somewhere in... blog
x
ফোনেটিক ইউনিজয় বিজয়

" সমকামীতা বা সমকামী বিয়ে " - ভারতের তেলেঙ্গানায় প্রথম সমপ্রেমী বিয়ে । দুই জনই বরের সাজে - বধুহীন বিয়ে। কি অর্জন হবে তাতে বা মানব জাতির গন্তব্য কোথায় ? (মানব জীবন - ২০ )।

২০ শে ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ১:৩৬
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :


ছবি - bangladesh-pratidin

বিয়ে একটি পবিত্র এবং ধর্মীয় বিষয় । চিরাচরিত সামাজিক প্রথা অনুযায়ি বিয়েতে দুজন বিপরীত লিংগের মানুষ লাগে তথা বিয়ে হয় একজন ছেলে ও একজন মেয়ের মাঝে এবং তা সমাজিক-ধর্মীয়ভাবেও স্বীকৃত । ইদানীং ব্যক্তি স্বাধীনতার জয়-জয়কারের মাঝে এক নতুন ধরনের বিবাহ ব্যবস্থা সারা দুনিয়ায় বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা চলছে আর তা হলো "সমকামী বিবাহ" বা ছেলে ছেলেকে বিয়ে করবে বা মেয়ে মেয়েকে। এ কেমন বিবাহ ব্যবস্থা ? এ কি নৈতিক না অনৈতিক ? এ কি শুভবোধের সাথে যায় না অশুভ? এতে কি মানব জাতির ভবিষ্যত রক্ষা হবে বা এ কি মানব জাতির জন্য কল্যাণকর কোন বিষয় ? এ কি সমাজের ছোট-বড় সকলের সাথে শেয়ার করার বিষয় না কিছু বিকৃত মানষিকতার মানুষের ততোধিক বিকৃত ও ঘৃণিত কাজ যা আশে-পাশের মানুষের লজ্জার কথা বাদ তাদের এসব কাজে স্বয়ং শয়তানও লজ্জা পাবে । আর পশু ? পশুর বিবেক-বুদ্ধি না থাকলেও পশু সমশ্রেণীতে কখনো উপগত হয়না যতই কাম তাড়িত হউক অথচ মানুষরুপী এসব পশুরা পশুকেও হার মানায় তাদের বিকৃত কাম চরিতার্থ করতে গিয়ে। ধিক এসব বিকৃত মানুষের মানষিকতাকে।

ইউরোপ-আমেরিকার অনেক দেশেই সমকামী বিবাহকে আইনীভাবেও স্বীকৃতি দিচছে বা দিয়েছে তারপরেও তা সমাজের মূলধারার বাইরের এবং বেশীরভাগ উদারনৈতিক কিংবা সামাজিক মানুষও এ জঘণ্য প্রথার বিপক্ষে । যদিও সারা দুনিয়াতেই বর্তমানে পরিবার ব্যবস্থা হুমকির মুখে এবং ধর্মের বন্ধনশিথিল হয়ে যাচছে তারপরও আমাদের উপমহাদেশ এ জঘণ্য প্রথা মুক্ত ছিল বা সমাজে কিছু সমকামী থাকলেও তারা প্রকাশ্যে তা ঘোষনা করত না লোকলজ্জা ও সামজিকতার ভয়ে। তবে এবার তারও অবসান ঘটতে চলেছে বলে মনে হয় যদিও আমাদের উপমহাদেশের কোন দেশেই তা আইন দ্বারা স্বীকৃত নয় বা সামাজিকভাবেও গ্রহনযোগ্য নয়।

সম্প্রতি তেলেঙ্গানায় এক বিয়ে হয়েছে। চিরাচরিত বিয়ের যে দৃশ্য, সেই বিয়েতে ছিল অনুপস্থিত । বিয়েতে এক জন বর ও একজন কনের সাজের পরিবর্তে এ বিয়েতে ও বিবাহ অনুষ্ঠানে দুজনেই উপস্থিত হয়েছিলেন বরের বেশে। আর এ ব্যতিক্রমী বিয়ে হয়েছে ভারতের তেলেঙ্গানায় । প্রথমবারের মতো আমাদের উপমহাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করেছেন দুই সমপ্রেমী পুরুষ। ৩৪ বছরের তেলেঙ্গানার বাসিন্দা অভয় দাঙ্গের সঙ্গে ৩১ বছর বয়সী বাঙালি যুবক সুপ্রিয় চক্রবর্তী গত শনিবার গাঁটছড়া বাঁধেন। রিসোর্টে এক জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিয়ে হয় তাদের। যদিও ভারতে সমপ্রেমী বিবাহ আইনত স্বীকৃত নয়। এই আনুষ্ঠানিক বন্ধনের সমগ্র আয়োজন করেছেন যুগলের হায়দরাবাদের বন্ধু তথা LGBTQ সম্প্রদায়ের সদস্য সোফিয়া ডেভিড।

হায়দরাবাদের বাঙালি যুবক সুপ্রিয় এবং পাঞ্জাবি যুবক অভয় বর্তমানে আইটি ক্ষেত্রে কর্মরত। তাদের সম্পর্ক গড়ে ওঠার প্রথম ধাপ আর পাঁচটা প্রেমের মতোই। তারা যে আর পাচটা ছেলের থেকে কিছুটা আলাদা, তাদের পছন্দ আলাদা তা স্কুলজীবন থেকেই টের পেয়েছিলেন। আট বছর আগে ‘প্ল্যানেট রোমিও’ ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে পরস্পরের সঙ্গে পরিচয় হয়। তারপর বহুবার তারা ডেটে যান। অবশেষে গত বছরের তারা একসঙ্গে থাকার সিদ্ধান্ত নেন। সামাজিক ভীতির গণ্ডি পেরিয়ে গত অক্টোবরে প্রথম সোশ্যাল মিডিয়ায় অভয়কে বিয়ে করার ঘোষণা করেন সুপ্রিয়।


ছবি - bangladesh-pratidin

এদিনের বিবাহ অনুষ্ঠানে দুজনেই উপস্থিত হয়েছিলেন বরের বেশে। দু'জনেরই পরনে ছিল সাদা স্যুট। তাদের পরিবার, বন্ধু ছাড়াও LGBTQ গোষ্ঠীর সদস্যসহ প্রায় ৬০ জন ওই অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন। সরকারি আইন উপেক্ষা করে দুই সমকামীর বিবাহ-বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া প্রসঙ্গে তারা বলেন, ‘ধর্ম বা রীতিনীতির বাধা ছাড়াই আমরা এটিকে সাধারণভাবেই উদযাপন করছি।’

সুপ্রিয় বলেন, "সম্পর্কের প্রধান মূল্যবোধ হল, গ্রহণযোগ্যতা। আমরা একে-অপরকে বদলানোর চেষ্টা করব না। আমি মনে করি, পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধার উপরই একটা সম্পর্ক দাঁড়িয়ে থাকে এবং আমরা এব্যাপারে কখনও সমঝোতা করব না"। তাদের দেখে এবার বাকী সমকামীরা নিজেদের মেলে ধরতে পারবে এবং সাধারণ সমপ্রেমী সম্পর্ক রাখতে পারবে বলেও আশাবাদী এই দম্পতি।

সুপ্রিয় আরও বলেন,"পরিবার আমাদের সম্পূর্ণভাবে সমর্থন জানায়নি। তবে আমাদের আরও ভালো পরিণতির জন্য সময় দিয়েছে"।‌

সমকামীতার ব্যাপারে ইসলামের নির্দেশনা কি -

জীব মাত্রই যৌন চাহিদা আছে । যৌন চাহিদা আছে গরু-ছাগলের, আছে কুকুর-বিড়ালেরও। তাই বলে আমি-আপনি কখনো দেখিনি এক ষাড় অন্য ষাড়ের সাথে যৌনক্ষুধা নিবারণ করছে। কুকুর-বিড়ালরাও কখনো সমান লিঙ্গের সাথে সেক্স শেয়ার করেনা। পৃথিবীতে যত জীব-জন্তু আছে তারা সবাই কামত্তোজনা উঠলে বিপরীত লিঙ্গের দারস্থ হয়। এদিকে আশরাফুল মাখলুকাত তথা শ্রেষ্টজীব মানুষ হয়ে যৌন চাহিদা মেটানোর ক্ষেত্রে জানোয়ার থেকেও অধম হই কী করে? বিকৃত মানষিকতার কিছু মানুষ তাদের যৌন চাহিদা মেটানোর জন্য সমলিঙ্গের দারস্থ হয়। সমান সমান লিঙ্গধারীরা পরষ্পর এক-অন্যের সাথে যৌন চাহিদা মেটানোর নামই হচ্ছে homosexuality বা সমাকামিতা।

ইসলামের সমকাম ব্যভিচারের চেয়েও জঘন্য অন্যায় । সমকামিতাকে ইসলামে সম্পূর্ণ হারাম করে দিয়েছে এবং তা স্বাভাবিক ব্যভিচারের চেয়েও খারাপ।হযরত লুত (আঃ) এর কওমকে মহান আল্লাহ যেসব কারনে ধ্বংস করে দিয়েছিলেন যেসব কারণের মধ্যে সমকামিতা ছিল একটি। এ ব্যাপারে আল কুরআনে বলা হয়েছে, "এবং আমি লূতকে প্রেরণ করেছি। যখন সে স্বীয় সম্প্রদায়কে বললঃ তোমরা কি এমন অশ্লীল কাজ করছ, যা তোমাদের পূর্বে সারা বিশ্বের কেউ করেনি ? তোমরা তো কামবশতঃ পুরুষদের কাছে গমন কর নারীদেরকে ছেড়ে। বরং তোমরা সীমা অতিক্রম করেছ"। (সুরা আরাফ,আয়াত - ৮০-৮১)।

এ ব্যাপারে মহান আল্লাহপাক মানুষকে সর্তক করে আল কুরআনে আরো বলেন," সৃষ্টিকুলের মধ্যে তো তোমরাই কি পুরুষের সাথে উপগত হও? আর তোমাদের রব তোমাদের জন্য যে স্ত্রীগণকে সৃষ্টি করেছেন তাদেরকে তোমরা বর্জন করে থাক। বরং তোমরা তো এক সীমালংঘনকারী সম্প্রদায়"।(সূরা শু'আরা , আয়াত ১৬৫-১৬৬) ।

এ ব্যাপারে মহান আল্লাহ আল কুরআনে আরো বলেন, " স্মরণ কর লূতের কথা, তিনি তাঁর কওমকে বলেছিলেন, তোমরা কেন অশ্লীল কাজ করছ? অথচ এর পরিণতির কথা তোমরা অবগত আছ! তোমরা কি কামতৃপ্তির জন্য নারীদেরকে ছেড়ে পুরুষে উপগত হবে? তোমরা তো এক বর্বর সম্প্রদায়। উত্তরে তাঁর কওম শুধু এ কথাটিই বললো, লূত পরিবারকে তোমাদের জনপদ থেকে বের করে দাও। এরা তো এমন লোক যারা শুধু পাকপবিত্র সাজতে চায়। অতঃপর তাঁকে ও তাঁর পরিবারবর্গকে উদ্ধার করলাম তাঁর স্ত্রী ছাড়া। কেননা, তার জন্যে ধ্বংসপ্রাপ্তদের ভাগ্যই নির্ধারিত করেছিলাম"। (সুরা আন নমল,আয়াত - ৫৪-৫৭)

পুরুষ যদি পুরুষেই যৌন চাহিদা পুরণ করতে পারে তাহলে নিশ্চই নারীর প্রতি তার টান কমে যাবে। আবার নারী যদি নারীতেই যৌন চাহিদা পুরণ করতে পারে তাহলে পুরুষের প্রতি তার টান কমে যাবে। আর এর ফল কি দাঁড়াবে? পুরুষ যদি নারীর কাছে না বা নারী যদি পুরুষের কাছে না যায় তাহলে মানুষের বংশবৃদ্ধির কী হবে? সমকামিতার ফলে যেমন এইডস মহামারি ছড়াবে তেমনি মানুষের স্বাভাবিক প্রজনন ব্যহত হবে নিশ্চিতভাবে। হুমকির মুখে পড়বে মানবসভ্যতা ধ্বংস হবে মানুষের সামাজিক পরিবেশ।

মানুষের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ, এই যৌবন ও উদ্যম মানুষের প্রতি আল্লাহ তাআলার নেয়ামত? এই নেয়ামতকে আল্লাহ্‌র অবাধ্যতার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা কিংবা আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করার ক্ষেত্রে নিয়োজিত করা কি আদৌ তাঁর নেয়ামতের শুকরিয়া? এসব হারাম জিনিষ যেমন- অশ্লীল ম্যাগাজিন, নগ্ন ছবি ইত্যাদি, যা অবৈধ যৌনাচার ও মহাপাপে জড়িয়ে পড়তে মানুষকে প্ররোচিত করে এবং মনের মধ্যে খারাপ প্রভাব গভীরভাবে জিইয়ে রাখে তা থেকে দৃষ্টিকে সংযত করতে এবং মনকে পবিত্র রাখতে এসব থেকে আমাদের আল্লাহর আশ্রয় চাইতে হবে। যখনই এসব গুনাহ করার মনস্কামনা আমাদের মনে সৃষ্টি হবে কিংবা এই পাপে লিপ্ত হওয়ার জন্য শয়তানের ওয়াসওয়াসা অনুভূত হবে, তখনই আমাদের স্মরণ করতে হবে যে আমার এইসব অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কাল কিয়ামতের মাঠে আমাদের বিরুদ্ধে সাক্ষী হয়ে দাঁড়াবে।

এ প্রসংগে আল্লাহ তাআলা হুশিয়ারী উচচারন করে বলেন ," অবশেষে তারা যখন জাহান্নামের কাছে পৌঁছবে, তখন তাদের কান, তাদের চোখ ও তাদের চামড়া তাদের বিরুদ্ধে তাদের কৃতকর্ম সম্পর্কে সাক্ষী দেবে, আর তারা তাদের চামড়াগুলোকে বলবে, কেন তোমরা আমাদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিলে? তারা বলবে, আল্লাহ আমাদের বাক্শক্তি দিয়েছেন যিনি সবকিছুকে বাক্শক্তি দিয়েছেন। তিনি তোমাদেরকে প্রথমবার সৃষ্টি করেছেন এবং তাঁরই প্রতি তোমরা প্রত্যাবর্তিত হবে"।( সূরা হা-মীম আস-সাজদা(ফুসসিলাত), আয়াত - ২০-২১)।

পরিশেষে , আমাদের সকলকে আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ না হয়ে এসব পাপাচার থেকে মুক্তির চেষ্টা করতে হবে। সাবধান থাকতে হবে , যেন শয়তান যেন আমাদের উপর আধিপত্য বিস্তার করতে না পারে। আমাদেরকে সবসময় পাপ থেকে বেঁচে থাকার জন্য চেষ্টা করতে হবে এবং আল্লাহর নিকট তওবা করতে হবে আমাদের দ্বারা সংঘটিত পাপের জন্য ও পাপ থেকে মুক্তির জন্য । আর আল্লাহ তওবাকারীর সকল গুনাহ ক্ষমা করে দেন। আমরা আল্লাহতাআলার প্রতি আশাবাদী তিনি আমাদের কুপ্রবৃত্তির বিপক্ষে আমাদেরকে সাহায্য করবেন এবং এই মহারোগ থেকে আমাদেরকে মুক্ত রাখবেন।

তথ্য সূত্র : bangladesh-pratidin (২০/১২/২০২১) এবং আল কোরআন।
=========================================================
পূর্ববর্তী পোস্ট -

মানব জীবন - ১৯ - " আত্মসম্মান-নীতি-নৈতিকতা " Click This Link
মানব জীবন - ১৮ - " ধর্মহীনতা " Click This Link
মানব জীবন - ১৭ - " ধৈর্য " Click This Link
মানব জীবন - ১৬ -" সততা " Click This Link
মানব জীবন - ১৫ - " লজ্জা " Click This Link
মানব জীবন - ১৪ - "পর্দা " Click This Link
মানব জীবন - ১৩ - "ধর্ম " Click This Link
মানব জীবন - ১২ " সহ শিক্ষা " Click This Link
মানব জীবন - ১১ " শিক্ষা " - Click This Link
মানব জীবন - ১০ "পরিবার " - Click This Link
মানব জীবন - ৯ "বিবাহের পরে" - Click This Link
মানব জীবন - ৮ " মানব জীবনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য " - Click This Link
মানব জীবন - ৭ " তালাক " - Click This Link
মানব জীবন - ৬ "দেনমোহর - স্ত্রীর হক" - Click This Link
মানব জীবন - ৫ "বিবাহ" - Click This Link
মানব জীবন - ৪ " মাতৃত্ব " - Click This Link
মানব জীবন - ৩ Click This Link
"নারী স্বাধীনতা বনাম নারী(জরায়ু)'র পবিত্রতা "
মানব জীবন - ২ " মাতৃগর্ভ (জরায়ু)"- Click This Link
মানব জীবন - ১ "মানুষের জন্ম প্রক্রিয়ার ইতিকথা"- Click This Link
সর্বশেষ এডিট : ২৩ শে ডিসেম্বর, ২০২১ দুপুর ২:৩৮
৩৮টি মন্তব্য ৪০টি উত্তর

আপনার মন্তব্য লিখুন

ছবি সংযুক্ত করতে এখানে ড্রাগ করে আনুন অথবা কম্পিউটারের নির্ধারিত স্থান থেকে সংযুক্ত করুন (সর্বোচ্চ ইমেজ সাইজঃ ১০ মেগাবাইট)
Shore O Shore A Hrosho I Dirgho I Hrosho U Dirgho U Ri E OI O OU Ka Kha Ga Gha Uma Cha Chha Ja Jha Yon To TTho Do Dho MurdhonNo TTo Tho DDo DDho No Po Fo Bo Vo Mo Ontoshto Zo Ro Lo Talobyo Sho Murdhonyo So Dontyo So Ho Zukto Kho Doye Bindu Ro Dhoye Bindu Ro Ontosthyo Yo Khondo Tto Uniswor Bisworgo Chondro Bindu A Kar E Kar O Kar Hrosho I Kar Dirgho I Kar Hrosho U Kar Dirgho U Kar Ou Kar Oi Kar Joiner Ro Fola Zo Fola Ref Ri Kar Hoshonto Doi Bo Dari SpaceBar
এই পোস্টটি শেয়ার করতে চাইলে :
আলোচিত ব্লগ

সে কোন বনের হরিণ ছিলো আমার মনে-১৯

লিখেছেন অপ্‌সরা, ২৫ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ৯:৩৫



আজকাল আমি রোজ বিকেলে সিদ্দিকা কবিরের বই দেখে দেখে ডালপুরি, সিঙ্গাড়া, সামুচা বানাই। বাবার বাড়িতে আমি কিছুই রান্না শিখিনি, এমনকি ভাতও টিপ দিয়ে বুঝতে শিখিনি সিদ্ধ হলো নাকি হলো না... ...বাকিটুকু পড়ুন

নূর মোহাম্মদ নূরু ভাইয়া আর কখনও ফিরবেনা আমাদের মাঝে

লিখেছেন শায়মা, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ২:০২


নূর মোহাম্মদ নূরু
আমরা কিছু সামু পাগল আছি যাদের সামুতে না লিখলে কিছুই ভালো লাগে না। নুরুভাইয়া মনে হয় ছিলেন সেই দলে। প্রথমদিকে উনাকে ফুল ফল ও মনিষীদের জীবন নিয়েই লিখতে... ...বাকিটুকু পড়ুন

শোক সংবাদঃ ব্লগার নূর মোহাম্মদ নূর আর আমাদের মাঝে নেই।

লিখেছেন কাল্পনিক_ভালোবাসা, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ রাত ৩:০৪



সুপ্রিয় ব্লগারবৃন্দ,
আমরা অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে জানাতে চাই যে, সামহোয়্যারইন ব্লগের ব্লগার নূর মোহাম্মদ নূরু (নূর মোহাম্মদ বালী) আর আমাদের মাঝে নেই। ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্নইলাহি রাজিউন। গত ২৯ অক্টোবর রাত... ...বাকিটুকু পড়ুন

যেকোনো মৃত্যু: বড় কষ্টের, বড় বেদনার.....

লিখেছেন জুল ভার্ন, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ সকাল ১০:৪৯

যেকোনো মৃত্যু: বড় কষ্টের, বড় বেদনার.....

ছড়াকার সাংবাদিক ব্লগার বন্ধু নুর মোহাম্মদ নুরু ভাইর চলে যাওয়া খুব কষ্টের। আরও বেশী কষ্ট পেয়েছি ব্লগার শায়মার পোস্টে নুরু ভাইয়ের মেয়ের হৃদয়বিদারক লেখা পড়ে।... ...বাকিটুকু পড়ুন

১ মাস গত হয়ে যাবার পর?

লিখেছেন শূন্য সারমর্ম, ২৬ শে নভেম্বর, ২০২২ দুপুর ১:২৮





ব্লগে রেজিস্ট্রেশন করে লিখতে শুরু করলেন, সময় গত হবার পর আপনি পরিচিতি পেলেন, সবাই আপনার পোস্ট, কমেন্ট চায় ; আপনি যথেষ্ট সক্রিয় ব্লগে।হঠাৎ আপনি অসুস্থ হয়ে অনিয়মিত, অসুস্থতায় আপনি মৃত্যুবরণ... ...বাকিটুকু পড়ুন

×