somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মুস্লিম আমার পরিচয় ...

২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৬ দুপুর ১:০৭
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



রাখাল গরুকে ঘাস খাওয়াতে নিয়ে যাচ্ছে নাকি কসাই খানায় নিয়ে যাচ্ছে , তা গরু জানে না ! তেমনি আপনার পীর বা নেতা আপনাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে , তা যদি আপনি না জানেন তবে আপনি গরুর চাইতেও বড় অধম ! তাই কোরান পড়তে হবে বুঝে বুঝে , তবেই বুঝতে পারবেন কে সঠিক নেতা বা ইমাম আর কে ভন্ড কবর এবং মাজার পূজারী ধর্ম ব্যাবসায়ী পীর !

দুনিয়াতে যদি পীর বলে কিছু থাকে তবে তিনি হলেন আমাদের সকলের মা ! আল্লাহ এবং রাসূলের পর মাকেই সব চাইতে বেশী সন্মান দেওয়া হয়েছে ! মায়ের পায়ের নীচে সন্তানের বেহেস্ত , তাই পীরের মুরিদ না হয়ে মায়ের বাধ্যগত সন্তান হউন ! যারা মা-বাবাকে পেয়েও উনাদের খেদমত করে উনাদের কাছ থেকে বেহেস্ত লিখে নিতে পারেন নাই তারা চরম দূর্ভাগা !

আমি মুসলিম এটাই আমার পরিচয় ! আমাদের আল্লাহ এক ,রাসূল এক , কোরান এক তারপরও আমরা নিজেদের মাঝে দলে দলে বিভক্ত হয়ে পড়েছি ! কিন্তু তা তো হবার কথা নয় ! আসলে এর শুরু হয়েছে রাসূল (সঃ) এর মৃত্যুর পর থেকে শিয়া এবং সুন্নির মাধ্যমে যা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারনে !

শিয়া অর্থ পরিবার বা অনুসারী ! শিয়াতুল আলী থেকে শিয়ার উৎপত্তি যার অর্থ আলী (রঃ) এর পরিবার বা আলী(রঃ) এর অনুসারী ! শিয়া সৃষ্টি ছিল ইহুদিদের গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ ! যা পরবর্তীতে মুসলিমদের স্পষ্ট দুভাগে বিভক্ত করে !

পরবর্তীতে মাজহাব দিয়ে আবার মুসলিমদেরকে ৪ ভাগে বিভক্ত করা হয় ! কেউ ইমাম হানিফি (রঃ) , কেউ ইমাম শাফিয়ী (রঃ) কেউ ইমাম মালেকী আবার কেউ ইমাম হামবলী (রঃ) কে পৃথক পৃথক ভাবে অনুসরণ করতে থাকে ! কিন্তু কেন ?

কোরান হাদিসের অনেক বিষয় আছে যা সাধারন জ্ঞান দিয়ে বুঝা যাবে না , তার জন্য কোরান এবং হাদিসের অগাধ জ্ঞান লাগে ! তাই আমাদেরকে ধর্মীয় শিক্ষকের নিকট যেতে হয় , যারা কোরান এবং হাদিসের উপর যথেষ্ট এলেম রাখেন ! আমার কাছে ৪ জন ইমাম হলেন ইসলামের ৪জন শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ! উনারা কোরান এবং হাদিসকে সহজ ভাবে আমাদেরকে ব্যাখ্যা করে দিয়েছেন ! কোন কোন বিষয়ে চার ইমামের ব্যাখ্যায় কিছুটা পার্থক্য পরিলক্ষিত হয় ! কিন্তু চার ইমামের সব গুলো ব্যাখ্যা গ্রহন যোগ্য !

তাই আমি কোন নির্দিষ্ট একজনকে নয় বরং চার জনকেই অনুসরণ করি ! কোন বিষয়ে চারজনের মধ্যে যিনি সব চাইতে বেশী গ্রহনযোগ্য ব্যাখ্যা দিয়েছেন , উনার ব্যাখ্যা আমি অনুসরণ করি ! কোন এক জনকে মানতে হবে বাকী ৩ জনকে মানা যাবে না , তা আমি মানতে নারাজ ! কারণ উনারা সবাই কোরান এবং হাদিসের আলোকে ব্যাখ্যা দিয়েছেন !
অথচ আমরা উনাদেরকে নিয়ে আবার নিজেদের মাঝে ৪ ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছি !
যা সম্পূর্ণ কোরান এবং হাদিস বিরুদ্ধ ! আমি ব্যক্তিগত ভাবে চারজন ইমামকেই সন্মান করি এবং আমার প্রয়োজনে আমি চারজনেরই দারস্থ হই !
কিন্তু আমি যেটা অপছন্দ করি তা হলো বিভিন্ন দলে দলে বিভক্ত হয়ে নিজেদের মাঝে বিবাদ সৃষ্টি করা ! এই ব্যাপারে পবিত্র কোরানে মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন ...

"ওয়া 'তাছিমু বিহাবলিললা হি জামী'আঁও ওয়ালা তাফাররাকু নি'মাতাললা হি আলাইকুম ইয কুনতুম আ'দা " --- (সূরা আল ইমরান , আয়াত ১০৩)

অর্থাৎ , তোমরা সকলে আল্লাহর রশিকে শক্ত করে ধর এবং পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ো না !
আর যারা নিজেদের মাঝে বিভাজন করবে , তাদের ব্যাপারে আল্লাহ তায়ালা হুঁশিয়ার করে বলেন....


" ওয়ালা তাকূনূ কাললাযীনা তাফাররাক ওয়াখতালাফূ মিম বা'দি মা জী আহুমুল ব্যয়্যিনাতু , ওয়া উলা ইকা লাহুম আযাবুন আজীম " ---( সূরা আল ইমরান আয়াত ১০৫ )
অর্থাৎ , তোমরা তাদের মত হয়ো না যারা সুস্পষ্ট নিদর্শন আসার পর বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়েছে ও নিজেদের মধ্যে মতান্তর সৃষ্টি করেছে , তাদের জন্য রয়েছে মহাশাস্তি !
তাই আসুন , নিজের মধ্যে সকল ভেদাভেদ পরিহার করে একই পরিচয়ে পরিচিত হই ! কোরান এবং হাদিসের আলোকে জীবন সাজাই ! যে খানে বুঝবো না সেখানে ইমাম এবং যারা ভালো বুঝেন তাদের সহযোগিতা গ্রহন করি !

সর্বশেষ এডিট : ২৬ শে জানুয়ারি, ২০১৬ দুপুর ১:১৩
০টি মন্তব্য ০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

খুলনায় বসবাসরত কোন ব্লগার আছেন?

লিখেছেন ইফতেখার ভূইয়া, ১৯ শে এপ্রিল, ২০২৪ ভোর ৪:৩২

খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় তথা কুয়েট-এ অধ্যয়নরত কিংবা ঐ এলাকায় বসবাসরত কোন ব্লগার কি সামুতে আছেন? একটি দরিদ্র পরিবারকে সহযোগীতার জন্য মূলত কিছু তথ্য প্রয়োজন।

পরিবারটির কর্তা ব্যক্তি পেশায় একজন ভ্যান চালক... ...বাকিটুকু পড়ুন

একমাত্র আল্লাহর ইবাদত হবে আল্লাহ, রাসূল (সা.) ও আমিরের ইতায়াতে ওলামা তরিকায়

লিখেছেন মহাজাগতিক চিন্তা, ১৯ শে এপ্রিল, ২০২৪ ভোর ৬:১০



সূরাঃ ১ ফাতিহা, ৪ নং আয়াতের অনুবাদ-
৪। আমরা আপনার ইবাদত করি এবং আপনার কাছে সাহায্য চাই।

সূরাঃ ৪ নিসার ৫৯ নং আয়াতের অনুবাদ-
৫৯। হে মুমিনগণ! যদি... ...বাকিটুকু পড়ুন

শাহ সাহেবের ডায়রি ।। মুক্তিযোদ্ধা

লিখেছেন শাহ আজিজ, ১৯ শে এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ১২:২১



মুক্তিযুদ্ধের সঠিক তালিকা প্রণয়ন ও ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা প্রসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, ‘দেশের প্রতিটি উপজেলা পর্যায়ে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কমিটি রয়েছে। তারা স্থানীয়ভাবে যাচাই... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতীয় রাজাকাররা বাংলাদেশর উৎসব গুলোকে সনাতানাইজেশনের চেষ্টা করছে কেন?

লিখেছেন প্রকৌশলী মোঃ সাদ্দাম হোসেন, ১৯ শে এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ২:৪৯



সম্প্রতি প্রতিবছর ঈদ, ১লা বৈশাখ, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, শহীদ দিবস এলে জঙ্গি রাজাকাররা হাউকাউ করে কেন? শিরোনামে মোহাম্মদ গোফরানের একটি লেখা চোখে পড়েছে, যে পোস্টে তিনি... ...বাকিটুকু পড়ুন

ইরান-ইজরায়েল দ্বৈরথঃ পানি কতোদূর গড়াবে??

লিখেছেন ভুয়া মফিজ, ১৯ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ১১:২৬



সারা বিশ্বের খবরাখবর যারা রাখে, তাদের সবাই মোটামুটি জানে যে গত পহেলা এপ্রিল ইজরায়েল ইরানকে ''এপ্রিল ফুল'' দিবসের উপহার দেয়ার নিমিত্তে সিরিয়ায় অবস্থিত ইরানের কনস্যুলেট ভবনে বিমান হামলা চালায়।... ...বাকিটুকু পড়ুন

×