somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

জুল ভার্ন
এপিটাফ nnএক নিঃশব্দ প্রচ্ছদে ঢাকা আছে আমার জীবনের উপন্যাস...খুঁজে নিও আমার অবর্তমানে...কোনো এক বর্তমানের মায়াবী রূপকথায়।আমার অদক্ষ কলমে...যদি পারো ভালোবেসো তাকে...ভালোবেসো সেই অদক্ষ প্রচেষ্টা কে,যে অকারণে লিখেছিল মানবশ্রাবণের ধারা....অঝোর

"সহস্র এক আরব্য রজনী"র 'শেষ রজনী'....

১৭ ই আগস্ট, ২০২২ সকাল ১০:০৫
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

"সহস্র এক আরব্য রজনী"র 'শেষ রজনী'.... (কঠোরভাবে প্রাপ্তস্কদের জন্য)

(এবার সহস্র এক আরব্য রজনীর 'শেষ রজনী' আমার মতো করে লিখে প্রকাশ করলাম। যদি ব্লগে অপ্রাপ্তবয়স্ক কেউ থাকেন তারা এই লেখা পড়বেন না। যদি ব্লগার বন্ধুদের সমর্থন পাই তাহলে মাঝের পর্ব থেকেও কয়েকটা পর্ব প্রকাশ করতে পারি)


একহাজার একতম কাহিনী শেষ হতে না হতেই শাহানশাহ্ শাহরিয়ার উল্লাসে হুঙ্কার দিয়ে উঠলেন-
"আলহামদুলিল্লাহ্ বেগম শেহেরজাদ! তোমার প্রাণদণ্ড মওকুব। তোমার বোন দিনরাজাদ, আমার ভাই শাহজামানের বিবি হবে"- বলেই শাহরিয়ার শেহেরজাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়লেন.... তাঁর বেগমের ইচ্ছে অনিচ্ছের ধার তিনি কোনওদিনই ধারেননি। মর্দে মুমিন শাসিত সমাজে কোন মর্দই বা আওরাতের ইচ্ছা-অনিচ্ছার ধার ধারে? আওরতের জায়গা বরাবরই মর্দে মুমিনের নীচে। দ্রুত হাতে বেগমকে বিবসনা করে শাহনশা ঝটিতি উপগত হলেন। চুমু জাতীয় ন্যাকামি তার প্রবল পৌরুষ সইতে পারে না। আর, রমণকালে আওরত যন্ত্রণা না পেলে, ইনসান জমিনে জয়ধ্বজা প্রোথিত করে লাভ কী? সঙ্গম শেষে বেগমের সঙ্গে একটি কথাও না বলে নিদ্রায় ডুবে গেলেন বাদশা। ঘুম নেই অতৃপ্ত শেহেরজাদের চোখে। কিসসার কিম্মতে জিন্দেগী পাওয়ার পর তাঁর মনে হচ্ছে, এ যথেষ্ট নয়। আরও কিছু করার ছিল....

অগুনতি মুর্দা আওরত গোর থেকে উঠে এসে যেন তাঁকে সওয়াল করছে- আমাদের মওতের ইন্তেকাম কে নেবে? আমরা বিচার চাই। আসমানের গায়ে ইদের চাঁদ শায়িত অবস্থাতেই দেখতে পাচ্ছেন দুনিয়ার সেরা কিসসাওয়ালী। হঠাৎ তাঁর মনে হলো, চাঁদের আলোর রঙ তাজা খুনের মতো লাল। বাদশার দিকে একবার তাকালেন তিনি। রাতের পর রাত গল্প বলে গিয়ে ওই মর্দকে তিনি চেনাতে চেয়েছেন, মানুষের সম্পর্কের নানা রঙ; কামের হরেক কিসিমের খুশবু; মহব্বতের রকম-বেরকমের স্বাদ। বারবার করে বলতে চেয়েছেন, জীবন সুন্দর। হিংসা নির্বুদ্ধিতা, কোনও ফল হয়নি। এই মুহূর্তে নিদ্রিত পুরুষটি একটু আগে যখন তাঁকে ধর্ষণ করছিলেন, তখনই শেহেরজাদ বুঝে নিয়েছেন, তাঁর সহস্র এক রাত্রি ব্যাপী প্রয়াস, অরণ্যে রোদনে পরিণত হয়েছে। বর্বর, পেশিশক্তি নির্ভর, রুচিহীন, স্থূল এই পুরুষের কাছে বৈদগ্ধ অর্থহীন। এ কেবল পশুশক্তির ভাষাই বুঝবে। অস্ত্র, অস্ত্র চাই একটা।

জলতরঙ্গের আওয়াজ তুলে কে যেন হেসে উঠল। শেহেরজাদ চমকে তাকালেন। ছাদের কাছে, এক পা ভাঁজ করে শূন্যে ভাসছে এক অপরূপা যুবতী। সম্পূর্ণ নগ্ন। তার উত্তুঙ্গ স্তন, গুরু নিতম্ব, গভীর নাভি আর ক্ষীণ কটি দেখে রীতিমত ঈর্ষা অনুভব করলেন শেহেরজাদ। ঈষৎ তপ্ত কন্ঠে প্রশ্ন করলেন,
- কে তুমি?
- আমি জিনি ফিরদৌসী।
- কী চাই?
- একটা হাতিয়ারের কিসসা বলছি শোনো।

শেহেরজাদ আপত্তি করতে পারলেন না। জাদুভরী কন্ঠে বলে চলল ফিরদৌসীঃ
- সওদাগর আবদুল লতিফের বিবি শাবানার খুবসুরতির কথা তামাম বসরায় মশহুর ছিল। একদিন, জনাব লতিফকে বাগদাদ যেতে হলো। শাবানা ঘরে রইলেন। অনেক দিন থেকেই সুযোগ খুঁজছিল জহরত ব্যাপারী আবু হাসান। শাবানাকে তার চাই..... সমস্ত বাঁদি আর বান্দাকে ঘুষ খাইয়ে রেখেছিল সে। যেদিন আবদুল লতিফ রওয়ানা দিলেন। সেই রাতেই তাঁর বাড়ি হানা দিল সে। শাবানার খাস বাঁদি ফরিদা তাকে সঙ্গে করে পৌঁছে দিল শাবানার ঘরে। সাদা বিছানায় শুয়ে আছেন শাবানা। দরিন্দার মতো তাঁর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ল আবু হাসান। আর, তাকে চমকে দিয়ে খিল খিল করে হেসে উঠলেন শাবানা। দু’হাতে তার মুখটা ধরে গাঢ় চুমু খেলেন একটা। কৌতুক তরলিত স্বরে বললেন,
- এতো জলদি কি মিঞা সাহেব? সারারাত পড়ে রয়েছে.....
শাবানার ঠোঁট নামল আবু হাসানের বুকে, পেটে, তাঁর হাতের মুঠোয় বন্দী হলো তার দৃঢ় পৌরুষ। আবেশে শরীর এলিয়ে চোখ বুজল আবু হাসান। ঠিক তখনই বালিশের নীচ থেকে কিরিচটা বার করে শাবানা তার গলার এদিক থেকে ওদিক চালিয়ে দিলেন।
আবার হাসল ফিরদৌসী।
-তোমার শরীর একা তোমার এবং তুমি চাইলে সেটাই তোমার অস্ত্র।


বাতাসে মিলিয়ে গেল জিনি। উঠে বসলেন শেহেরজাদ। ঠিক সেই মুহূর্তে চোখ মেললেন শাহরিয়র। তাঁর মুখে ফুটল কামনাবিহ্বল হাসি। আবার.... বেগমের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে তাঁর অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে চাইলেন বাদশা। কিন্তু, এই প্রথম তিনি বাধা পেলেন। দুই উরু কাঁচির মতো কোমরে জড়িয়ে তাঁকে চিৎ করে ফেললেন শাহারাজাদ। এখন তিনি শাহরিয়রের দেহের মধ্যস্থলে উপবিষ্টা।

অগ্নিশর্মা হলেন বাদশা। লা লা হাওলা ওয়া লা কুওয়াতা ইল্লাবিল্লাহ! আওরতের একি গুস্তাখি? কিন্তু, তাঁর বিবির চোখের দিকে চেয়ে দস্তুরমতো ভয় পেয়ে গেলেন শাহরিয়র। শেহেরজাদের চোখ ধ্বক ধ্বক করে জ্বলছে। বাঘিনীর মতো। খসমের ঠোঁটের ওপর ঠোঁট রেখে, মুখের ভেতর জিভ ঢোকালেন বেগম। ঠোঁট থেকে বুকে নেমে এল ঠোঁট, নাভিতে জিভ। হাতের মুঠোয় শাহনশার পৌরুষ ধারণ করে, তাকে শোষণ করলেন বেগম.....

....পরওয়ারদিগার! এসব হচ্ছে কী? এতো ইবলিশের আওরাত- এখনই একে কোতল করা উচিত! তলোয়ারটা হাত বাড়িয়ে নেবেন কিনা ভেবে ওঠার আগেই আশিরনখ কেঁপে উঠলেন বাদশা। অসহ্য সুখে তাঁর চোখ বন্ধ হয়ে গেল। ফুটন্ত শিরাজি সাগরে অবগাহন করছে তাঁরই ক্ষুদ্র প্রতিরূপ। এমন সুখতো তিনি আগে পাননি! তার মানে কি মেয়েদের সম্বন্ধে এ যাবৎকাল যা ভেবে এসেছেন তার বাইরেও নতুন কিছু আছে?

হঠাৎই, শাহরিয়ার খেয়াল করলেন, তিনি আর নড়তে পারছেন না। তাঁর হাত আর পা রেশমি রুমাল দিয়ে খাটের সঙ্গে বাঁধা। শেহেরজাদও তাঁর দেহের ওপর নেই। তিনি সামনে দাঁড়িয়ে আছেন। দামী মসলিনের পোশাক পরনে। মাথায় তাজ। সবচেয়ে অস্বস্তির কারণ, তাঁর হাতে ধরা নাঙ্গা সামশের আর মুখে লেগে থাকা হাসিটা। তলোয়ারটা শাহরিয়ারের চিবুকে ছুঁইয়ে তিনি বললেন,
- এই হাজার দিনে অবস্থা আর আগের মতো নেই বাদশা সালামত্। দিনারজাদ আর তার আশিক হায়দর মক্তবে মক্তবে গিয়ে জানতে চেয়েছে, এক ব্যাভিচারিণীর অপরাধে এতগুলো মেয়ের প্রাণ নেওয়াটা কোন নীতিশাস্ত্র মতে ঘটেছে? আপনার ভাই-বউ নিজের শরীরের কথা শুনেছিলেন বলে আপনারা প্রতিদিন একটা করে মেয়ে বিয়ে করেছেন, রাতে তাদের শরীর খুঁড়েছেন, পরদিন গর্দান নিয়েছেন। তাদের ভালোবাসেননি, ভালোবাসার সুযোগও দেননি, দেহ মনের সংবাদ নেননি...

হাত পা বাঁধা অবস্থাতেই শ্বাপদের মতো দাঁত খিঁচোলেন শাহরিয়র।
- আরে পিশাচী! মেয়েদের আবার দেহ মন কী রে? পুরুষের চাহিদা মেটাতেই তাদের জন্ম!
- হাসালেন শাহরিয়র!

এই কয়েক মুহূর্ত আগেই, সুরতকালে আমি সক্রিয় হওয়া মাত্র, আপনি অসহায় ভাবে নিজেকে আমার হাতে সঁপে দিয়েছিলেন। চাইলে তখনই কতল্ করতে পারতাম। কিন্তু আমি খুনী নই। আপনার আর শাহজামানের বিচার হবে জনতার আদালতে। হ্যাঁ, শাহজামানও এই মুহূর্তে বন্দী। তাঁকে বন্দী করেছে আপনারই রক্ষীরা। নারীহত্যার ব্যসনে আপনারা রাজ্য শাসনে কিছুমাত্র মন দেননি। ফলে প্রজাপুঞ্জ আপনাদেরকে বাদশা বলে মানতে রাজী নয়। আমীর ওমরারা টাকা ছড়িয়ে কিনে নিয়েছেন সেনাবাহিনী। দু তিন বছর ধরে মাইনে পাইনি তারা। আপনারা ...আপনারা আসলে ভীষণ বোকা। না হলে বুঝতেন নারী পুরুষের সম্মিলিত দেহসুখে রমণ সম্পূর্ণ হয়। নারীরও শরীর আছে। তার খিদে আছে। আর আছে মন। এই হাজার রাত ধরে গল্প বলে গেছি, আর ভেবেছি আপনি বুঝবেন। নতুন নতুন গল্প বুনেছি যাতে আপনার বোধোদয় হয়। কিন্তু, বৃথা চেষ্টা। প্রতিরাতে আপনি আমায় ধর্ষণ করেছেন। নাঃ, প্রাক্তন সম্রাট শাহরিয়র। আপনি সর্বাঙ্গীণ অপদার্থ। আজকের রাতটা বন্দীশালায় থাকুন। কাল বিচার।

হাততালি দিলেন শেহেরজাদ। দু'জন মহাকায় হাবসী রক্ষী এসে দাঁড়ালো। তাদের মাঝখানে মুখ নীচু করে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে গেলেন শাহরিয়র - আরব্যরজনীর বাদশা।

তারপর,
ঘুম ভাঙল শেহেরজাদের। তলপেটে ভীষণ ব্যথা। বুকের ওপর কালসিটে। নৈমিত্তিক ধর্ষণ শেষে খাটের ওপ্রান্তে শুয়ে ঘুমোচ্ছেন শাহরিয়র। কদাকার মুখটা হাঁ হয়ে আছে। সমস্ত শরীর ভল্লুকের মতো লোমে ঢাকা স্ফীতোদর উঠছে নামছে। কুইচ্চা সাপের মাথার মতো পুরুষাঙ্গ নেতিয়ে পড়ে। কষ্ট করে উঠে বসলেন শেহেরজাদ। চকচকে তলোয়ারটা বাদশার মাথার কাছে। নিতে হবে ওটা। এত কাছে। এত দূরে। শেহেরজাদ হাত বাড়ালেন......


পুনশ্চঃ ২৪ মার্চ ২০২১ সহস্র এক আরব্য রজনী গল্পের পেছনের গল্প নিজের মতো করে লিখেছিলাম....তা নিয়ে একজন বিদগ্ধ ব্লগার প্রচারণা চালিয়ে ছিলেন "জুলভার্ন ব্লগটাকে পর্ণ সাইট বানিয়েছে".....

সর্বশেষ এডিট : ১৭ ই আগস্ট, ২০২২ রাত ৮:২০
১৮টি মন্তব্য ১৯টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

কাউকে ব্লাডের জন্য কল দেওয়ার আগে কয়েকটা জিনিস মাথায় রাখবেন।

লিখেছেন মোগল, ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ দুপুর ২:২৫

১- ডোনারের যাতায়াত খরর

২- যে বেলায় ব্লাড দিবে ঐ বেলার খাওয়ার খরচ

৩- ডাব, স্যালাইন পানি, কিছু ফলমূল কিনে দেওয়ার খরচ দেয়াটা কমনসেন্সের ব্যাপার এবং পরবর্তী ২৪ ঘন্টা ডোনারের... ...বাকিটুকু পড়ুন

গাছ-গাছালি; লতা-পাতা - ১২

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৫০

প্রকৃতির প্রতি আলাদা একটা টান রয়েছে আমার। ভিন্ন সময় বিভিন্ন যায়গায় বেড়াতে গিয়ে নানান হাবিজাবি ছবি আমি তুলি। তাদের মধ্যে থেকে ৫টি গাছ-গাছালি লতা-পাতার ছবি রইলো এখানে।

১ : পিটুলি


অন্যান্য ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

সামহো্য়ারইন ব্লগ কত টাকা কামায়?

লিখেছেন নাহল তরকারি, ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ সন্ধ্যা ৭:৫৩



আমার মাজে মাজে প্রশ্ন জাগে আমাদের প্রাণ প্রিয় ব্লগ কত টাকা ইনকাম করে? আমি জানি আমেরিকা থেকে কোন বিজ্ঞাপন আসলে ওয়েবসাইডের ভালো মুনাফা দেয় গুগল। আমি পআরয় ১০ দিন... ...বাকিটুকু পড়ুন

কোন সাইকো আপনার নামে কাকে কি বলছে তা ভেবে সময় নষ্ট করবেন না।

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ৮:৩৫


২০০৯ সালে আমি প্রথম ফেসবুক একাউন্ট ওপেন করি। তখন ফেসবুকে যত খুশি ততো ফ্রেন্ড রিকুয়েষ্ট পাঠানো যেতো। ফেক আই ডির ছড়াছড়ি। ছেলেরা মেয়েদের আই ডি চালাতো। তখন তো এতো... ...বাকিটুকু পড়ুন

বেতন ছাড়া চাকরি

লিখেছেন রূপক বিধৌত সাধু, ২৮ শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ রাত ৯:০০


দেড় মাস হয়ে গেছে। বেতন পাইনি একবারও। বেতন চাইলে তারিখ দেয় শুধু। আজ কাল পরশু। কোচিং ছেড়ে এ চাকরিতে এসেছিলাম মোটামুটি একটা অ্যামাউন্ট পাব। খেয়ে-পরে চলে যাবে। সে... ...বাকিটুকু পড়ুন

×