরবারে উপস্থিত করা হয়। সুলতান প্রত্যেককে ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করেন। তবে সবাই একবাক্যে বিষয়টি অস্বীকার করে। ওই সময়ে কোন অপরাধ অস্বীকারকারীকে মারপিটের রীতি ছিল না। এরপরেও অপরাধ স্বীকারের জন্য সুলতান তাদেরকে নির্যাতন করার আদেশ দিলেন। বিহারপুরের ময়দানে একটি বড় অগ্নিকুণ্ড তৈরি করা হয়। সুলতান সভাসদদের নিয়ে সেখানে যান। তাঁবু দিয়ে একটি বিশেষ দরবার তৈরি করা হয়। দিল্লীর বিশিষ্ট লোকেরা সকলে সেখানে উপস্থিত হলেন। সাধারণ মানুষও ঘটনা দেখার জন্য ভীড় জমায়। 

সুলতান অভিযুক্তদের আগুনে নিক্ষেপ করার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন। বললেন, তারা সৎ হলে আগুন তাদের ক্ষতি করবেনা। উপস্থিত আলেমদের কাছে এই ব্যাপারে ফতোয়া জিজ্ঞাসা করা হলো। তাঁরা একবাক্যে বললেন, কোন বস্তুকে জ্বালিয়ে দেয়া আগুনের স্বভাব। সে কারণে এ ধরণের কোন পদার্থ দ্বারা কোন বিষয়ে সত্যমিথ্যা নির্ধারণ করা বৈধ হবে না। এ ছাড়াও ষড়যন্ত্র সম্পর্কে মাত্র একজন ব্যক্তির সাক্ষ্য পাওয়া গেছে। এমন এক মারাত্মক বিষয়ে একমাত্র ব্যক্তির সাক্ষ্য কোন প্রকারেই গ্রাহ্য করার সুযোগ নেই। শেষ পর্যন্ত সুলতান বাধ্য হয়ে নির্যাতনের ইচ্ছা পরিত্যাগ করলেন।

পরবর্তীতে সুলতান অভিযুক্তদের নেতা কাজী জালাল কাশানীকে কাজীর পদে নিয়োগ দিয়ে বাদাউন পাঠান। অন্যান্য আমীর ওমরাহদের নির্বাসনে পাঠান। তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করেন। কতোয়াল বরঞ্জতন ও হাতিয়া পায়েককে হত্যা করা হয়। সবশেষে সৈয়দী মওলাকে হাত পা বেঁধে সুলতানের সামনে উপস্থিত করা হয়। সুলতানের সাথে সৈয়দী মওলার তর্ক শুরু হয়। আলেমদের একটি দল সৈয়দী মওলার প্রতি বিরূপ ছিলেন। সুলতান সৈয়দী মওলার বিরোধী শেখ আবু বকর তুসী হায়দরী নামের অন্য একজন দরবেশকে দলবলসহ দরবারে হাজির রাখেন। সুলতান তাদেরকে লক্ষ্য করে সৈয়দীর বিচার করতে বলেন। এতে তাদের একজন ছুরি নিয়ে সৈয়দী মওলার ওপর আক্রমন করে। এতে সৈয়দী মওলা আহত হন। আগে বলেছিলাম, সুলতান জালাল উদ্দীনের বড় পুত্র আরকলি খান সৈয়দী মওলার ভক্ত ছিলেন। সৈয়দী মওলা তাকে পুত্র মনে করতেন। সেই আরকলি খান সৈয়দী মওলার উপর আক্রমনের জন্য হাতীর মাহুতদের ইঙ্গিত দিলেন। রাজকীয় হাতী এগিয়ে এসে সৈয়দী মওলাকে পায়ের নিচে ফেলে হত্যা করে।

ঐতিহাসিকরা বলেছেন, জালালুদ্দীন সুলতান হিসেবে দয়ালু, নম্র ও সদাশয় ছিলেন। কারো প্রতিশোধ নিতেন না। মাফ করে দিতেন। তবে বিদ্রোহের ষড়যন্ত্র শুনে স্থির থাকতে পারেন নি। দিল্লীর সুলতানি দরবার একজন দরবেশের রক্তে রঞ্জিত হয়ে গেলো। এরপরের ইতিহাস অত্যন্ত করুণ। চলুন শুনে আসি সুলতান জালাল উদ্দীন খিলজির আমলে সৈয়দী মওলাকে শহীদ করার পর কী হয়েছিল।

ঐতিহাসিক জিয়া উদ্দিন বারানী লিখেছেন, ‘আমি নিজ কানে শুনেছি, সৈয়দী মওলার নিহত হওয়ার পর আকাশ মেঘে ঢেকে যায়। দিল্লী অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। এর পর থেকে সুলতান জালাল উদ্দিনের বাদশাহী বিশৃঙ্খল হয়ে পড়ে। জ্ঞানীরা বলেছেন, দরবেশ হত্যা ভাল কাজ নয়। এটা কোন বাদশাহের পক্ষেই কল্যাণকর হয় না। সৈয়দী মওলার নিহত হওয়ার পর থেকে বৃষ্টি বন্ধ হয়ে যায়। দিল্লীতে দুর্ভিক্ষ শুরু হয়। দুর্ভিক্ষের কবলে পড়ে বিভিন্ন রাজ্য হতে হিন্দুরা পরিবার পরিজন নিয়ে দলে দলে দিল্লীতে আসতে থাকে। কোন খাবার না পেয়ে ক্ষুধার তাড়নায় বিশ ত্রিশ জন একত্রিত হয়ে যমুনার গর্ভে আত্মবিসর্জন দিতে আরম্ভ করে। আর অন্যদিকে সুলতান জালাল উদ্দিনের রাজমহল অস্থির হয়ে ওঠে।পরিবারে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।’

চলুন সুলতান জালাল উদ্দীন খিলজির শেষ পরিণতি জেনে আসি। 

সুলতান জালাল উদ্দীনের এক ভাইয়ের নাম ছিল আলাউদ্দিন সিহাব। তিনি মারা গেলে চার শিশুপুত্রকে সুলতান জালাল উদ্দীন লালন পালন করেন। এদের মধ্যে আলী গুরশাপ ও আলমাস বেগ বড় হলে তাদের সাথে নিজের দুই কন্যার বিয়ে দেন। দিল্লীর ক্ষমতা পাওয়ার পর আলী গুরশাপকে আমিরই তুজুগ বা অনুষ্ঠান মন্ত্রী এবং আলমাস বেগকে আখোর বেক বা ঘোড়া মন্ত্রী বানানো হয়। পরে আলী গুরশাপকে কোড়া ও অযোধ্যার কেতার দায়িত্ব দেয়া হয়।

সুলতান জালাল উদ্দীনের স্ত্রীর নাম ছিল মালিকা ই জাহান। তার কথায় আশি বছরের বৃদ্ধ সুলতান উঠতেন বসতেন। আলী গুরশাপ তার শাশুড়ি মালিকা জাহান ও স্ত্রীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে গেলেন। সুলতানের কাছে বলতে পারলেন না। অন্যদিকে সুলতানের কন্যা তার স্বামী আলী গুরশাপের বিষয়ে সতর্ক হতে বললেও সুলতান তাতে কর্ণপাত করলেন না।

আলী গুরশাপ তাদের প্রভাব ছিন্ন করে দূরে কোথাও চলে যেতে মনস্থির করলেন। এর মধ্যে আলী গুরশাপ ভিলসা অভিযান করে প্রচুর ধনরত্ন সুলতানের দরবারে হাজির করেন। তিনি সুলতানকে কোড়া ও অযোধ্যার রাজস্ব প্রেরণ থেকে মুক্তি চাইলেন। এর অর্থ দিয়ে তিনি সৈন্য সংগ্রহ করবেন। এরপর চান্দেরি ও আশপাশের এলাকা দখল করে সুলতানের অধীনে নিয়ে আসবেন। সেখান থেকে প্রাপ্ত ধনসম্পদ সুলতানের দরবারে এনে হাজির করবেন। সুলতান আরো সম্পদের লোভে তাকে রাজস্ব থেকে অব্যাহতি দিলেন।

আর ওদিকে আলী গুরশাপ কোড়া ফিরে সঞ্চিত অর্থ দিয়ে চার হাজার অশ্বারোহী ও দুই হাজার পদাতিক সৈন্য সংগ্রহ করেন। সুলতানের অজান্তে ধনসম্পদে পূর্ণ দেবগিরি আক্রমনের প্রস্তুতি নিতে থাকেন। সেকালে সকল কেতাদের দিল্লীতে নিয়মিত খবর পাঠাতে হতো। আলী গুরশাপ নিজের বাধ্যগত চাচাকে ভুয়া সংবাদ প্রেরণের দায়িত্ব দিয়ে দেবগিরি আক্রমন করতে গেলেন। খুব সহজেই রাজা রামদেবকে পরাজিত করে দেবগিরি দখল করেন।

ঐতিহাসিকরা বলেন, দেবগিরি থেকে এত সম্পদ লুণ্ঠন করা হয় যে, তা রামদেবের পিলখানার তিনশ হাতি ও কয়েক হাজার ঘোড়াকে সে সব সম্পদ বহন করতে হয়। এর মধ্যে কোহিনুর হিরাও ছিল। একসময় সুলতান দেবগিরি দখল ও সম্পদ লুণ্ঠনের বিষয়ে জানতে পারলেন। তিনি সভাসদদের কাছে করণীয় বিষয়ে পরামর্শ চাইলেন। তার প্রধান পরামর্শদাতা আহমদ চপ দ্রুত সেনাবাহিনীসহ এগিয়ে গিয়ে আলী গুরশাপকে সম্পদ প্রদানে বাধ্য করার পরামর্শ দিলেন। সুলতানের এ পরামর্শ পছন্দ হলোনা। তিনি অন্য সভাসদদের কাছ থেকে নিজের মন মতো পরামর্শ গ্রহণ করেন। আহমদ চপ তখন একটি কবিতা আবৃত্তি করেছিলেন, “যখন মানুষের দুর্ভাগ্য উপস্থিত হয়, তখন সকল প্রচেষ্টাই ব্যর্থ হয়ে যায়।”

এর মধ্যে আলী গুরশাপ প্রতারণাপূর্ণ এক চিঠি সুলতানের কাছে পাঠালেন। তাতে বললেন, আমি বছরের বেশি সময় ধরে বিনা অনুমতিতে যুদ্ধে ছিলাম। খবর দিতে পারিনি৷ আমার অনুপস্থিতিতে অনেকেই সুলতানের কানভারি করেছেন। সুলতানের অভয় বাণি পেলে, সকল সম্পদ সুলতানের পায়ের কাছে এনে হাজির করবো। না হলে বিষপূর্ণ পাত্র নিয়ে বসে রয়েছি।

সুলতানের রাজ্যের অর্থনৈতিক অবস্থা তখন খারাপ ছিল। তিনি সম্পদের লোভে পড়ে গেলেন। আলী গুরশাপকে সময় দিলেন। আর আলী গুরশাপ ওই সুযোগে নিজ চাচা ও শ্বশুড়কে হত্যার প্রস্তুতি নিতে থাকেন। এর মধ্যে গুরশাপ নিজের ভাই আলমাস বেগকে নিজের কাছে নিয়ে নিলেন। সুলতান জালাল উদ্দীন ষড়যন্ত্রের কিছুই বুঝতে পারলেন না। অন্যদের কথাও কানে নিলেন না। তিনি এক হাজার সৈন্য নিয়ে কোড়ার উদ্দেশ্যে বজরাতে চেপে বসলেন। আর আহমদ চপকে সেনাবাহিনীর প্রধান করে স্খল পথে কোড়ায় যাওয়ার নির্দেশ দিলেন।

রমজান মাস। বর্ষাকাল। চারদিকে পানি। সুলতানের বজরা তখন গঙ্গা নদীতে। অন্যদিকে আল গুরশাপ হাতি ঘোড়া সহ সব সম্পদ নিয়ে কোড়া ছেড়ে গঙ্গা নদী পার হলেন। তারা কোড়া ও মানিকপুরের মাঝে একটি স্থানে নদীর তীরে অবস্থান গ্রহণ করলেন। আলী গুরশাপ তার ভাই আলমাস বেগকে নৌকায় করে সুলতানের কাছে পাঠালেন। যাতে তার সাথে এক হাজার সৈন্য কোন কাজে না লাগে। আলমাস বেগ সুলতানের কাছে গিয়ে বললেন, আমি ভাইকে সান্ত্বনা দিয়েছি। যাতে সে নিজেকে শেষ না করে। সুলতানের সৈন্য দেখলে তার মনে ভয় ঢুকবে। সে নিজেকে শেষ করে দিতে পারে। তার কথামতো সুলতান সৈন্যদের নদীর এপারে রেখে নিজে একা একটি নৌকায় গঙ্গা নদী পার হলেন। সুলতান দেখলেন, আলী গুরশাপ হাতি ঘোড়ায় সম্পদসহ নদীর তীরে সারিবদ্ধভাবে দাড়িয়ে রয়েছে। সঙ্গীরা বুঝতে পারলো, তাদের জীবন শেষ। সাক্ষাতের এ কোন পন্থা। আলমাস বেগ বললেন, আমার ভাইয়ের ইচ্ছা, তার অধীনস্থ সৈন্যরা অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সুলতানকে সালাম জানিয়ে ভূমি চুম্বন করবে। আসন্ন মৃত্যু সুলতানকে তখন অন্ধ করে ফেলেছে। তিনি বললেন, আমি রোজা রেখে এতদূর এসেছি। আর আলী গুরশাপ কী একটু এগিয়েও আসতে পারলোনা। আলমাস বেগ, তাকে বুঝান। ইফতার প্রস্তুত রয়েছে। আপনি সেখানে পৌঁছার পর সালামের পর ইফতারের সময় হলেই সবাই একসাথে ইফতার করবে। সুলতান সামনে রাখা কোরআন পড়ছেন। নৌকা এগিয়ে যায়। অন্যরাও মুত্যু সামনে দেখতে পেয়ে সুরা কালাম যে যা পারেন পড়তে থাকেন। একপর্যায়ে অস্ত্রবিহীন সুলতান নৌকায় করে তীরে গিয়ে পৌঁছান।

জিয়া উদ্দীন বারানী উল্লেখ করেন, সুলতান তীরে গিয়ে পৌঁছালে আলী গুরশাপ এসে সুলতানের পদচুম্বন করেন। সুলতান তাকে বুকে জড়িয়ে ধরেন। বললেন, ছোটবেলায় তো এই বুক ছাড়া থাকতে পারতেনা। এখন তাকেই এত ভয় পাচ্ছো। নিজের ছেলেকে কী কেউ হত্যা করে? এসব কথা বলতে বলেত সুলতান আলী গুরশাপসহ নৌকায় উঠতে গেলেন। এসময় পূর্ব পরিকল্পনামতো মাহমুদ সালেম নামের এক ব্যক্তি সুলতানকে তরবারি দিয়ে আঘাত করে। রোজাদার বৃদ্ধ সুলতান একটু আহত হয়ে নদীর দিকে দৌড় দিলেন। চিৎকার দিয়ে বললেন, হায় দুর্ভাগা আলী! তুই এ কী করলি! এখতিয়ার উদ্দীন নামের আরেকজন সুলতানকে আর কথা বলার সুযোগ দিলোনা। ইফতারের ঠিক আগ মুহূর্তে তার মাথা আলাদা করে ফেললো। জালাল উদ্দীন সদাশয় হয়েও দরবেশ হত্যার পরিণতি ভোগ করলেন। পরে আলী গুরশাপ জালাল উদ্দীনের পুত্রদের হটিয়ে দিল্লীর ক্ষমতা দখল করেন। ইনিই ইতিহাসের আলাউদ্দীন খিলজি। তার নৃশংশতা, হত্যা ঐতিহাসিকরা যেভাবে বর্ণনা করেছেন, তাতে কান্নার শব্দ শুনা যায়। তার সময়েই দিল্লীতে আত্মার চিকিৎসক, সুলতান উল মাশায়েখ, মেহবুব-এ-এলাহী- খাজা সৈয়দ নিজাম উদ্দীন আউলিয়া দিল্লীতে আগমন করেন। আলাউদ্দিন খিলজি নৃশংস হলেও আউলিয়ার ভক্ত ছিলেন। কোন দিন সময় পেলে এ বিষয়ে লিখবো।  
সর্বশেষ এডিট : ১৩ ই জুন, ২০২৪ রাত ১০:৪৬
৬টি মন্তব্য ৬টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মৃত ১১০ জনকে জীবিত ফিরিয়ে আনুন

লিখেছেন চাঙ্কু, ২১ শে জুলাই, ২০২৪ ভোর ৪:০৬



খুব সিম্পল একটা সামাজিক আন্দোলন - কোটা সিস্টেম সংস্কার করে একটা ফেয়ার কোটা সিস্টেম রাখা। আহামরি অন্য কোন দাবীও নাই যা সরকারের পক্ষে রাখা সম্ভব না। শিক্ষামন্ত্রী বা সরকারের... ...বাকিটুকু পড়ুন

আদালতের রায়ে কি সমাধান আসবে? কি হতে পারে বর্তমান অবস্থায়:

লিখেছেন সরলপাঠ, ২১ শে জুলাই, ২০২৪ সকাল ১১:৪৯

কোটা সংস্কার নিয়ে আজকের অগ্নিগর্ভ বাংলাদেশ মূলত সরকারের রাজনৈতিক ভুল সিদ্ধান্তের ফল। গত কয়েকদিনে ২০০ এর অধিক মানুষকে হত্যার জন্যে সরকারই দায়ী। বর্তমান অবস্থায় সরকারের জন্যে সহজ কোন পথ... ...বাকিটুকু পড়ুন

সব কোমলমতি "কোটা পরিবর্তনের" আন্দোলন করেনি!

লিখেছেন সোনাগাজী, ২১ শে জুলাই, ২০২৪ বিকাল ৪:৩৬



**** কোর্ট কোমলমতি ফেইসবুকারদের "মোয়া" ধরায়ে দিয়েছে: কোটার ৯৩% নয়, ১৯৩% চাকুরীও যদি কোমলমতিদের দেয়া হয়, তারপরও ৪০ লাখ শিক্ষিত বেকার থাকবে; কারণ, কোটার শতকরা হার বাড়োনো হয়েছে কোমলমতিদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

দেশে ইন্টারনেট আসার আগে, এই পোষ্টটা সরিয়ে নেবো। (সাময়িক )

লিখেছেন সোনাগাজী, ২১ শে জুলাই, ২০২৪ রাত ৮:০৯



ভোলার মানুষজনের ১টা শান্ত্বনা আছে, উনারা সামান্য পয়সা দিয়েও মাঝে মাঝে ইলিশ পেয়ে থাকেন; অনেকে বিনা পয়সায়ও পেয়ে থাকেন মাঝে মাঝে; ইহা ব্যতিত অন্য কিছু তেমন নেই; ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

×