somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

ছোটগল্প - শব্দ

২২ শে মে, ২০১৬ বিকাল ৪:৫২
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


আশেপাশের চৌদ্দ গজে কেউ থাকার কথা না ! নির্জন গলিতে শুধু রাস্তার কুকুরগুলো আরামকরে শহুরে জোছনা খাচ্ছে। আমি কান খাড়া করি। শব্দ ! আবার, ওই তো ! ওই যে শব্দটা !!
একটা গোঙ্গানির শব্দ কি ?

মানুষের ?
কুকুরগুলোর ?

‘কুত্তার বাচ্চা কুত্তা !’ দেড় কেজি ওজনের একটা গালি দিয়ে তেড়ে যাই সামনের দিকে।‘চিনস আমারে ? হান্দায়া দিমু এক্কেবারে’। আমার হাতে কিছু নেই, আমি আতিপাতি করে খুঁজতে থাকি একটা কিছু। একটা ইটের টুকরো হলেও চলবে। চোখগুলো গেলে দিলে শান্তি লাগতো। ইশ, যদি কয়েকটাকে বেঁধে ইচ্ছে মতো সকাল পর্যন্ত পেটাতে পারতাম!
‘গেছে গা তো, চাইয়া রইসস কোনদিকে ?’, আমার ভিতরটা বলে উঠে। চোখগুলো আরেকটু বড় বড় করতেই দেখি শেষ নেড়িটাও দৌড়ে কানা গলির ওপাশে গিয়ে গজরাচ্ছে।

শহর চুপ। গলি চুপ। ল্যাম্পপোস্ট চুপ। নেড়িগুলো চুপ। আমিও তো চুপ, কিন্তু গোঙ্গানির শব্দটা তো থামে না।
‘কোন মাতারি রে ?’ থাকতে না পেরে চিৎকার করে উঠলাম। ‘ বইয়া বইয়া কান্দস কেন ?’
গোঙ্গানি থামে। হঠাৎ খসখস শব্দ হয়। কাগজে কাগজ ঘষার শব্দ। বেশ কিছুক্ষন, থেমে থেমে। উৎস ধরে আমি এগুতে থাকি। একটা ডাস্টবিন। পেছনে জমাট নর্দমা। তীব্র গন্ধটা নাকে আসতেই মনে হলো এই মুহূর্তে মগজটা কে যেন ফালি ফালি করে দিল।

‘বাঁচাও! বাঁচাও !!’ একটা গলা শোনা যায়।
-‘কে ভাই ?’ গলাটা বাড়িয়ে দেই।
-‘আমি, আমি। খুব অন্ধকারে আছি, বাঁচাও।’ বাচ্চা বাচ্চা গলাটা বলে উঠে।
-‘আরে বেক্কল, আকাশে চান্দ উঠসে দেখসো না ? আন্ধার কই ?’ মেজাজটা আবার গরম হয়ে যায়। ‘কয় পেগ গিলসত হারামী ?’
- ‘এখানে অনেক অন্ধকার, কিছু দেখা যায় না। আমাকে আলোর কাছে নিয়ে যাবে?’ ওপাশ থেকে ভেসে আসে কথাগুলো।
- ‘দেখ ভাই, আমিও এই মাত্র গিল্লা আইসি।’ খেক খেক করে হেসে ফেলি। ‘ সইরা বয়, ডাস্টবিনে কি করস? বাইর হইয়া আয়।’
- শ্বাস নেওয়া যায় না ! দম বন্ধ হয়ে আসছে। আর দুর্গন্ধটা!
- আরে বলদ ড্রেনের সামনে বইয়া আর কিয়ের গন্ধ পাইবি ?
- ‘ফুলের গন্ধ নাকি অনেক আমুদে, আমার গায়ে একটু মাখিয়ে দিবে?’ অন্ধকার থেকে এক নাগাড়ে বলে যাচ্ছে কণ্ঠটা।

আমার আর সহ্যসীমা কুলায় না। ডাস্টবিনের পাশে কি ভেবে যেন এতক্ষন বসে ছিলাম। এক লাফে সামনে যাই। ভিতর থেকে শুয়োরটাকে বাইরে বের করে আনা উচিত বোধহয়।

এমন সময় হঠাৎ মাথার উপর যেন অনেকগুলো আলো এসে পড়ে। চোখ ছোট ছোট করে তাকাতেই দেখি ঠিক পেছন থেকে টর্চ জ্বালিয়ে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে দুজন।

-‘বড়বাড়ির মদখোরটা না ?’ মাথার পেছনে টর্চের গোড়ার সপাৎ একটা বাড়ি পড়ে। তীব্র ব্যাথায় চিৎকার করে উঠার সামর্থ্যটা হারিয়ে ফেলি। ‘এইখানে কি করে এতক্ষন?’ কন্ঠটা ফিসফিসিয়ে কাকে যেন জিজ্ঞেস করে।
- ডাস্টবিনের পাশে বসে ছিল ওস্তাদ। এতক্ষনে দ্বিতীয়জনের অস্তিত্ব টের পাওয়া যায়।
- কি করে দেখি। প্রথমজনের টর্চের আলো আমার মাথার পেছন থেকে সোজা সামনে নোংরা আবর্জনার স্তূপের উপর গিয়ে পড়ে।

একটা নবজাতক।
মৃতদেহের ছোট্ট হাতটা একটু আগেই বোধহয় কুকুরগুলো চাবিয়েছে।

মাথার পেছনের ব্যাথাটা এতক্ষনে কমে গেছে অনেকখানি। এবার গলাটা ছিঁড়ে আমার ভীষণ চিৎকারটা বেড়িয়ে যেতে থাকে……..

পেছনে ছুঁয়ে যায় জোছনা খাওয়া পোড়া শহরটাকে !
সর্বশেষ এডিট : ৩১ শে আগস্ট, ২০২০ দুপুর ১:৪৩
৩০টি মন্তব্য ২৩টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

আলী জাকের মারা গেছেন

লিখেছেন শাহ আজিজ, ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ সকাল ১০:১৪


ভোর বেলা আজ তাড়াতাড়ি উঠে গেছি , কেন জানিনা । পি সি খুলে কেউ একজন বাংলা একাডেমী ইন্টারন্যাশনাল সাইটে দুসংবাদটি দিল । পত্রিকায় আসেনি তখনো । ক্যান্সারে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঢাকার শিক্ষক, কবি, লেখক, অভিনেতা, সমাজকর্মী, উচচ-পদস্হ কর্মচারীরা চুপচাপ মরছেন!

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ সকাল ১১:৫০



যাযাবর সম্প্রদায়ের গৃহকর্তা পানি খাবে; পানি আনার জন্য অর্ডার দেয়ার আগে, ছেলেমেয়ে, বা বউকে কাছে ডাকবে; যে'জন কাছে আসবে, তার হাতে একটা থাপ্পড় দেবে জোরে, বিনাকারণে এই... ...বাকিটুকু পড়ুন

শেষ কাব্য

লিখেছেন ঠাকুরমাহমুদ, ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১২:৫৮



হতেই পারে এই রাত শেষ রাত
হতেই পারে এই দিন শেষ দিন,
হতেই পারে এই লেখা শেষ লেখা
হতেই পারে এই দেখা শেষ দেখা।

হতেই পারে এই চোখ শেষ আঁকা
হতেই পারে এই চোখে... ...বাকিটুকু পড়ুন

প্রায় দেড় মিলিয়ন ভিউসংখ্যার ভিডিওটিসহ আমার ইউটিউব চ্যানেলের শীর্ষ ১৫টি মিউজিক ভিডিও

লিখেছেন সোনাবীজ; অথবা ধুলোবালিছাই, ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ দুপুর ১:৫৩



আপনারা অনেকেই জানেন, আমি ব্লগিং করার পাশাপাশি ভ্লগিংও (ইউটিউবিং) করে থাকি, ফেইসবুকিং-এর কথা তো বলাই বাহুল্য। আজ এ পোস্ট ফাইনাল করতে যেয়ে দেখলাম, ইউটিউবে আমার অ্যাকাউন্ট ওপেন করার তারিখ... ...বাকিটুকু পড়ুন

স্বপ্ন সেতু পদ্মা-- ফটোব্লগ

লিখেছেন সাদা মনের মানুষ, ২৭ শে নভেম্বর, ২০২০ বিকাল ৪:২৪


স্বপ্ন সেতু পদ্মা নির্মিত হচ্ছে অনেক দিন হল। এই নির্মান যজ্ঞ দেখার জন্য বেশ কিছু দিন যাবৎ যাই যাই করেও যাওয়া হচ্ছিল না। অবশেষে শিকে ছিড়ল কয়েক দিন আগে। পদ্মা... ...বাকিটুকু পড়ুন

×