somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

বিবর্তন তত্বে মুসলিম বিজ্ঞানীদের অবদান

০১ লা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ রাত ১:৩৪
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


প্রথমেই বলে নেয়া প্রয়োজন যে এটি একটি লিংক সমৃদ্ধ পোষ্ট। বর্তমান সময়ে জ্ঞান বিজ্ঞানে মুসলিম বিশ্ব কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা, প্রশাখায় মুসলিম বিজ্ঞানীদের অবদান অনিস্বীকার্য। যুগ যুগ ধরে মুসলিম বিজ্ঞানীগণ জ্ঞান বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় অবদান রেখে এসেছেন এ কথা আমরা সবাই জানি, কিন্তু আজ আমরা দেখবো চার্লস ডারউইনের জন্মেরও বহু বছর আগে বিবর্তন তত্ব নিয়ে মুসলিম বিজ্ঞানীগণ কি কি ধারণা দিয়ে গিয়েছেন। দুঃখজনক হলেও সত্য যে মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিজ্ঞানে অনাগ্রহ, পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধার অভাব এবং পশ্চিমা বিশ্বে মুসলিম বিজ্ঞানীদের প্রতি অবহেলার কারণে এ সকল মুসলিম বিজ্ঞানী আজ পর্দার আড়ালেই রয়ে গিয়েছেন। ইতিহাসের পাতা ঘাঁটলে দেখা যায়; বেশকিছু মুসলিম বিজ্ঞানী, দার্শনিক ছিলেন যারা ডারউইনের জন্মের অনেক আগেই বিবর্তন নিয়ে বিভিন্ন ধারণা দিয়ে গিয়েছেন, কিন্তু ধর্মীয় কারণে তাদের সে গবেষণা খুব একটা আলোর মুখ দেখেনি। আমি আজ কয়েকজন মুসলিম বিজ্ঞানীদের নাম উল্ল্যেখ করবো যারা বিবর্তন নিয়ে নিরলস কাজ করে গেছেন। এই পোস্টে প্রতিটি মুসলিম বিজ্ঞানী এবং বিবর্তন সমন্ধে তাদের গবেষণার বিষয়ে আলাদা আলাদা ভাবে বিস্তারিত আলোচনা করা সম্ভব হবে না; আমি শুধু তাদের নাম এবং তাদের বিষয়ে কিছু লিংক দিয়ে দিচ্ছি, যাদের পর্যাপ্ত সময় রয়েছে তারা আলাদা আলাদা ভাবে উনাদের নিয়ে গবেষণা করে দেখতে পারেন। চলুন দেখি কোন কোন মুসলিম বিজ্ঞানী বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করেছেন।

১: আল-জাহিজ: (৭৭৬ - ৮৬৯)


মাহান এই বিজ্ঞানীর আসল নাম "আবু উসমান আমর ইবনে বাহর" তবে তিনি "আল-জাহিজ' নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন । ৭৭৬ সালে তিনি ইরাকের বসরা নগরীতে জন্মগ্রহণ করেন। মুসলিম বিজ্ঞানী, দার্শনিকদের মধ্যে তিনিই সর্বপ্রথম বিবর্তন সম্পর্কে ধারণা দেন। তার বিখ্যাত গ্রন্থ "কিতাব আল হায়াওয়ান" বা "প্রাণীর বই" নামক এই গ্রন্থে তিনি বিবর্তনের প্রথমিক ধারণা দিয়ে গিয়েছিলেন।



বইটিতে তিনি প্রজাতির রূপান্তর এবং বিবর্তনীয় না প্রক্রিয়া সম্পর্কে তার চিন্তাভাবনা বর্ণনা করেছেন।



এখান থেকে বইটির আরবী ভার্সন ডাউনলোড করা যাবে।

বইটির ইংলিশ ভার্সন পেলাম না, তবে এখানে বইটি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য পাবেন।

একজন Assistant professor in the department of near & Middle Eastern civilizations Mr.Jeannie Miller বইটির কড়া সমালোচনা করেছেন : The transcendent value of disgust

এবং Islamic Research Foundation International, Inc, আল-জাহিজের বিবর্তন বিষয় একটা প্রবন্ধ লিখেছে: AL-JAHIZ AND THE RISE OF BIOLOGICAL EVOLUTIONISM পড়ে দেখতে পারেন।

ইদানিং কুয়েতের ছেলে-মেয়েদের তার বই পড়ানো হচ্ছে।


( দুঃখিত, কুয়েতের ওয়েব সাইটের লিংকটি সংযুক্ত হচ্ছে না তাই নিচের এই লেখাটা দিয়ে গুগুলে সার্স করুন পেয়ে যাবেন )
"KFAS and 1001 Inventions launch new Arabic children’s book about 9th –century scholar and explorer Al-Jahiz and his book on animals"
আল জাহিজ সম্পর্কে আরও জানি উইকি থেকে।

=============================================================


২: ইবনে মিসকাওয়াইহ: (৯৩২ - ১০৩০)


পুরো নাম - আবু আলী আহাম্মদ ইবনে মোহাম্মদ ইবনে ইয়াকুব বিন মিসকাওয়াই, যিনি ৯৩২ সালে তৎকালিন পরস্য অঞ্চলে জন্মগ্রহন করেন। তিনি আল-জাহিজের বিবর্তন তত্বকে আরও বিস্তারিতভাবে ব্যখা করেন তার "Al-Fauz al-Asghar" (The Small Achievement) নামক বইয়ে।



তিনি সেখানে উল্ল্যেখ করেন "প্রত্যেক প্রাণীই প্রকৃতপক্ষে একটি অ-প্রাণী থেকে উদ্ভূত, কারণ আধা তরল নিজেই একটি প্রাণী নয়: এই তরল রক্ত, রক্তের খাদ্য, উদ্ভিদের খাদ্য, উদ্ভিদের উপাদান ও সরল পরমাণুর উপাদান এবং একই 'রূপ' এবং 'বস্তু' দ্বারা গঠিত।" ভারতীয় ইসলামী পণ্ডিত 'মুহাম্মদ হামিদুল্লাহ' 'ইবনে মিসকাওয়াইহের' মতামতকে ডারউইনের বিবর্তনীয় চিন্তাধারার সাথে তুলনা করেছিলেন। তো চট করে বইটি এক্ষুনি পড়ে ফেলুন আমাজন থেকে; দাম মাত্র ১৮ ডলার :-P । ওয়েট এ মিনিট স্যার, কেনার আগে একটু খেয়াল কইরা, বইটি কিন্তু আরবিতে লিখা। পই পই করে খুঁজেও বইটির বাংলা অথবা ইংরেজী ভার্সন পেলাম না। আমি ঠিক বুঝলাম না ব্লগাররা সারাদিন করেটা কি!! দুষ্প্রাপ্য এসব বই গুলো তারা কি আমাদের জন্য একটু অনুবাদ করে দিতে পারে না? সারাদিন খালি ক্যাচাল করার ফঁন্দি মাথায়; আর শুধু ফাঁকিবাজি, হা! হা!

জৈবিক বিবর্তন তত্ত্ব নিয়ে তিন জন ইসলামিক পন্ডিতের কি কি গবেষণা পত্র আছে তার কিছু নমুনা এখানে পাবেন IKHWAN AL-SAFA, IBN MISKAWAYH, BIRUNI AND BIOLOGICAL EVOLUTIONARY THEORY তে, আর এই তিনজনের একজনই হচ্ছেন এই ইবনে মিসকাওয়াইহ

ইবনে মিসকাওয়াহ সমন্ধে আরও জানি উইকি থেকে

==================================================================

৩: নাসির আল-দিন আল-তুসি:



১৮ই ফেব্রুয়ারী ১২০১ খ্রিস্টাব্দে ইরানের খেরসন অঞ্চলে জন্ম নেয়া এই মুসলিম বিজ্ঞানী ডারউইনের জন্মের ৬০০ বছর আগেই ন্যচারাল সিলেকশন, মানুষ এবং প্রাণীর মধ্যে যোগসূত্র, জীবের পরিবর্তনের বিভিন্ন ধাপ সম্পর্কে আলোচনা করে গিয়েছেন।
উনার সম্পর্কে আরও বিস্তারিত পাওয়ে যাবে এখানে Theory of Evolution was Originally Created by a Muslim Scientist



আল-তুসি চার্লস ডারউইনের জন্মের প্রায় 600 বছর আগে প্রজাতির বিবর্তনের একটি মৌলিক তত্ত্ব উপস্থাপন করেছিলেন তার রচিত: "আখলাক-ই-নাসরি" নামক এক বইয়ে।



মুসলিম ডট কমে আল-তুসি সমন্ধে আরও লিখা আছে: However, one other notable contribution of al-Tusi is his theory of evolution. He proposed this theory about 600 years before Charles Darwin conceived of evolution. In his work ‘Akhlaq-i-Nasri’, he explains how the universe once consisted of small and similar elements. Then, he puts the emphasis on the internal variability that started to appear between these elements. Some substances started to grow faster and became different from the other substances around them. This way, elements turned into minerals, plants, animals and humans. These are the types of living things that Tusi described. বিস্তারিত জানি এখান থেকে: Meet The Scholar Who Proposed The Theory of Evolution 600 Years Before Darwin Did.

আল- তুসি সম্পর্কে আরও জানি এখান থেকে: A 13th-Century Darwin?

উইকিতে Nasir al-Din al-Tusi সম্পর্কে লিখা আছে: Nasir proposed that humans are related to animals and that some animals have a limited level of awareness while humans have a superior level of awareness amongst animals. He also framed a very basic evolutionary theory (though markedly different from modern evolutionary theory)
উনার সম্পর্কে আরও জানি উইকি থেকে


=====================================================================

উপরে আমি শুধুমাত্র উক্ত তিনজন মুসলিম বিজ্ঞানীর বিবর্তন সম্পর্কিত তথ্য দিয়ে দিলাম, এছাড়া আরও অন্তত ১০ জন মুসলিম বিজ্ঞানী, দার্শনিক পাওয়া যাবে যারা বিবর্তন নিয়ে গবেষণা করেছেন অথবা পূর্বের বিজ্ঞানীদের (মুসলিম এবং অ-মুসলিম) বিবর্তন সম্পর্কিত চিন্তাধারার সাথে একমত পোষণ করেছেন। আমি কয়েকজনের নাম উল্ল্যেখ করে দিচ্ছি শুধু।
১: আল-ফারাব্বী (870-950)
২: আল-মাসুদী (345/957)
৩: ঈমাম রাগিম ইসফহনি
৪: আল-বিরুণী
৫: ইকওয়ান আল-সাফা, এবং আরও অনেকে। বিস্তারতি পাবেন এখানে: Pre-Darwinian Muslim Scholars’ Views on Evolution

এখানেও একটু ঢুঁ মারি: A Thousand Years Before Darwin, Islamic Scholars Were Writing About Natural Selection

এ ব্যাপারে উইকিতে দেখি কি লেখা আছে Islamic views on evolution

বিবর্তনের ইসলামীক পূর্বাভাস। ইদানিং মধ্যপ্রাচ্যের উতি উৎসাহী কেউ কেউ দাবী করছেন, ডারউইন বিবর্তনের প্রাথমিক আইডিয়া মুসলীম বিজ্ঞানীদের কাছ থেকেই কপি করেছেন বা চুরি করছেন। তবে বিশিষ্ট বিজ্ঞানী Salman Hameed, the director of the Centre for the Study of Science in Muslim Societies at Hampshire College in Amherst, বিষয়টি পুরোপুরি নাকচ করে দিয়েছেন, যে এর কোন প্রমাণ নেই। নিচে স্ক্রীনশটটি দেখুন।



বিষয়টি নিয়ে বিবিসিবাংলা তে একটা আর্টিক্যাল প্রকাশ হয়েছিল ২০১৯ এ: ডারউইনের ১০০০ বছর আগে বিবর্তনবাদের তত্ত্ব দিয়েছিলেন যে মুসলিম দার্শনিক

এবার বিবর্তন তত্ব নিয়ে দুজন খ্যাতিমান মুসলিম স্কলার কি বলেন তা একটু শুনি নিচের ভিডিও থেকে।





লেটেস্ট খবর হচ্ছে- বিজ্ঞানময় গ্রন্থ আল-কুরআনেও নতুন এক ধরনের বিবর্তনের প্রমাণ পাওয়া গেছে, এই পোস্টে

===============================


আজকের মত এ পর্যন্তই, দেখা হবে আরেক দিন।

পোস্টে ভুল ভ্রান্তি থাকা বাঞ্চনীয়, ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ থাকবে।

সোর্স: পোস্টে উল্ল্যেখিত লিংকগুলোই এই পোস্টের সোর্স সমুহ।

ধন্যবাদ সবাইকে।
সর্বশেষ এডিট : ১৬ ই অক্টোবর, ২০২৩ সকাল ১১:২৩
৭টি মন্তব্য ৭টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

গাছ না থাকলে আপনিও টিকবেন না

লিখেছেন অপু তানভীর, ২১ শে এপ্রিল, ২০২৪ দুপুর ১:২০

আমাদের বাড়ির ঠিক সামনেই একটা বড় কৃষ্ণচুড়া গাছ ছিল । বিশাল বড় সেই গাছ আমাদের বাড়ির ছাদের অর্ধেকটাই ছায়া দিয়ে রাখত । আর বাড়ির পেছনের দিকে ছিল একটা বড় বাঁশ... ...বাকিটুকু পড়ুন

মাছ চাষে উচ্চ তাপমাত্রার প্রভাব ও মাছ চাষীর করণীয়

লিখেছেন সুদীপ কুমার, ২১ শে এপ্রিল, ২০২৪ বিকাল ৫:৫৩


পৃথিবীর উষ্ণায়ন প্রকৃতি এবং আমাদের জীবন যাত্রার উপর ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করেছে।আমরা যদি স্বাদুপানির মাছ চাষীর দিকে লক্ষ্য করি তবে দেখবো তাদের মাছ উৎপাদন তাপদাহ প্রবাহের ফলে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।তাদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

ব্লগার সৈয়দা গুলশান ফেরদৌস জানা'র উপর আপডেট দেবেন কেউ।

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ২১ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ৮:০১






এই বছরের ২১ শে ফেব্রুয়ারী, ব্লগার সৈয়দা গুলশান ফেরদৌস জানা'র পোষ্ট পড়ে খুবই ভালো লেগেছিলো; আমরা জানি যে, তিনি শারীরিক অসুস্হতাকে কাটিয়ে উঠার প্রসেসের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন; তাঁর দৃঢ় মনোবল... ...বাকিটুকু পড়ুন

নারীর সংসারের মালিকানা

লিখেছেন সায়েমার ব্লগ, ২১ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ১০:৩৫

নারীদের সমান সম্পত্তি লাভের আলাপে কেবল যে পিতার সম্পত্তিতে ভাইয়ের সমান অধিকার বুঝানো হয়, বিষয়টা কি গোলমেলে লাগে না? পিতার বাড়িতে থাকা অবস্থায় নারীরা মোটা দাগে সম্পদ সৃষ্টিতে সাধারণত তেমন... ...বাকিটুকু পড়ুন

নোংরা মৌলবাদীরা মাহির পেজটা খাইয়া দিল।

লিখেছেন মোহাম্মদ গোফরান, ২১ শে এপ্রিল, ২০২৪ রাত ১১:৫২


আমি ব্লগে সাধারণত জঙ্গি রাজাকার ও ভন্ড হুজুর ওরফে কাঠমোল্লা দের নোংরামির বিরুদ্ধে লিখি। আমি মুমিন দের সম্মান করি, আমি নিজে একজন সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারের সন্তান। শুধুমাত্র জঙ্গি রাজাকার... ...বাকিটুকু পড়ুন

×