somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

মরীচিকা (শেষ-পর্ব)

২৩ শে নভেম্বর, ২০১৯ রাত ১২:৩০
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :




কথা বলতে বলতে সরুরাস্তা ফেলে অপেক্ষাকৃত বড়রাস্তা ধরতেই স্থানটি একটু চেনা চেনা বলে মনে হল। চলন্ত অটোর ভেতর থেকে একটু মুখ বাড়িয়ে উঁকি মারলাম। শহরের একটু নির্জন বড়রাস্তাগুলি ও আশপাশের বসতিগুলোকে দেখে আমি বেশ তালগোল পাকিয়ে ফেলি। কেন জানি প্রায়ই ক্ষেত্রে রাস্তাগুলিকে আমার একই রকম লাগে। যাইহোক কিছুটা মিল অনুভব করে খুব জোরে না বললেও একটু মৃদুস্বরে চালককে বললাম,
- ভাইয়া গাড়িটা একটু আস্তে চালাও দেখি।
-কেন দাদা আপনি কি স্থানটি চিনতে পেরেছেন?
-অনেকদিন আগে এসেছিলাম,অতটা মনে নেই। তবে এলাকাটা একটু চেনা চেনা লাগছে বৈকি।
ও আমার কথা মত সঙ্গে সঙ্গে গাড়িটির বেগ অনেকটা কমিয়ে দিল। নাহ! আমার রাস্তা চিনতে ভুল হয়নি। আমি অস্ফুটে বলে ফেললাম,
-এইতো আমরা চলে এসেছি।
-দাদা এখানে তো কোন মিষ্টির দোকান দেখছিনা।
-আর মিষ্টির দোকানের প্রয়োজন নেই ভাইয়া। ওটাকে আমি ল্যান্ডমার্ক হিসেবে খুঁজছিলাম। আমরা পিছন দিক থেকে আমাদের লক্ষ্যস্থলে পৌঁছে গেছি।এই রাস্তা ধরে একটু এগিয়ে গিয়েই দেখবে ডান হাতে বড় মিষ্টির দোকান আছে। যাইহোক অটো থেকে নেমে একটু আড়মোড়া খেয়ে চালককে তার প্রাপ্য বুঝিয়ে বিদায় দিলাম। ওদের বাড়ির বাইরের দিকটা এক ঝলক দেখে নিয়ে একটু ধীর স্থির ভাবে এক-পা দু-পা করে গেটের সামনে চলে এলাম। কলিংবেল টেপার আগে বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে ভিতরের কোন সাড়াশব্দ পাওয়া যায় কিনা সচেষ্ট হলাম। নাহ! কোন শব্দ বাইরে আসছে না। তবে বাইরে তালা ঝোলানো নেই মানে ভিতরে নিশ্চয়ই লোক আছে- এটা নিশ্চিত হয়ে কলিং বেলে চাপ দিলাম। তবুও কোন সাড়াশব্দ পাওয়া গেল না। খানিক বাদে আরো একবার বেল টিপলাম।এবার অবশ্য ভেতর থেকে পা ঘষার শব্দ কানে এলো। সাথে সাথে একটি কমবয়সী মেয়ে বাইরে বেরিয়ে এলো। খুব করুণ স্বরে নাকে তুলে জানতে চাইলো,
- আপনি কোথা থেকে আসছেন?
আমার কি উত্তর হবে বুঝতে না পেরে পাল্টা প্রশ্ন করলাম,
- এটা শেফালী ম্যাডামের বাড়ি না?
-আজ্ঞে!
-উনি কি বাড়িতে আছেন?
যথারীতি আদুরে গলায় নাকে তুলে বললো,
-না আ...। দিদি একটু বার হয়েছেন।
-কখন আসবেন বলে গেছেন?
-না আ... । তেমন কিছু বলে যাননি।
উল্লেখ্য আমারও একটু ইচ্ছে হচ্ছিল ওর মত নাকে তুলে কথা বলি। কিন্তু নিজেকে সংবরণ করে স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন করি,
-উনি তোমার কি হন?
এবার ও নিরবে মুখ নিচু করে রইলো। বুঝতে পারলাম ও বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে। আমি আবার প্রশ্ন করলাম,
- তোমার নাম কি?
-আজ্ঞে মুনিয়া আ.. ।
-মুনিয়া বাড়িতে আর কে কে আছেন?
-মাসিমা আ.. আর বড়দি ই..।
এমন সময় মাসীমা বেরিয়ে এলেন। আমি প্রণাম জানালাম। কিন্তু উনি আমাকে প্রথমে চিনতে পারলেন না। এবার মেসোমশায়ের অসুস্থতার কথা বলতেই তৎক্ষণাৎ চিনতে পারলেন এবং জিহবা কেটে দুঃখ প্রকাশও করলেন। আমার মাথায় হাত বুলিয়ে মুনিয়াকে বকা দিলেন, কেন আমাকে এভাবে বাইরে দাঁড় করিয়ে রেখে কথা বলছে বলে। আমি আপত্তি করলাম,
-না মাসিমা মুনিয়ার কোন দোষ নেই। ও আমাকে প্রথমে বলেছিল বসার কথা। কিন্তু আমিই ভিতরে ঢুকতে চাইনি।
আমার কথা শেষ না হতেই মাসিমা আমার হাত ধরে ভিতরে নিয়ে গেলেন। ড্রয়িংরুমটা বেশ ছিমছাম করে সাজানো গোছানো। দুটি সদৃশ্য ভাস ঘরের শোভা বেশ কিছুটা বৃদ্ধি করেছে। এক ঝলকে ঘরের টিপটপ সাজগোজ যে কারো ভালো লাগারই কথা। পাশের ঘরের থালাবাসনের ঝনঝনানি কানে এলো। বুঝতে বাকি থাকলো না যে পাশের ঘরে কিছু একটার আয়োজন চলছে। এমন সময় মাসিমা আবার এলেন,
আদরমাখা ভঙ্গিতে ইশারা করলেন ওনার সঙ্গে যেতে।
আমি মাসিমার নির্দেশ পালন করতে উঠে পড়লাম। দু-পা বাড়াতেই দেখি পাশের ঘরে জানালা লাগোয়া ডাইনিং টেবিল, যেখানে ইতিমধ্যে প্লেটে খাবার রেডি করা আছে। আমি মৃদু আপত্তি করলাম। এবার উনি আমার হাত ধরে চেয়ারে বসিয়ে দিলেন। ওনার আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়ে হাত মুখ ধুয়ে বাধ্য ছেলের মত খাওয়া শুরু করলাম। খেতে খেতে নানান গল্প সমানে চলতে লাগলো। হঠাৎ কলিংবেল বেজে উঠতেই অনুমান করলাম নিশ্চয়ই শেফালী ম্যাডাম বাড়ি ফিরেছে। আমার অনুমানে ভুল ছিল না। মুনিয়া গেট খুলতেই শেফালী ম্যাডাম ঘরে ঢুকলো। দূর থেকে এক ঝলক বিশুদ্ধ হাসি নিয়ে একেবারে পাশে চলে এলো,
-কতদিন পরে আবার দেখা। আমি তো ভেবেছিলাম এ জীবনে আর বুঝি দেখা হবে না।
-আমি কিন্তু এরকম ভাবি নি। আমার ভাবনা ছিল, সময়ে নিশ্চয়ই একদিন দেখা হবেই হবে।
-তো কেমন আছো তুমি? স্কুল কেমন চলছে?
- খুব ভালো আছি। স্কুলও খুব ভালো চলছে।
-বাহ! তোমরা সকলে ভালো আছে শুনে খুব ভালো লাগছে।
-আমি অবশ্য স্কুলটা ছেড়ে দিয়েছি।
- অ্যাঁ! স্কুল ছেড়ে দিয়েছি মানে? কেন ছাড়লে?
-আরে! এতটা ঘাবড়াচ্ছ কেন? তোমাকে একটা ভালো খবর দিতেই তো এলাম এখানে।
-কি খবর? এক্ষুনি বল!
-আমি একটা সরকারি স্কুলের নিয়োগ পত্র পেয়েছি।
-ওয়াও! দারুণ খবর! তবে এতক্ষণ কেন বললে না!
-আসলে বলার মতো পরিস্থিতি তৈরি করার জন্যে অপেক্ষায় ছিলাম।
-না না। শুধু শুধু শুকনো মুখে খবর দিলে হবে না। মিষ্টিমুখ করাতে হবে।
- নিশ্চয়ই! বল কি মিষ্টি খাবে?
-মা দেখো ওর চাকরিটা হয়ে গেছে। ভীষণ দরকার ছিল চাকরিটা ওর।
মাসিমা আমাদের কথোপকথন আগে থেকেই শুনছিলেন। এখন শেফালী ম্যাডাম বলাতে আবার নতুন করে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে আমাকে আশীর্বাদ করলেন। আমি আরো একবার মাসিমাকে প্রণাম করলাম। এবার আমি শেফালী ম্যাডামের কাছে জানতে চাইলাম,
- এবার তোমার খবর বল। সেদিন তোমার ওভাবে চলে আসার কারণটা জানতে না পারায় মনের মধ্যে যে খচখচানি তৈরি হয়েছিল তা আজও রয়ে গেছে।
আমার কথা শেষ না হতেই মুহূর্তেই শেফালী ম্যাডাম মানে আমার ফিরে পাওয়া শেলীর মুখ থেকে হাসি উধাও হয়ে গেল। সঙ্গে পরিবেশটিও একেবারে বদলে গেল। একটা গুমোট পরিবেশে মাঝে মাঝে কয়েকটি দীর্ঘশ্বাস ছাড়া আর কোন শব্দ নেই। আমরা চুপচাপ বসে রইলাম। কিছুক্ষণ পর শেলীই নীরবতা ভঙ্গ করলো,
-আসলে বাড়িতে বাবার শরীরটা সে সময় এতটাই খারাপ হয়েছিল যে বাবাকে ফেলে ওভাবে হোস্টেলে পড়ে থাকাটা আর সম্ভব হচ্ছিল না। তবে এসেই বা কি করলাম। বাবাকে তো আর ধরে রাখতে পারলাম না। এখন আমি একটা ছোটখাটো হসপিটাল সামলাচ্ছি। দিদি তো আগে থেকেই অসুস্থ ছিল। বাবা চলে যাওয়ার পর মায়ের নানান উপসর্গ লেগেই আছে। নতুন করে যোগ হল মুনিয়া। মুনিয়ার পরিচয় জানার জন্য মনে একটা কৌতূহল তৈরি হয়েছিল। প্রসঙ্গ উঠতেই বলে ফেলি সে কথা।
-অনির্বাণের বোন। কিছুদিন আগে মেসোমশাই মারা গেছেন। ওদের তেমন কোন আত্মীয়-স্বজন নেই। যে কারণে দেশে ফিরে ও বোনকে আমার কাছে রেখে গেছে।
এত বিষন্নতার মাঝে অনির্বাণের প্রসঙ্গ উঠতেই আমি কিঞ্চিৎ প্রসন্ন হলাম। শেলী আবার বলতে লাগলো,
-মৃত্যুশয্যায় থাকাকালীন বাবা আমাকে বিয়ে দিতে না পারার যন্ত্রণায় কথা জানিয়ে শিশুর মত কাঁদতেন।একদিন তো আমার হাত ধরে বেশ কয়েকবার ঝাঁকুনি দিয়ে প্রতিশ্রুতি চাইছিলেন যাতে আমি বিয়ে করতে সম্মতি দেই। আমি বাবাকে বোঝাতে ব্যর্থ হই যে মা দিদিকে অসহায় ভাবে ফেলে রেখে স্বার্থপরের মতো বিয়ে করে সংসার ধর্ম পালন করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়। বরং এসব অহেতুক চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলতে বাবাকে কত করে বোঝাতে থাকি। কিন্তু কিছুতেই ওনাকে বোঝাতে পারেনি। একদম শেষের দিকে আমি পাশে গেলে বাবার নির্লিপ্ত আচরণ আমাকে যেন কুরে কুরে খেত। আমার অসহায়ত্ব কিছুতেই বাবাকে বোঝাতে পারিনি।
শেষের দিকে কথাগুলি বলার সময় শেলীর গলা ধরে এলো। বুঝতে পারছিলাম কিছুতেই নিজেকে স্বাভাবিক রাখতে পারছে না। বেশ কয়েকবার গলা খাকারি দিয়ে গলা পরিষ্কার করেও নিলো। আমি মাথা নিচু করে মেঝের দিকে তাকিয়ে রইলাম। একটু দূরে একটা চেয়ারে মাসিমা বসে আছেন। ঘরে অদ্ভুত রকমের নীরবতা। শেলী আবার বলতে লাগলো,
-বিয়ের পিঁড়িতে বসতে আমার আপত্তি ছিল না। কিন্তু দিদি ও মায়ের কথা ভেবে ও পথ না মাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিই।সে সময় বাবাকে কথা দিতে না পারলেও উপরওয়ালা বোধহয় বাবার প্রার্থনা মঞ্জুর করেছিলেন।তাই বাবার মৃত্যুর কয়েক মাস পরে হঠাৎ একদিন অনির্বাণ মুনিয়াকে নিয়ে হাজির হয়। দুই ভাই-বোনের এমন অপ্রত্যাশিত আগমনে প্রথমে অবাক হয়েছিলাম।পরে জানতে পারি মেসোমশাই তার কিছুদিন আগে পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন। অনির্বাণেরও জাপানে বেশ কিছু কাজ এখনো পড়ে আছে। ওর কথা অনুযায়ী আগামী কয়েক মাসের মধ্যে জাপানের পর্ব পাকাপাকিভাবে সাঙ্গ হতে চলেছে। এভাবেই বাবা-মা হারা ছোট্ট মুনিয়ার আমাদের সংসারে নতুন সদস্যে পরিণত হওয়া। শেলীর কথা শুনতে শুনতে বড় একটা দীর্ঘশ্বাস ফেলে ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি সময় অনেকটা অতিবাহিত হয়েছে। পাশে রাখা সাইড ব্যাগটি কাঁধে নিয়ে,
-না আর বসবো না। এবার আমাকে উঠতে হবে বলতেই,
বেশ চপলতার সঙ্গে বসতে বলে শেলী আবার পাশের ঘরে চলে গেল।ওর এখনো কিছু বলা বাকি আছে ভেবে ব্যাগটি আবার নিচে নামিয়ে মাসিমা ও মুনিয়ার সাথে গল্প করতে লাগলাম। হাবিজাবি গল্পও একসময় শেষ হয়ে গেল তবুও শেলী না আসায় এবার একটু একটু করে বিরক্ত হতে লাগলাম। একসময় চোখ তুলে তাকাতেই দেখি পাশের ঘরে ম্যাডাম কি সব লেখালেখিতে ব্যস্ত। দূর থেকে চোখাচোখিও হয়ে গেল। ইঙ্গিত করে অনুরোধের সুরে আরও একটু বসতে বলল। আরো কিছুক্ষণ পরে ধীর স্থির ভাবে পাশে এল। ঠোঁটের ফাঁকে মৃদু হাসি নিয়ে দুটি এনভেলাপ আমার হাতে দিয়ে বলল,
-এখানে খোলা যাবে না।পথে যেতে যেতে পড়তে হবে মশাই।
আমি এনভেলাপ দুটি ব্যাগের মধ্যে নিরাপদ স্থানে রেখে দ্রুত পা বাড়িয়ে রাস্তায় নামতেই সঙ্গে সঙ্গে একটি অটো পেয়ে গেলাম। চলে এলাম সোজা স্টেশনে। কিছুক্ষণ পর ট্রেনের খবর হল। সুবিধামতো একটা বসার জায়গাও পেয়ে গেলাম। আমার মন পড়েছিল এনভেলাপের ভিতরে। কাজেই প্রথম চিঠিটি খুললাম,

প্রিয় বন্ধু,

জানিনা এই চিঠিটি কোনদিন তোমার হাতে পৌঁছাবে কিনা। কিন্তু যদি কোনদিন পৌঁছায়, তাহলে সেদিন তোমার মনের অনেকগুলি জিজ্ঞাসার উত্তর পেয়ে যাবে।
সেদিন হোস্টেল ছেড়ে চলে আসার সময় খুব করে বিষয়টি তোমাকে জানাতে ইচ্ছে করছিল। যদিও শেষ মুহূর্তে নিজের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসি।মনে হয়েছিল তোমাকে জানাতে গিয়ে উল্টে যদি চিঠির বিষয়টি জানাজানি হয় তাহলে লোকলজ্জার পাশাপাশি তোমার উপরেও নেমে আসতে পারে আক্রোশের খাঁড়া। অথচ তোমাকে জানানোর জন্য আমি উদগ্রীব হয়ে উঠেছিলাম। একারণেই ওরকম চিঠি লেখার নাটক করে চিঠি দিই। আমার ভাবনা ছিল হয়তো রহস্য উন্মোচন করতে গিয়ে চিঠির কিনারা ধরে তুমি আমার বাড়ি পর্যন্ত চলেও আসবে। যদিও আমার সে প্রত্যাশা সে সময় পূরণ হয়নি।

শিক্ষক প্রশিক্ষণের নাম করে সভাপতি মহাশয় আমাকে নিয়ে গেছিলেন উড়িষ্যার ভুবনেশ্বরে। মনে একরাশ প্রত্যাশা নিয়েই প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলাম। উনিও গেছিলেন আমার সঙ্গে একজন আয়োজক হিসেবে। আমরা হোটেলে পৃথক রুম নিলেও ঘটনার দিন একটু রাতের দিকে বিশেষ দরকারে উনি আমার রুমে আসেন। নেহাৎই বিদ্যালয় প্রধান,সৌজন্যবশত আমি ওনাকে ভিতরে ঢুকতে বলি।ওনার ইপ্সিত লক্ষ্য কি সেদিন আমি ঘূণাক্ষরেও বুঝতে পারিনি। যাইহোক একথা-সেকথা বলতে বলতে কিছুক্ষণের মধ্যে উনি জল খেতে চাইলেন। আমি জল দিতে গেলাম উনার পাশে। অমনি বেরিয়ে পড়লো ওনার আসল চেহারা। যেন এই সুযোগটির জন্যই উনি অপেক্ষায় ছিলেন।

কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাকে আষ্টেপৃষ্ঠে দুবাহুর মধ্যে জড়িয়ে ধরে।আমি আমার শরীরের সাধ্যমত শক্তি প্রয়োগ করি। চিৎকার করতে যাওয়ায়, জোরে গলা টিপে ধরলে উপর্যুপরি কাশিতে আমার প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।বুঝতে পারি সহজে ওর হাত থেকে রেহাই মিলবে না বরং কৌশলের আশ্রয় নিতে হবে। কাজেই চিৎকার করার রাস্তা ছেড়ে পরবর্তী ঘটনার জন্য আমি মাথা ঠান্ডা রাখতে চেষ্টা করি। মনের মধ্যে অহরহ বিভিন্ন কৌশল ডানা মেলতে থাকে। কিন্তু তবুও শেষ পর্যন্ত কোন রাস্তা খুঁজে না পেয়ে একসময় অসহায় ভাবে ওর কাছে আত্মসমর্পণ করি। কার্যত প্রায় সারারাত জানোয়ারটার লালসার শিকার হয়ে কখন যে নিস্তেজ হয়ে পড়েছিলাম তারও আর খেয়াল ছিলনা। ভোররাতে চোখ খুলে দেখি দরজা হাট করে খোলা। অবিন্যস্ত জামাকাপড় সামলিয়ে সেদিন সকালে হোটেল থেকে সোজা হোস্টেলে গিয়ে জিনিসপত্র নিয়ে বাড়ি ফিরে আসি।

ইতি-
এক হতভাগিনি

দ্বিতীয় চিঠিটির লেখাটি বেশ উজ্জ্বল। উভয় ক্ষেত্রে চিঠিদুটির কোন তারিখ উল্লেখ করা নেই। বুঝলাম একটু আগে ঘরে বসেই চিঠিটা লিখেছে।

প্রিয় বন্ধু,

সে সময় আমার হঠাৎ গৃহে প্রত্যাবর্তনে তোমার মত বাবা-মাও খুব অবাক হয়েছিলেন। যদিও আমি কাউকে বিষয়টি পরিষ্কার করে জানানোর প্রয়োজন অনুভব করিনি। যতটা সম্ভব স্বাভাবিক থাকার চেষ্টা করে গেছি। একেবারে শুরুতে মনে ভাবনা ছিল অন্তত স্থানীয় থানায় গিয়ে অভিযোগ করি। কিন্তু পরক্ষণেই আইনি জটিলতায় পড়ে যদি বাবা-মা চাপ নিতে না পারেন, উল্টে বিপরীত ফল হওয়ার আশঙ্কায় সে রাস্তা ত্যাগ করি। এভাবেই পারিপার্শ্বিকতার চাপে পড়ে অবশেষে নিজের সব অদম্য জেদকে জলাঞ্জলি দিতে বাধ্য হই।

আমার এভাবে গুটিয়ে যাওয়া দেখে বাবা-মা অন্য ভাবনা ভাবতে থাকেন।যে বয়সে বিয়ে-শাদী করে সংসার ধর্ম পালন করার কথা অথচ তা না করায় বিষন্নতা আমাকে গ্রাস করছে বলে বাবা-মায়ের ধারণা হয়। তাদের আচরণে আমি সে কথা বুঝতে পারি। অথচ আমি নিজের অসহায়ত্বের কথা কাউকে প্রকাশ করতে পারিনি। নিজের মানসিক অবস্থার সঙ্গে অহরহ সংগ্রাম করতে থাকি।কোন অবস্থায় যেন বার্ধক্যের শেষ প্রান্তে দাঁড়ানো দুজন মানুষের সামনে ধরা না পড়ি। নিজেকে প্রবোধ দেই,আমাদের সমাজে এরকম হাজারো শেফালী আছে যারা প্রতিনিয়ত কোন না কোন ভাবে যৌন লাঞ্ছনার শিকার হয়ে পারিপার্শ্বিকতার চাপে নিজেদেরকে গুটিয়ে রাখতে বাধ্য হয়েছে।

আমার এই বিষণ্ণের দিনগুলোতে তোমাকে পাশে পাওয়ার স্বপ্নে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে থাকি।আসলে নিজের যন্ত্রণার কথা কাউকে শেয়ার করতে না পারায় মনের মধ্যে মাঝে মাঝে ভয়ঙ্কর অস্থিরতা তৈরি হয়েছিল। কখনো মনে হয়েছিল অব্যক্ত কথাগুলি মাঝেমাঝে পেটের মধ্যে যেন গুমরে গুমরে উঠছে। আর এ কারণেই দরকার ছিল তোমার মত কোন বিশ্বস্ত সুহৃদের। যদিও আমার অব্যক্ত যাতনা একসময় অবদমিত হয়। ক্রমশ একাকীত্বই আমার সাথী হয়ে ওঠে। আমার সমস্ত চাওয়া-পাওয়া গুলো নিঃসঙ্গতা নামক একটা বিন্দুতে এসে মিলিত হয়। এরই মধ্যে একদিন বাবা চলে গেলেন অমৃতলোকে।নিজের শিক্ষা-দীক্ষা বিবেক বুদ্ধি নিয়ে যখন নিজেই নিজেকে উপহাস করতে থাকি। এমনই এক প্রভাতে অনির্বাণ মুনিয়াকে নিয়ে হাজির হয়। বাবা-মা হারানো অভাগিনী মেয়েটি বয়সে খুবই ছোট্ট ঠিকই কিন্তু উপরওয়ালা ওর হৃদয়কে আকাশ সমান মায়ায় ভরিয়ে দিয়েছেন। ওই এখন আমাদেরকে নতুন করে বাঁচার স্বপ্নে বিভোর করে তুলেছে।যে কারণে আমি এখন স্বপ্ন দেখি এক নতুন প্রভাতের....


ইতি-
শেফালী

মরীচিকা (পর্ব-৩২)






সর্বশেষ এডিট : ০৫ ই মে, ২০২০ সকাল ৭:৫৪
৩১টি মন্তব্য ৩১টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

বাংলাদেশে নিয়ানডার্থাল জিন: করোনার প্রাদুর্ভাব

লিখেছেন কলাবাগান১, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:১১


ঘন্টা খানিক আগে একটা সাইন্টিফিক পেপার প্রকাশ হয়েছে.....পড়ে মাথা বন বন করে ঘুরছে....এত দেশ থাকতে কেন শুধু বাংলাদেশে????? এশিয়াতে তো করোনার প্রাদুর্ভাব কম এবং সেটা ব্যাখা করে ও... ...বাকিটুকু পড়ুন

নারী পুরুষ সম্পর্ক

লিখেছেন রাজীব নুর, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সকাল ১১:৫৭




একজন পুরুষের জীবনে অনেক নারী আসে।
কমপক্ষে পাঁচ জন নারী। এরকম নারী জীবনের যে কোনো সময় আসতে পারে। বিয়ের আগে বা পরে। কিন্তু তারা জীবনে আসে। জীবন থেকে... ...বাকিটুকু পড়ুন

মাটির চুলা

লিখেছেন সোহানাজোহা, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ বিকাল ৩:৩১


ছবি কথা বলে: আজ হাটবার আপনে দেড়ি না করে বাজারে যান গা, নাতি নাতনি ছেলে বউ শহরের বাসায় নদীর মাছ খায় কিনা আল্লাহ মাবুদ জানে! (মাটিরে চুলাতে দাদীজান পিঠা ভাজছেন,... ...বাকিটুকু পড়ুন

উত্তর মেরুতে নিশি রাতে সূর্য দর্শন - পর্ব ৪

লিখেছেন জোবাইর, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০১

বিভিন্ন ঋতুতে ল্যাপল্যান্ড: শীত, বসন্ত, গ্রীষ্ম ও শরৎ

রেন্ট-এ-কার' কোম্পানীর সেই মেয়েটি কুশলাদি জিজ্ঞাসা করে আগে থেকেই পূরন করা একটা ফরমে আমার দস্তখত নিয়ে কিরুনা স্টেশনের পাশের পার্কিং এরিয়াতে নিয়ে... ...বাকিটুকু পড়ুন

নন্দের নন্দদুলাল : স্বপ্ন রথে

লিখেছেন বিদ্রোহী ভৃগু, ০৫ ই জুলাই, ২০২০ সন্ধ্যা ৬:০৬

স্বপ্নের অশ্বারোহী
দূরন্ত ইচ্ছেতে ঘুরে বেড়াই, নন্দ কাননে
তাম্রলিপি থেকে অহিছত্র
পুন্ড্রবর্ধন থেকে উজ্জয়িনী, স্বপ্ন সময়ের নন্দদুলাল।

আমাদের শেকড়
বাংলার আদি সাম্রাজ্যে যেন
পতপত ওড়ে পতাকা সবুজ-লাল,
মিলেনিয়াম নন্দ ডাইনাস্টির স্বপ্ন সারথীর স্বপ্নরথে

মানচিত্র: নন্দ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×