somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

অপবিত্রতার ঘূর্ণিজালে...মানবিকতা...?

০৮ ই মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৩
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :



সংযমের মাস শুরু হয়েছে। আর আমাদের অসংযমের গ্রাফও রকেট গতিতে উর্ধ্বমুখী ধাবমান। কাজে-কর্মে; চলনে-বলনে; আচারে-ব্যবহারে সবখানেই ভেজালে পরিপূর্ণ। মন যদি নিষ্কলুষ না হয় তাহলে কথায় কিংবা আচারে কি আর শুদ্ধতা আসে। আমাদের মন হয়ে গেছে অপবিত্র।

যেহেতু বিশ্বাসী তাই এই অপবিত্র মনটাকে শুদ্ধিকরণে সপ্তাহান্তে একবার হলেও পবিত্রঘরে যাই। কিন্তু সেখানেও হিংসার বীজ। মিথ্যা আস্ফলন। নিজেকেই নিজে সান্তনা দিয়ে শুদ্ধতার ভান ধরে বের হই।

কয়েক সপ্তাহ আগের এমনই এক পবিত্র দিনে শুভ্র পোশাকে উপস্থিত। তখন শ্রীলংকা জ্বলছে হিংসার আগুনে। কিন্তু এ নিয়ে পবিত্রঘরের নেতার মুখে একটি কথাও উচ্চারিত হতে শুনলাম না। আমি ভীষণরকম উৎসুক ছিলাম যে উনি কিছু বলুক এই বিপদগামীতা নিয়ে; এই মানুষগুলোর ভ্রষ্টাচার নিয়ে; এই ধর্মের নামে অধর্ম নিয়ে; এই মিথ্যা-পঙ্কিলতাপূর্ণ পথ নিয়ে; কিন্তু আমার দুর্ভাগ্য উনি একটি বাক্যও উচ্চারণ করলেন না। অথচ ক্রাইস্টচার্চের ঘটনায় পর পর তিন পবিত্র দিন উনি নানামুখী ইতিবাচক-নেতিবাচক আলোচনায় মুখর ছিলেন।

এবং ইনারা বিশিষ্ট ইসলামী বক্তা (উনাদের ভাষ্যমতেই)। গ্রামে-গঞ্জের মাহফিলের জন্য বছর খানেক আগে থেকেই ধর্না দিতে হবে। সাথে অগ্রিম। মহারাজা আসবেন আকাশ ডিঙিয়ে ধর্মের বানী শুনাতে। মাহফিলের বাড়বাড়ন্তে তৃতীয়বারের মতো হজটাও করা হচ্ছে না। এইসব বাগাড়ম্বরও শুনতে হবে পবিত্রঘরে বসে।

এখন আমি যদি এটিকে ভন্ডামী বলি, তাহলে কি আমি পাপিষ্ট হয়ে যাব; নরকে জ্বলব; তবে তাই সই।

একদিন বয়ানে শুনলাম মাজারপূজারীরা ভ্রষ্ট। আমারও কোনো দ্বিমত নেই এতে। উপমহাদেশের প্রায় সব বিখ্যাত মাজারেই গিয়েছি কৌতূহল বশত কিংবা পর্যটক বেশে; সেখানে ভালো কিছু দেখি নি; তবে ভালো কিছু শুনেছি কাওয়ালীর মুর্ছনায় ।

কিন্তু যদি নেতার মুখে এরকম শুনি যে-- এই মাজারপূজারী ভন্ডদের আজকের জমানায় নিজ হাতে জবাই করতেন যদি ঐ আওলিয়ারা আজ জীবিত থাকতেন।

শুনে জিহাদী জোসে উচ্ছসিত হয়ে শত শত মুসল্লী হৈ হৈ করে উঠলেন। এখন আমার প্রশ্ন হচ্ছে ঐ বিশেষ দিনে পবিত্র ঘরে উপস্থিত কোনো সাইকো যদি জিহাদী জোসে সত্যি সত্যিই ভ্রষ্টদের কাউকে কতল করে ফেলে (প্রায়শই আমরা অবশ্য এরকম ঘটনা দেখতে অভ্যস্ত) তাহলে এর জন্য কে কে দায়ী থাকবে? আমি নিজেও কি কিছুটা দায়ী নই? কারণ আমিও তো পবিত্রঘরে সেই উগ্র বয়ানের অংশীজন ছিলাম কিন্তু এই উগ্রতাকে ঘৃণা করলেও কোনো প্রকার প্রতিবাদ করি নি।



বাহ্যিক লেবাস লাগিয়ে; চাকচিক্যময় মসজিদ বানিয়ে; মাহফিলে হাজারো ধর্মভীরু মানুষ জড়িয়ে; কথায় কথায় আজাবের ভয় দেখিয়ে; হুর-পরীদের কাহিনি শুনিয়ে লাভ কী? যদি সেই অতি দামি মনটাই অপবিত্রতার পঙ্কিলতায় হাবুডুবু খায়; জীঘাংসার বাষ্পে বাষ্পীভূত হতে থাকে; ঘৃণার জালে হাসিমুখে বন্দিত্ব বরণ করে। ধিক, এমন আত্মাকে! ধিক, এমন কলুষিত লেবাসধারী মনকে!

আর এটাই দেশে-বিদেশে অনেক লেবাসধারীদের মনের ভেতরের চিত্র। এই ভীতিকর রূপ সাধারণ বিশ্বাসীদের পথে-প্রান্তরে, দেশে-বিদেশে জীবনকে কঠিন করে তু্লেছে, তুলছে, তুলবে।

ধর্ম যে শুধু টুপি-দাড়ি-তসবিহ-জোব্বা-পাগড়ি-পর্দা ইত্যাদি ইত্যাদির মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় এটা ঐ লেবাসধারীর বেশিরভাগকে কে বোঝাবে? অথচ হওয়া উচিত ছিল এগুলোর পাশাপাশি বিস্তৃত মানবিক একটি মন।

বাস্তবতায় দেখছি-- আমরা যত বেশি এই দেখনেওয়ালা-লেবাসধারী ধর্মের দিকে ঝুঁকছি, ততবেশি উগ্র, অসংবেদনশীল, অসহিঞ্চু, অমানবিক, অসৎ, অসাধু, ও ভন্ডামীর চূঁড়াতে আহরণ করছি। চারপাশে দৃষ্টি ফেললেই এর সত্যতা নিরূপণে অবাক হতে হয় না।

কী মুসলিম! কী হিন্দু! কী ক্রিশ্চিয়ান! কী বুড্ডিস্ট! সকল ধর্মে, সকল জাতিতে, সকল সমাজে প্রায় একইরকম কর্কশ সুর ধ্বনিত হচ্ছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য আমরা রেখে যাচ্ছি এক ঘৃনায় পরিপূর্ণ জীঘাংসামূলক পরিবেশ।

**************************************************************************************************
আখেনাটেন/মে-২০১৯
সর্বশেষ এডিট : ০৮ ই মে, ২০১৯ বিকাল ৩:৪৫
২৭টি মন্তব্য ২৫টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

ভালো লেখার অভাবে অনেক ব্লগ বন্ধ হয়ে গেছে!

লিখেছেন চাঁদগাজী, ২২ শে মে, ২০১৯ রাত ২:৩১



প্রশাসনকে কাজে লাগিয়ে সামুকে বন্ধ করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে, সামু বন্ধ হবে না; যারা সামু বন্ধ করতে চাচ্ছে , তাদের অনেকের চাকুরী চলে যাবে এক সময়;... ...বাকিটুকু পড়ুন

হতদরিদ্র কৃষকদের পাশে নেই কেউই

লিখেছেন ঢাবিয়ান, ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ৮:০৪



যেকোনো দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি কৃষি। দেশের কৃষকেরা রাত-দিন পরিশ্রম করে শক্ত মাটিতে লাঙল চালিয়ে ফসল ফলায় কিন্তু এবার উপযুক্ত দাম না পাওয়ায় দেশের কৃষকেরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে... ...বাকিটুকু পড়ুন

সাময়িক পোস্ট .........

লিখেছেন আহমেদ জী এস, ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:০৯

উপস্থিত সহ-ব্লগারগণ ,




ব্লগের সদর দরজায় এরকম একটি ব্যানার দেখতে পাচ্ছি ----



এখানে ব্লগটিকে লেখাপড়ার একটি শক্তিশালী মাধ্যম বলা হয়েছে। ঠিক যাচ্ছেনা যেন!
আসলে ব্লগে কি... ...বাকিটুকু পড়ুন

একটি খুনের ইতিকথা!

লিখেছেন মেহরাব হাসান খান, ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১০:৫৭

আজকে নিঃসংসভাবে একটা খুন করবো। কুচিকুচি করে কেটে মাংস রাস্তার কুকুরদের খাইয়ে দিবো।তারপর ছুড়িটা চুলায় গলিয়ে ফেলবো।
No dead body,
No murder weapon,
No charge,
No punishment!

আমি ছুড়ি-দা কড়কড়ে বালু দিয়ে ধার দিয়ে নিচ্ছি।কোনভাবেই... ...বাকিটুকু পড়ুন

VirusTotal: বিনা ডাউনলোডে এক বস্তা প্রিমিয়াম এন্টিভাইরাস !

লিখেছেন আর্কিওপটেরিক্স, ২২ শে মে, ২০১৯ সকাল ১১:০৭


ভাইরাস ! ভাইরাস ! ভাইরাস ! X#( বোনরাস নেই কেন? সামি ভাবে। তবে ভাই হোক আর বোন হোক এটা যে বর্তমানের একটা গুরুত্বপূর্ণ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×