somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

পোস্টটি যিনি লিখেছেন

অনল চৌধুরী
সাহসী সত্য।এই নষ্ট দেশ-জাতি-সমাজ পরিবর্তনের প্রচেষ্টাকারী একজন যোদ্ধা।বাংলাদেশে পর্বত আরোহণের পথিকৃত।

করোনা সংকটে করণীয়

১৩ ই এপ্রিল, ২০২১ ভোর ৪:৩৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


প্রথম



করোনা ভাইরাসের কারণে সারা পৃথিবীর ব্যবসা-বাণিজ্যের মতো বাংলাদেশেও ক্ষতিকর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে চীন থেকে আগের মতো কাচামাল আমদানী সম্ভব না হওয়ায় তৈরি পোশাকসহ রফতানিমুখী বিভিন্ন খাতের পণ্য উৎপাদন নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন ব্যবসায়ীরা।

এর সঙ্গে বাংলাদেশ থেকে পণ্য রফতানি হয় এমন দেশগুলোতেও করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে থাকায় অনেক দেশ ৭৯০ কোটি টাকার তৈরী পোষাকসহ বিভিন্ন পণ্যের রপ্তানী আদেশ বাতিল করেছে।এর ফলে বিপুল পরিমাণ আর্থিক ক্ষতিতে পড়েছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা।তৈরী পোশাক খাত ক্ষতিগ্রস্থ হলে কয়েক লাখ লোক বেকারত্ব ও অর্থনৈতিক সংকটে পড়বে।

এছাড়াও ইউরোপের বিভিন্ন দেশ করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় সেসব দেশ থেকে প্রবাসীদের প্রেরিত বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ হ্রাস,বিমান চলাচল বন্ধ হওয়ার কারণে বিমান খাতও লোকসানের মুখে পড়বে।

অচিরেই করোনা ভাইরাসের কোনো প্রতিষেধক আবিস্কৃত না হলে গরীব দেশ হওয়ার কারণে বাংলাদেশে সামগ্রিক অর্থনৈতিক অবস্থা শোচনীয় হতে পারে।


এ থেকে পরিত্রাণের জন্য বিভিন্ন ক্ষেত্রে কৃচ্ছতা সাধন এবং কিছু ক্ষেত্রের প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

অবস্থায় নীম্ন লিখিত সুপিারিশগুলি উপযোগী হতে পারে:


১। খাদ্য সংকট মোকাবেলায় দেশের প্রতিটা এলাকায় সরকারী–বেসরকারী প্রতি ইঞ্চি অনাবাদী জমিতে দ্রুত ধান,গম,আলু,ভূট্টা,ইত্যাদি কৃষি ফসল এবং শাক-সব্জি উৎপাদন শুরু করতে হবে।

২। গ্রীষ্মকালে দিনের আলো ব্যবহার এবং বিদ্যুতের অপচয় রোধের জন্য ইউরোপ,এ্যামেরিকা ও ক্যানাডার মতো ঘড়ির কাটা ১ ঘন্টা পিছিয়ে মতো ডে-লাইট সেভিং পদ্ধতি চালু করতে হবে।

৩। সকল প্রতিষ্ঠান,বিপনী বিতান ও কারখানা সন্ধ্যা ৭ টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে।

৪। বিদ্যুৎ উৎপাদনে ব্যবহ্রত তেল ও গ্যাসের অপচয় রোধের জন্য সকল প্রকার আলোকসজ্জা নিষিদ্ধ এবং রেফ্রিজারেটর ও এসির ব্যবহার পরিমিত করতে হবে।

৫। কম ব্যায়বহুল হওয়ায় বায়ুকল এবং সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে এবং এভাবে উৎপাদিত বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রীডে যুক্ত করতে হবে।

৬। বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে অতিথির সংখ্যা সর্বোচ্চ ২০০ জনে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।

৭। করোনা সংকট থেকে মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত সরকারী বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের গাড়ি কেনার জন্য ৩০ লাখ টাকা ঋণ এবং গাড়ির খরচের জন্য প্রতিমাসে ৫০ হাজার টাকা প্রদানের সিদ্ধান্ত ৫% সুদে গৃহনির্মাণ ঋণ প্রদানের সুবিধা স্থগিত রাখতে হবে।

৮। প্রতিদিন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠান প্রতি প্ট্রেল,অকটেন ও ডিজেলসহ সবধরণের জ্বালানী তেল বিক্রি পরিমাণ নির্দিষ্ট করে দিতে হবে।
৯। তৈরী পোষাকসহ বিভিন্ন রপ্তানী পণ্যের প্রয়োজনীয় কাচামাল দেশেই উৎপাদন শুরু করতে হবে।

১০। বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের জন্য খাদ্যশস্য,জীবন রক্ষাকারী ওষুধ ও চিকিৎসা সরঞ্জাম এবং জরুরী পণ্য ছাড়া সবরকম অপ্রোজনীয় পণ্য প্রসাধনী ও বিলাস সামগ্রী আমদানী নিষিদ্ধ করতে হবে।


এছাড়াও সচেতন ব্যাক্তিদের মতামতের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় অন্যান্য সিদ্ধান্তও কৃচ্ছতার আওতায় আনতে হবে।

এ ব্যাপারে দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা প্রয়োজন।

দ্বিতীয়
করোনাজণিত অনিবার্য খাদ্যসংকটের বিপদ থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য বাংলাদেশে আমিই প্রথম দেশের প্রতি ইঞ্চি জায়গায় ফসল ও শাকসব্জি উৎপাদনের উপদেশ দিয়েছিলাম,যা ১৯ ই মার্চ এই ব্লগে এবং ২০ মার্চ ইত্তেফাকে প্রকাশিত হয়।

কিন্ত এদেশের নিয়ন্ত্রকদের কি কারো এসব দরকারী কথা শোনার সময় আছে?

এখন ফসল লাগানো হলেও মাত্র ১০০ দিনের মধ্যে ধান এবং প্রায় একই সময়ের মধ্যে আলু,ভূ্টা ও গম উৎপাদন সম্ভব।

এর চেয়ে আরো কম সময়ে সব ধরণের শাক-সব্জি উৎপাদন করা যায়,যা খেয়ে জীবন ধারণ করা সম্ভব।

এছাড়ার দেশের প্রতিটা জলাশয়ে মাছ চাষ করা হলে সেটা আরো ভালো হবে,কারণ এর ফলে প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণ করা যাবে।

করোনা আতংকে ঢাকা শহরে বসবাসকারী শ্রমজীবি শ্রেণী সহ অস্থায়ী ঠিকানার প্রায় সব লোকজনই আতংকে গ্রামে চলে গেছেন।

এদের মধ্যে যাদের নিজেদের জমি আছে,তাদের নিজেদের উদ্যোগে এবং যাদের সেটা নাই ,তাদের অবিলম্বে সরকারী জমি এবং জলাশয়ে ফসল ও মাছ চাষ শুরু করার জন্য সরকারীভবে নির্দেশ দিতে হবে।

এছাড়াও হাস-মুরগি,গরু-ছাগল উৎপাদনের পরিমানও বৃদ্ধি করতে হবে।

এর ফলে উৎপাদনকারীরা যেমন ব্যবসায়ীকভাবে লাভবান হবে, একইসাথে সারা দেশের মানুষ নিজেদের খাদ্যের নিরাপত্তা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবে।

এজন্য আর্থিক সহায়তা এবং প্রয়োজনে সরকারী সব সংস্থাকে কাজে লাগাতে হবে।

করোনার কারণে পৃথিবীর সব দেশের মতো বাংলাদেশেরও প্রায় প্রতিটা মানুষ আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
বেশীরভাগ মানুষের আয় প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে।

এই পরিস্থিতিতে খাদ্য-সামগ্রীর দাম বেড়ে গেলে সেটা আরো মারাত্মক হবে।

১৭ কোটি মানুষের একটা দেশে খাদ্যসংকট দেখা দিলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে,যা শুধু সময়মতো উদ্যোগ নিয়ে খুব সহজে সমাধান করা যায়।



*******************

করোনা পরিস্থিতিতে প্রয়োজনীয় করণীয় নিয়ে এই দুটি লেখা গতবছরের মার্চ আর এপ্রিলে লিখেছিলাম।

গতবছরের চেয়ে কয়েকগুণ শক্তি নিয়ে দেশে পুনরায় করোনা আক্রমণ করেছে।


পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দেশের স্বার্থে আবারও দিলাম।
সর্বশেষ এডিট : ১৪ ই এপ্রিল, ২০২১ ভোর ৫:২৯
১০টি মন্তব্য ১০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

গেছো ভুতের পাল্লায়

লিখেছেন রানার ব্লগ, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ বিকাল ৫:৪৮




সময়টা শীতকাল, বার্ষিক পরিক্ষা শেষ, প্রতিবারের মত নানু বড় মামা কে পাঠিয়ে দিলেন আমাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্য, মামা আসা মানে আমার আনন্দ দ্বিগুণ, উত্তেজনায় রাতে ঘুম কম হয়,... ...বাকিটুকু পড়ুন

গাছ-গাছালি; লতা-পাতা - ০৭

লিখেছেন মরুভূমির জলদস্যু, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৬:৫০

প্রকৃতির প্রতি আলাদা একটা টান রয়েছে আমার। ভিন্ন সময় বিভিন্ন যায়গায় বেড়াতে গিয়ে নানান হাবিজাবি ছবি আমি তুলি। তাদের মধ্যে থেকে ৫টি গাছ-গাছালি লতা-পাতার ছবি রইলো এখানে।


পানের বরজ


অন্যান্য ও আঞ্চলিক... ...বাকিটুকু পড়ুন

জার্মান নির্বাচন: মার্কলের দল জয়ী হয়নি।

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ সন্ধ্যা ৭:১০



গতকাল (৯/২৬/২১ ) জার্মানীর ফেডারেল সরকারের পার্লামেন্ট, 'বুন্ডেসটাগ'এর নির্বাচন হয়ে গেছে; ইহাতে বর্তমান চ্যান্সেলর মার্কেলের দল ২য় স্হান পেয়েছে। বুন্ডেসটাগ'এর সদস্য সংখ্যা ৫৯৮ জন; কিন্তু এবারের নির্বাচনের ফলাফলের... ...বাকিটুকু পড়ুন

পুরুষ মানুষ সহজে কাঁদে না.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১০:০২

"পুরুষ মানুষ সহজে কাঁদে না"... কারণ পুরুষের চোখে জল মানায় না... জন্মের পর তাদের মাথায় ঢুকিয়ে দেয়া হয় যতো কষ্টই হোক তোমার চোখে জল আনা যাবে না!

নারীরা হুটহাট কেঁদে উঠতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

ঢেঁড়স

লিখেছেন রাজীব নুর, ২৭ শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাত ১১:৪১





মানুষের যখন বয়স বাড়ে, তখন ছোটবেলার কথা মনে পড়ে।
ছোটবেলার বহু ঘটনা একদম ভুলেই গিয়েছিলাম। কিন্তু ইদানিং হুটহাট বহু ঘটনা চোখের সামনে ভেসে আসে। আমাদের পাশের বাসায় কাদের... ...বাকিটুকু পড়ুন

×