somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

গল্পটা এমনও হতে পারতো........

২৪ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১১ সন্ধ্যা ৬:৪৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :

উৎসব বাড়ির গমগমে পরিবেশের মাঝেও বোধশূন্য নির্লিপ্ত একটা সময় কাটছে নিপুণের। বাড়িভর্তি লোকজন, আত্নীয় স্বজনদের মুখর পদচারণা, আনন্দ উল্লাস! কিছুই যেন স্পর্শ করছেনা ওকে। এত কিছুর মাঝে থেকেও, সবার মধ্য থেকে কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছে সে বার বার। চোখের সামনে ভেসে উঠছে একটি অতি প্রিয় মুখ। হাসিখুশী সদা চন্চল গভীর একজোড়া চোখ। কিন্তু সে চোখে নিপু আজ দেখছেনা আনন্দের লেশমাত্র ছায়া। অদৃশ্য সে চোখজোড়া যেন একরাশ দুঃখ মেখে চেয়ে রয়েছে তার দিকে। ছোট্ট একটা শ্বাস গোপন করে ফেললো নিপুণ। চাপ ধরা একটা কষ্টের পাহাড় পুরোটা বুক জুড়ে। সে খুব ভালোভাবেই জানে যে কল্পনাটা তার নিজের মনেই গড়া। তার নিজের মনের গোপন কষ্টটাই জন্ম দিচ্ছে এমন এক স্বপ্নের।

মা বড় চাচীকে সাথে নিয়ে এগিয়ে এলেন। বড়চাচী ওর হাত দুটো টেনে নিয়ে পরম যত্নে পরিয়ে দিলেন একজোড়া ভারী সোনার বালা। তারপর নিপুণের থুতনী ধরে চুমু খেয়ে বুকে টেনে নিলেন।
-কত বড় হয়ে গেছিস মামনি! কতদিন পর দেখছি তোকে।
নিপুণ ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে রইলো । কি অদ্ভুত ! কিছুই মাথায় ঢুকছে না ওর! এতদিন পর বড়চাচীর সাথে দেখা। অথচ ওর ভেতর কেমন যেন এক ভাবলেশহীন শূন্যতা।

রাত প্রায় দুটো। আসন্ন উৎসবের সকল কর্মচন্চলতা নিভে নেমেছে গভীর রাত। কোনো সাড়া শব্দ পাওয়া যাচ্ছেনা আর কোথাও। শুধু নিপুণের চোখে ঘুম নেই। শুয়ে আছে চুপচাপ। কি এক নিদারুন শুন্যতা! বুকের ভেতর কিসের এক হাহাকার! অথচ ওর চোখ এখন রঙ্গীন স্বপ্ন বুনে যাবার কথা ছিলো। আর ঠিক দশদিন পর ওর বিয়ে।


-তুই একটা বেহাইয়া।
-কেন ? কেন? কি করছি আমি?
-কি আবার করবি?-
-বেহাইয়ামী করছিস।
-কি রকম?
-তৃষার হাত ঐভাবে ধরে কি এত দেখছিলি? ছেলেরা কেমন বেহাইয়া হয় আমি জানিনা?
- ওহ তৃষার হাত ধরলে বেহাইয়া না? তাইলে তোর হাত দে। ধরে দেখি বেহাইয়ামীর প্রায়েশ্চিত্ত হয় কিনা।
ওর ভালোমানুষী করে কাঁচুমাচূ মুখ করা দেখে হেসে ফেলে নিপু।



-ঐ তোর ফোন বিজি কেনো?
-আরে ফোন কি সব সময় বিজি ছাড়া ইজিই থাকবে? তুমি না হয় মাদাম তেরেসা। আমি তো আর ...........
-তুই কি?
- কিছু না । আমি আমিই।
-হুম
-হুম কেনো? নিপু নিরুত্তর।
- আচ্ছা বাবা ভুল হইসে। গান শোন।
তাল ,লয় সূর ছাড়া গান ধরে রেহান।
ভালোবেসে সখী নিভৃত যতনে আমার নামটি রেখো তোমার পূজারো মন্দিরে।
-কেমন হইসে?
- বাজে।
-আসলেই
- হুম আসলেই। তবে....
- কি তবে।
-গুড ট্রাই। তোকে যে পাত্রে রাখা হবে সে পাত্রের আকারই ধারণ করবি তুই। হা হা হা
- তবে সমস্যা হলো । তোর আশেপাশে কোনো পাত্র রাখা যাবেনা।
-হুম।দিনদিন বেশী চালাক হইছো ।
হা হা হা হাসতে থাকে নিপু।


কত হাসি! কত গান! একের পর এক মনে পড়ে যায়। কিন্তু সেদিন! নিজের চোখকেও আজও বিশ্বাস করতে পারেনা নিপু। রেহানের প্রতি তৃষার আদেখলেপনা কিছুতেই সহ্য করতে পারেনা নিপু। সব জেনেশুনেও তৃষার নেকামীগুলোতে যে প্রছন্ন সায় ছিলো রেহানের সে আসলেই কখনও বোঝেনি। এতই বোকা ছিলো যে নিপু! নিজের বোকামীতে নিজেরই লজ্জা হয় আজ। যেদিন টিএসসির কোনার বারান্দায় ওদের দুজনকে ভর দুপরে আবিষ্কার করে নিপু । পরম মমতায় তৃষার চোখের জল মুছিয়ে দিচ্ছিলো রেহান। দূর থেকে সে দৃশ্য দেখে নিপুর আর সেদিন বুঝতে বাকী রইলোনা কিছুই। মেঘে মেঘে অনেক বেলা গড়িয়েছে!

প্রায় পুরোটা বালিশ ভিজে গেছে নিপুর চোখের জলে। সে জল মুছিয়ে দেবার জন্য কেউ নেই আজ। বিছানা ছেড়ে ওঠে নিপু। বাথরুমে গিয়ে জলের ঝাপটা দেয় চোখে মুখে।
জানালায় দাঁড়িয়ে দেখে গভীর কালো রাতের আকাশ জুড়ে একটা হালকা নীলাভ আলোর আভা। আকাশটাকে খুব আপন মনে হয়। খুব চলে যেতে ইচ্ছে করে আকাশের কাছাকাছি কোথাও কোনো গভীর শূন্যতায়।

হলুদ শাড়ীতে সেজেছে নিপু।ফুলে ফুলে সাজানো গাঁয়ে হলুদের মন্চটার ঠিক মাঝখানে যেন এক জীবন্ত ফুলকুমারী হয়ে বসে আছে সে। খোঁপায় হলুদ ফুল, হাতভর্তি হলুদ কাঁচের চুড়ি। চারিদিকে হলুদ কমলা শাড়িতে মেয়েরা । মনে হচ্ছে এই শীতের সন্ধ্যায় আগেভাগেই বসন্ত নেমেছে আজ নিপুদের বাগানে। হঠাৎ ঝলমলে এক ডালিয়া ফুলের মত লাল টুকটুক শাড়ি, বেণীতে জড়ানো বেলীফুলের মালা, ওর সামনে এসে দাঁড়ালো তৃষা। সাথে ফারাজভাই। তিনিও পান্জাবী ধুঁতিতে সেজেছেন বেশ নতুন বরের মত।মিটি মিটি হাসছেন তৃষার পাশে দাঁড়িয়ে। নিপু হতবিহ্বল হয়ে তাকিয়ে রইলো ওদের দিকে। ওর বিস্ফারিত দৃষ্টি দেখে তৃষা একগাল হেসে বললো,
-বিয়ে করে ফেললাম শেষ পর্যন্ত। বাসায় রাজী হলোনা। তাই সোজা কাজী অফিস। আর তারপর গত পরশু.....

সবকিছু জলের মত পরিষ্কার হয়ে আসলো এবার নিপুর কাছে। ফারাজভাই রেহানের খুব কাছের মানুষ। অথচ রেহান শয়তানটা কোনোদিন বলেনি এতকিছু তলে তলে তার কথা , তৃষার কথা। তৃষার হাত ধরে কেঁদে ফেললো নিপু। অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলো তৃষা ওর দিকে। ওর পাশে ধপ করে বসে পড়ে জিগাসা করলো।
- তুই কি এই বিয়েতে রাজি না? একবার শুধু বল যে তুই রাজি না ..
কোনো প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে নিপু জানতে চাইলো
-রেহান কেমন আছেরে?



এত ভোরে দরজা খুলে নিপুকে এই সাজে দেখে হা করে চেয়ে আছে বুয়াটা। তাকে পাশ কাটিয়ে সোজা গিয়ে রেহানের ঘরে ঢোকে নিপু। রুমের কোনার একটা ইজিচেয়ারে গিটার হাতে বসে রেহান। রাত্রী জাগরিত জবাফুলের মত লাল টকটকে ক্লান্ত দুচোখ তুলে তাকায় ওর দিকে।

নিপু এগিয়ে যায়। সারারাত কেঁদেকেঁদে চোখ ফুলিয়েছে সেও। রেহানের সামনে রাখা টুলটার উপর ধপ করে বসে পড়ে।

-তুই আমাকে কিছু বলিস নি কেনো?
রেহান নিরুত্তর। মুখ ফিরিয়ে নেয়। গিটারে টুং টাং আওয়াজ তোলে সে।
নিপু রেগে যায় আরো।
ওর কাঁধ ঝাঁকিয়ে বলে,
-বল? বলিসনি কেনো বল?

রেহান ওর দিকে গভীর চোখ জোড়া মেলে তাকিয়ে থাকে।

ভোরের নিস্তরঙ্গ বাতাসে সূর তোলে ওর গিটার। ওর ভরাট কন্ঠ গেয়ে ওঠে

আমি ঘরের হইনি , বাহির আমায় টানে....
আমি তোমার হইনি ঐ আকাশটা জানে....
বলো তোমায় ফেলে আমি যাবো কোনখানে???

বলো তোমায় ফেলে আমি যাবো কোনখানে???

নিপু হাপুস নয়নে কাঁদতে থাকে।

রেহান গেয়ে চলে,
আমি তোমায় ফেলে বলো যাবো কোন খানে???

http://www.youtube.com/watch?v=cUEu4OkE-5M

নিপুর মুখ কান্না, জল আর হাসিতে মাখামাখি হয়ে ঝলমল করতে থাকে ভোরের আবছায়া আলোয়।


হুম। গল্পটা এমনও হতে পারতো........
কিন্তু এমন শুধু গল্পেই হয় । বাস্তবটা অনেকাংশেই বীপরিত। সে যাই হোক গল্পটা এমনও হতে পারতো। :)


নিপুণের দিনরাত্রী-১

নিপুণের দিনরাত্রী-২

নিপুণের দিনরাত্রী-৩ ও ৪

নিপুণের দিনরাত্রী-শেষ পর্ব


সর্বশেষ এডিট : ২৪ শে ফেব্রুয়ারি, ২০১১ সন্ধ্যা ৭:০৩
১৫১টি মন্তব্য ১৫৩টি উত্তর পূর্বের ৫০টি মন্তব্য দেখুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

মুনীর হাসান, আপনাকেই বলছি। কথায় কথায় এইদেশের গ্রাজুয়েটরা চাকরি করতে চায় না, কিচ্ছু পারে না, বলার আগে একটু ভাববেন।

লিখেছেন সাকিবুল ইসলাম সাজ্জাদ, ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ৯:০০

বাংলাদেশে ম্যাথ অলিম্পিয়াড, পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াড জনপ্রিয় করার জন্য মুনীর হাসান, জাফর ইকবাল স্যারের ভুমিকা নিয়ে কোন কথাই হবে না, এই অবদান বা এই ক্ষেত্রে তাদের কাজের প্রভাব কি রকম সেইটা... ...বাকিটুকু পড়ুন

নিশিকুটুম্ব

লিখেছেন পদাতিক চৌধুরি, ২১ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ১০:৩৮



আমি তখন কলকাতার একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি। বাড়ি থেকে যাওয়া-আসা সম্ভব না হওয়ায় সোনারপুরে একটি মেস বাড়ি থেকে পড়াশোনা করতাম । বেশ বড় মেস। আমরা একসঙ্গে দশজন ছেলে মেসটিতে থাকতাম।সে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সমস্ত স্থলভাগ, সমস্ত দ্বীপ মানুষের চেনা হয়ে গেছে। তাহলে কোথায় যাবো?

লিখেছেন রাজীব নুর, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২১ রাত ২:৪২



বিধি ডাগর আঁখি যদি দিয়েছিল
সে কি আমারি পানে ভুলে পড়িবে না
এত সুধা কেন সৃজিল বিধি, যদি আমারি তৃষাটুকু পূরাবে না।


এই পৃথিবীতে কোটি কোটি মানুষ জীবনে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতের উপহারের টিকা ঢাকায়!!!

লিখেছেন ঢাবিয়ান, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২১ দুপুর ২:১৬

করোনাভাইরাসের টিকা: বাংলাদেশে ট্রায়াল চালাতে চায় ভারত বায়োটেক ( https://www.bbc.com/bengali/news-55756654)। এদিকে ভারতের উপহার হিসেবে দেওয়া ২০ লাখ করোনার টিকা আজ বৃহস্পতিবার ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। আগে বলা হয়েছিল যে বেক্সিমকোর সাথে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ভারতের টিকা উপহার, ঢাকায় কারো বিয়ে হচ্ছে নাকি?

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২২ শে জানুয়ারি, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:১৭



পাকিস্তানে আইয়ুব খান ক্ষমতায় আসার পর, আমেরিকা থেকে রিলিফ আসার শুরু হয়: গুড়া দুধ, গম, চাল, ডালডা, ঢেউটিন; এগুলো আসতো গরীবদের জন্য; গরীবেরা পেতেন সামান্য, ধনীরা নিয়ে যেতেন... ...বাকিটুকু পড়ুন

×